মুরাদের মোবাইলের অপরিচিত একটি মোবাইল নাম্বারের ব্যক্তিকে খুঁজছে গোয়েন্দারা

সাংবাদি দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকান্ড
সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকান্ডে মুন্সীগঞ্জে আটক যুবক মুরাদ হোসেনের (৩০) সেল ফোনে কল আসা একটি মোবাইল নাম্বারের ব্যক্তিকে খুঁজছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। মুরাদকে টানা তিন দিন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে ঢাকার মিন্টু রোডের কার্যালয়ে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করেও ওই মোবাইল নাম্বারের ব্যক্তির সন্ধান পাওয়া যায়নি। মুন্সীগঞ্জ শহরের জমিদারপাড়া এলাকা থেকে গত শুক্রবার ভোরে মুরাদ হোসেন (৩০) ও তার চাচাতো ভাই আল-আমিনকে আটক করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। ওই দিন মুরাদকে নিয়ে যাওয়া হয় গোয়েন্দা পুলিশের ঢাকার মিন্টু রোডের ডিবি অফিসে। সেখানে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদকালে মুরাদের কাছ থেকে তার মোবাইলে আসা কলের ওই মোবাইল নাম্বারের ব্যক্তির হদিস পাওয়ার প্রচেষ্টা চালায় গোয়েন্দারা। তবে, আটক মুরাদ ওই নাম্বারের ব্যক্তিকে চিনেন না বলে গোয়েন্দাদের তথ্য দেয় জিজ্ঞাসাবাদকালে। আজ সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে মুন্সীগঞ্জ শহরের জমিদারপাড়া এলাকার বাসায় আলাপ-চারিতাকালে মুরাদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

গোয়েন্দা হেফাজত থেকে ছাড়া পেয়ে সোমবার ভোরেই শহরের জমিদারপাড়ার নিজ বাসায় ফিরেছেন একজন সাধারণ ইলেক্ট্রিক মিস্ত্রী মুরাদ হোসেন। সে ওই এলাকার মহিউদ্দিন বেপারী ওরফে মহির ছেলে।

ছাড়া পাওয়ার পর মুরাদ জানান, গত ২১ ফেব্রয়ারি রাত ৯ টায় তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একটেল কোম্পানীর একটি অপরিচিত নাম্বার থেকে কল আসে। কাজের চাপে মুরাদ কলটি রিসিভ করতে পারেনি। পরের দিন রাতে মুরাদ ওই অপরিচিত নাম্বারে কল করলে অপর প্রান্ত থেকে কলটি রিসিভ করলেও কোন কথা বলেনি। মুরাদের মোবাইল ফোনে আসা কলের ওই অপরিচিত মোবাইল নাম্বারের ব্যক্তির সন্ধান পেতে গোয়েন্দারা তাকে আটক করে। মুরাদের মোবাইলে কল করা একটেল অপারেটরের ওই মোবাইল নাম্বারটি কার- গোয়েন্দারা বার বার জিজ্ঞাসাবাদ করে মুরাদের কাছে তা জানতে চেয়েছে। কিন্তু মুরাদ বরাবরই ওই নাম্বারটি চিনে না বলে গোয়েন্দাদের কাছে দাবী জানিয়েছে। অত:পর রোববার দিবাগত রাতে মুরাদকে ছেড়ে দেয় গোয়েন্দরা।

প্রসঙ্গত, মুন্সীগঞ্জ পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে অত্যন্ত গোপনীয়তার মধ্যে শুক্রবার ভোরে শহরের জমিদারপাড়া এলাকা থেকে মুরাদ হোসেন (৩০) ও আল-আমিন (২৫) নামের দু’যুবককে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেফতার করেন। এরপর ওই দিনই আল-আমিনকে পুলিশের হেফাজতে রেখে অপর আটক মুরাদকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয় ডিবি পুলিশের কার্যালয়ে। শনিবার আল-আমিনকে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ ছেড়ে দেন।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply