সন্ত্রাসী হামলায় বাড়িঘর ভাংচুর, সাংবাদিকসহ আহত ৫

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার চরকিশোরগঞ্জ মোল্লারচর এলাকায় সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে পাঁচটি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটে। এ হামলায় দৈনিক আমাদের অর্থনীতির সদর উপজেলা প্রতিনিধি নাদিম মাহমুদ এবং আলমগীর হোসেন, মামুন, নাসিমা আক্তারসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদেরকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনা পুলিশকে জানানো হলেও তারা বিলম্বে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

আহতরা বাংলানিউজকে জানান, পৌরসভার চরকিশোরগঞ্জ মোল্লারচর এলাকার বাড়ি থেকে দৈনিক আমাদের অর্থনীতির সদর উপজেলা প্রতিনিধি নাদিম মাহমুদ, আলমগীর হোসেন ও মামুন শহরে আসছিলেন।

এসময় মোল্লারচর এলাকায় আগে থেকেই ওৎ পেতে থাকা আরিফ ও ইউনুছের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে তাদের মারধর করে।

আহতরা আরও জানান, এরপরই সন্ত্রাসীরা সাংবাদিক নাদিম মাহমুদ, শাহ জামাল ও আলমগীরের বাড়িতে হামলা চালিয়ে পাঁচটি বসতঘর ভাংচুর করে।এসময় সাংবাদিক নাদিমের মা নাসিমা আক্তারকেও মারধর করে তারা।

সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার বাংলানিউজকে জানান, এ ঘটনায় অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে।ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
================

মুন্সীগঞ্জে প্রতিপক্ষ গ্রুপের হামলায় সাংবাদিকসহ আহত ৭, ভাংচুর

মুন্সীগঞ্জ শহরের কাছে মোল্লারচর এলাকায় আজ সোমবার দুপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় সাংবাদিকসহ ৭ জন আহত হয়েছে। এ সময় সাংবাদিকের বাড়িসহ ৫টি বসত ঘরে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়েছে। দৈনিক আমাদের অর্থনীতির মুন্সীগঞ্জ সদর প্রতিনিধি আহত নাদিম মাহমুদ, অপর আহত আলমগীর হোসেন, মামুন, নাসিমা আক্তারসহ সবাইকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। সম্পত্তি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশী আরিফ ও ইউনুসের নেতৃত্বে ১০-১২ জনের সংঘবদ্ধ একটি গ্রুপ আজ সোমবার বেলা সোয়া ১২ টার দিকে দৈনিক আমাদের অর্থনীতির স্থানীয় প্রতিনিধি নাদিম মাহমুদের বাড়িতে এ হামলা চালায়। এ সময় নাদিম মাহমুদকে মারধর করা হলে আলমগীর হোসেনসহ অপরাপর প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে তাদেরও মারধর করা হয়। পরে ওই গ্রপটি প্রতিবেশীদের বসত ঘরের ভিতর প্রবেশ করে আসবাপত্র-মূল্যবান জিনিস পত্রাদি ভাংচুর করে। এ ঘটনায় সদর থানায় সাংবাদিক নাদিম মাহমুদ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সদর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: আবুল বাসার জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গ্রুপটি পালিয়ে যায়। হামলা ও ভাংচুরের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply