নিম্নপর্যায়ের দুর্নীতি তদারকির কেউ নেই

আলম শাইন
বলতে দ্বিধা নেই, বাংলাদেশ একটি দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের রিপোর্টে অনেকবার এর প্রমাণ মিলেছে। সংস্থাটি দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোতে জরিপ চালিয়ে দেখেছে, এখনও বাংলাদেশ দুর্নীতিতে শীর্ষে রয়েছে। জরিপের বিষয় ছিল ‘ডেইলি লাইফস অ্যান্ড করাপশন : পাবলিক ওপিনিয়ন ইন সাউথ এশিয়া।’ জরিপে অংশগ্রহণকারী ৭৫ শতাংশ বাংলাদেশী বলেছেন, পুলিশ দুর্নীতিতে শীর্ষে রয়েছে অদ্যাবধি। এছাড়াও ৬৬ শতাংশ বাংলাদেশীর অভিমত, সরকারি অফিসগুলোতে ঘুষ ছাড়া কাজ করা যায় না।

জরিপ মোতাবেক দেখা যায়, আমরা খেলাধুলা কিংবা সততায় চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলেও দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছি বারকয়েক। সেই শিরোপা অক্ষুণœ রাখতে বদ্ধপরিকর দেশের কিছু দুর্নীতিবাজ। তারা দুর্নীতির নানা কৌশল রপ্ত করছে প্রতিনিয়ত, মূলত রাজনৈতিক দলগুলো থেকেই আশকারাটা পেয়েছে বলা যায়। দুর্নীতির ‘স্বীকৃতি’টা সরকারি দল ছুড়ে ফেলে দিলেও বিরোধী দল তা লুফে নেয়। ফলে সুযোগটা আঁকড়ে ধরে দুর্নীতিবাজরা। রাজনৈতিক ইস্যু বলে কথা! প্রতিটি সরকারের আমলেই এমন চিত্র পরিলক্ষিত হয় দেশে।
দুর্নীতির বীজ ইতিমধ্যে দেশের প্রায় প্রতিটি পেশাজীবীর মাঝে বিতরণ হয়ে গেছে। তা বপন করে এর কুফলও ঘরে তুলে নিচ্ছে তারা। অর্থাৎ নীতি বিসর্জন দিয়ে অবৈধ উপার্জনের স্বাদ পেয়ে গেছে অনেকেই। কাজেই ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এখন তা বিসর্জন দেয়া তাদের পক্ষে কঠিন থেকে কঠিনতর পর্যায়ে পৌঁছেছে। তাছাড়া সমাজের প্রতিটি স্তরেই দুর্নীতি আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকায় সহজ-সরল মানুষও এখন আর ভালো থাকতে পারছে না। কারণ তাকে চলতে হয় সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গেই। সামাজিকভাবে বেঁচে থাকতে গেলে একজন মানুষকে কেনাকাটা থেকে শুরু করে বড় ধরনের সব কাজই করতে হয়।

বলতে গেলে সমাজের নীচুতলা থেকে শুরু করে উচ্চপর্যায়ের সর্বস্তরের মানুষ দুর্নীতির সঙ্গে কোন না কোনভাবে জড়িয়ে গেছে। যে কোন মানুষকে সামাজিকভাবে বসবাস করতে গেলে যেমন প্রয়োজন মুচি, কুলি-মজুর কিংবা রিকশাওয়ালার, তেমনি ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার ও শিল্পপতির (অর্থাৎ সব শ্রেণীর পেশাজীবীরই একে অপরের কাছে প্রয়োজনীয়তা রয়েছে)। প্রশ্ন হচ্ছে, মানুষটি যদি হন নির্দিষ্ট অংকের আয়ের লোক, তাহলে বিষয়টা কী দাঁড়াতে পারে? পদে পদে দুর্নীতির শিকার হয়ে তিনি কি আর সহজ-সরল থাকতে পারেন? এমনিই তো প্রাণবায়ু বেরিয়ে যাচ্ছে লাগামহীন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে। তার ওপর সততার প্যাঁচে পেঁচিয়ে থাকা যে কত কঠিন ব্যাপার, তা ভুক্তভোগীমাত্রই ভালো জানেন।
আমরা লক্ষ্য করছি এদেশের দুর্নীতির নানা রকমফের। অনেকেই অনেকভাবেই দুর্নীতি করছেন বা দুর্নীতির শিকার হচ্ছেন। প্রতিকার চাইতে পারছেন না কেউই। আর প্রতিকার চাইবেনই বা কার কাছে? পুলিশের কাছে? অসম্ভব! সোজা কথায় বলতে গেলে, তাদের ওপর জনগণের কোন আস্থাই নেই এখন আর। যদিও পুলিশ বিভাগের স্লোগানে রয়েছে, তারা জনগণের বন্ধু। আজ পর্যন্ত কি এর প্রমাণ দিতে পেরেছে পুলিশ? পুলিশ বিভাগের অপকর্মের জন্য প্রতি বছর ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল যে রায় দিচ্ছে, তা কি একেবারে মিথ্যা? সে রায় কি আমাদের গা-সওয়া হয়ে গেছে? না হলে প্রতিকার নেই কেন! ওসব বিষয়ে আপাতত আলোকপাত করছি না। নিুপর্যায়ের দুর্নীতির দিকে দৃষ্টিপাত করছি এখন। কারণ সবাই কমবেশি উচ্চপর্যায়ের দুর্নীতি নিয়ে ভাবেন ও লেখেন।

পুলিশ ছাড়াও এদেশের অনেক ক্যাডার-ননক্যাডার অফিসার থেকে শুরু করে একেবারে পিয়ন পর্যন্ত দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত (একজন পিয়ন তো সেদিন ডিসি সাহেবের কাছেও ঘুষ দাবি করে বসেছিল!)। পত্রপত্রিকায় ঘুরেফিরে তাদের দুর্নীতির কথাই প্রকাশিত হচ্ছে। আড়ালে-আবডালে থেকে যাচ্ছে অন্য পেশাজীবীদের দুর্নীতির তথ্য। অথচ দুর্নীতি নেই কোথায়? উদহারণস্বরূপ বলতে হয়, মুচি-রিকশাওয়ালার দিকে তাকিয়ে দেখুন আগে। অল্প ছেঁড়া জুতাটি নিয়ে যখন মুচির কাছে যাবেন, তখন দেখবেন সে টেনেটুনে জুতার ক্ষতটা আরও বাড়িয়ে বিশ টাকা দাবি করে বসবে। অথচ ওই কাজটি দশ টাকা হলেই জুলুম হয়ে যায়। জুতার মালিকের আর উপায় থাকে না। নিরুপায় হয়ে বাড়তি টাকা গচ্চা দিতে হয়। রিকশাওয়ালার কাছে যাবেন, রীতিমতো ধিক্কার শুনতে হবে। দশ টাকার ভাড়া ত্রিশ টাকা দাবি করে বসে। অথবা বলে বসে, যাব না। এ ফাঁকে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কথাও শুনিয়ে দেয় কৌশলে। তখন অবস্থাটা কেমন হয়, একবার ভেবে দেখুন। ফলে বাধ্য হয়ে তিনগুণ ভাড়া বেশি গুনতে হচ্ছে। সিএনজি, ট্যাক্সি ক্যাবওয়ালাদের কথা বাদই দিলাম।
এ আলোচনায় সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষের চিত্র বোঝানোর চেষ্টা করলাম মাত্র। স্বল্প পরিসরে সব পেশাজীবীর চিত্রটা আনা যেমনি সম্ভব নয়, তেমনি সম্ভব হয়নি এসব পেশাজীবীর দুর্নীতির প্রতি কারও নজর দেয়া। সত্যি কথা বলতে, দেশে নিম্নপর্যায়ের দুর্নীতির দিকে নজর দেয়ার যেন কেউ নেই। দুর্নীতি দমন কমিশন নিজেরা নিজেদের ‘কাগুজে বাঘ’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে একবার। সেই অক্ষমতার কথা স্মরণ করে বলছি, ওপরের দিকে যদি সমস্যাবোধ করেন, তাহলে নিচে চোখ ফিরিয়ে নিন, দেখুন না সমাজটাকে বদলে দিতে পারেন কিনা? সেই সঙ্গে বলতে হয়, শুধু ঘুষখোরকে নিয়ে ব্যস্ত থাকলে চলবে না, ধরতে হবে ওই দুধওয়ালাকেও, যে পাঁচ লিটার দুধে এক লিটার পানি মিশিয়ে এবং ভাতের মাড় দিয়ে কৃত্রিম দুধ বানিয়ে বাজারজাত করছে। ধরতে হবে তাকে, যে গুঁড়ো মশলার সঙ্গে কাউনের গুঁড়ো মিশিয়ে প্যাকেটজাত করছে। তাকেও ধরতে হবে, যে সবজির গায়ে পানি ছিটিয়ে ওজন বাড়িয়ে বিক্রি করছে। সেই শিক্ষকদের শায়েস্তা করতে হবে, যারা ক্লাস ফাঁকি দিয়ে কোচিংয়ের দিকে নজর দিচ্ছেন। ধরতে হবে সেই ডাক্তারদের, যারা হাসপাতালে রোগী দেখতে অবহেলা করে প্রাইভেট প্র্যাকটিসে ব্যস্ত থাকেন এবং বিভিন্ন ধরনের হয়রানিমূলক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে কমিশন কামিয়ে নিচ্ছেন। ধরতে হবে সেই পুলিশকে, যে মিথ্যা মামলার ভয় দেখিয়ে উপরি কামিয়ে নিচ্ছে। ধরুন না এসব চটজলদি। এগুলো তো আর উঁচু পর্যায়ের দুর্নীতি নয় যে, ধরতে গেলে গলায় কাঁটা বিঁধে যাবে!

দুর্নীতি দমন কমিশন আরেকটি বিষয়ে নজর দিলে ভালো হতো। সেটি হচ্ছে যৌতুকপ্রথা রোহিতকরণ। এ ব্যাপারে আইন থাকলেও তা খুব একটা কার্যকর হচ্ছে না দেশে। শুধু বিবাহ বিচ্ছেদের সময় বিষয়টি ঘাঁটাঘাঁটি হলেই লেনদেনের বিষয়টি জানাজানি হয়। তার আগে বর-কনে উভয় পক্ষের লোকজনই চুপচাপ থাকেন। কাজেই নীরবে-নিভৃতে যৌতুকের লেনদেন ঘটছে। এটা কি দুর্নীতি নয়? দেশে আজ পর্যন্ত শোনা যায়নি কোন যৌতুকখোর বর গ্রেফতার হয়েছে। ধর্মীয় দলগুলোও এ নিয়ে সোচ্চার নয়। বলে রাখা ভালো, এর জন্য কনেপক্ষের করার কিছুই নেই কিন্তু। মেয়েকে আইবুড়ো বানিয়ে ঘরে রাখতে চান না কোন মা-বাবাই। কাজেই এটি দূর করতে হবে কঠোর হস্তে। কারণ সমাজের সর্বস্তরের বিয়েতেই এখন যৌতুকপ্রথা বিরাজ করছে। কালেভদ্রে কোন খানদানি পরিবার হয়তো যৌতুক নেয়া থেকে বিরত থাকছে ঠিকই, তবে তার সংখ্যা খুবই কম। যৌতুকপ্রথা রোহিত করতে গেলে আমাদের দেশে কন্যাদায়গ্রস্ত পিতার সংখ্যাও বেড়ে যাবে। সে বিষয়টিও চিন্তা করতে হবে আগে সরকারকে। তারপর কঠিন আইন বানিয়ে ও প্রয়োগ করে দেশ থেকে যৌতুকপ্রথা রোহিত করা সম্ভব হতে পারে। অবশ্য এ ব্যাপারে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই। আপসহীন কঠোর সংগ্রামের মাধ্যমে এমনই দৃষ্টান্তমূলক পরিস্থিতি গড়ে তুলতে হবে, যাতে করে যৌতুকখোর পাত্র বিয়ের পিঁড়িতে বসতে না পারে। এ আন্দোলন বেগবান করতে একজন নেতার প্রয়োজন আছে বলে মনে করছি আমরা, যার ডাকে একটা বড় ধরনের আন্দোলন সৃষ্টি হবে। এ ব্যাপারে ‘এক দফা এক দাবি’ নিয়ে সমবেত হলে আন্দোলন সফল বৈ নিষ্ফলে যাবে না।

প্রশ্ন হতে পারে, সামাজিক আন্দোলন করে কি দুর্নীতি রোধ করা যাবে? যাবে, কারণ দেশের সব মানুষ দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত নন। কাজেই সর্বস্তরের সমর্থন পাওয়া না গেলেও বেশির ভাগ মানুষই এ আন্দোলনে শরিক হবে বলে আমাদের বিশ্বাস। মনে রাখতে হবে, মানুষের অসাধ্যের কিছুই নেই। সামান্য একটু চেষ্টা করলেই আমাদের নৈতিক অবক্ষয় রোধ করা সম্ভব। আসুন না আমরা একবার চেষ্টা করে দেখি বিশ্বের দরবারে মাথাটা উঁচু করে দাঁড়াতে পারি কিনা।

আলম শাইন : সদস্য, ওয়াইল্ড লাইফ ওয়ার্কিং গ্র“প, এনসিসি
alamshine@gmail.com

যুগান্তর

Leave a Reply