আলমগীর কুমকুমের মরদেহ বারডেমের হিমাগারে

বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাবেক সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক, চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, পরিবেশক, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলমগীর কুমকুমের মরদেহ বারডেম হাসপাতালের হিমাগারে নেওয়া হয়েছে। এর আগে সন্ধ্যা ৭টায় তার চতুর্থ নামাজে জানাজা ও শেষ শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে।

সেখানে নামাজে জানাজা শেষে প্রয়াত এ নেতার মরদেহে পুষ্পস্তবক দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ ও তার বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনসহ সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো।

এ সময় আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আসাদুজ্জামান নূর এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, আইন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বিএম মোজাম্মেল হক, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহ সভাপতি গোলাম কুদ্দুছসহ রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক নেতা-কর্মীরা।

এর আগে এফডিসি প্রাঙ্গণে আলমগীর কুমকুমের তৃতীয়, বিটিভি প্রাঙ্গণে দ্বিতীয় ও রামপুরার বাসার সামনে প্রথম নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়। এসব জায়গায় তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান সরকার এবং চলচ্চিত্র ও সাংস্কৃতিক অঙ্গণের বিশিষ্টজনেরাসহ তার দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা।

আলমগীর কুমকুমের মরদেহ সোমবার বিকেলে এফডিসিতে আনা হয়। এ সময় নামাজে জানাজায় অংশ নেন তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী (মিডিয়া) মাহবুবুল হক শাকিল, নায়ক আলমগীর, নায়ক-প্রযোজক মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা) সহ চলচ্চিত্র ও সাংস্কৃতিক অঙ্গণের বিশিষ্টজনেরা শিল্পী-কলাকুশলীরা। এরপর আলমগীর কুমকুমের মরদেহে ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানান তারাসহ ভক্তরা।

সোমবার বেলা ১২টা ৪৫ মিনিটে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন আলমগীর কুমকুম। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ডায়াবেটিস ও কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন। অসুস্থ হয়ে পড়ায় সোমবার সকালেই আলমগীর কুমকুমকে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে নেওয়া হয়।

রাতে তার মরদেহ বারডেম হাসপাতালের হিমাগারে থাকবে। মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত আলমগীর কুমকুমের মরদেহ ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বসাধারনের শ্রদ্ধার জন্য নিয়ে যাওয়া হবে। পরে দুপুরে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

আলমগীর কুমকুমের জন্মগ্রহণ করেন ঢাকায়। গত ২২ জানুয়ারি ছিল তার ৬৫ তম জন্মদিন। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকে চলচ্চিত্রকারের রামপুরার বাসায় দিনটি পালন করা হয়।

চলচ্চিত্র নির্মাণের পাশাপাশি রাজনীতি ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন আলমগীর কুমকুম। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলেন তিনি। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটেরও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন তিনি। ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ৬৬’র ছয় দফা ও ৬৯’র গণঅভ্যুত্থানে তিনি অংশ নেন। একাত্তরে জড়িত ছিলেন স্বাধীন বাংলাবেতার কেন্দ্রের সঙ্গে।

ষাটের দশকের মধ্যভাগে তিনি চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত হন। সহ-পরিচালক হিসেবে তিনি কাজ করেন ‘চেনা-অচেনা’, ‘রূপবানের রূপকথা’, ‘মধুমালা’ প্রভৃতি ছবিতে। ১৯৬৯ সালে ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ ছবির মাধ্যমে আলমগীর কুমকুম চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। এতে অভিনয় করেছিলেন আজিম, কবরী, রাজু আহমেদসহ আরো অনেকে। আলমগীর কুমকুম পরিচালিত চলচ্চিত্রের সংখ্যা প্রায় ৪০টি। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘স্মৃতিটুকু থাক’, ‘রকি’, ‘রাজার রাজা’, ‘ধীরে বহে মেঘনা’, ‘আমার জন্মভূমি’, ‘গুণ্ডা’, ‘সোনার চেয়ে দামি, ‘জীবন চাবি’, ‘কাবিন’, ‘রাজবন্দি’, ‘অমরসঙ্গী’ ইত্যাদি।

বরেণ্য এই চলচ্চিত্র পরিচালক ছিলেন একজন দক্ষ সংগঠক। তিনি একসময় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি হিসেবে সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার মৃত্যুতে রাজনীতি, চলচ্চিত্র ও সাংস্কৃতিক জগতে নেমে এসেছে গভীর শোকের ছায়া।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply