লঞ্চযাত্রীদের ভাড়া বিড়ম্বনা

মুন্সীগঞ্জ এলাকা নদীবেষ্টিত হওয়ায় লঞ্চে যাতায়াত করা এ এলাকাবাসীর জন্য সহায়ক। সে কারণে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ পথে চলাচলকারীর বড় একটা অংশ সড়ক পথের চেয়ে লঞ্চেই যাতায়াত করে থাকেন। ইতিমধ্যে ধলেশ্বরী নদী পানিশূন্য হয়ে পড়ায় ডহুরী-বালিগাঁও রোডে লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে শুধু কাঠপট্টি ঘাট এবং মুন্সীগঞ্জ লঞ্চঘাট থেকে ঢাকার সঙ্গে যাতায়াতের সামান্য সুযোগ রয়েছে; কিন্তু বিআইডবিস্নউটিএর গাফিলতির কারণে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির অযুহাতে লঞ্চ মালিকরা ইচ্ছামতো ভাড়া বৃদ্ধি করে চলেছেন। পূর্বে ঢাকা থেকে কাঠপট্টি পথের ভাড়া যেখানে ২০ টাকা ছিল সেখানে সরকারি ভাড়া চার্টের নিয়মনীতি উপেক্ষা করে দ্বীপরাজ লঞ্চটি ৩৫ টাকা করে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায় করছে। এ ক্ষেত্রে যাত্রীদের বক্তব্য হলো, এক লাফে তো জ্বালানি তেলের মূল্যে দ্বিগুণ হয়ে যায়নি। এমনকি ৩৫ টাকা করে বিআইডবিস্নউটিএর মূল্য তালিকায় পর্যন্ত নেই। তাহলে কেন জোর জবরদস্তিমূলক যাত্রীদের কাছে তারা এভাবে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। কর্তৃপক্ষ কেন এ লঞ্চটির বিরুদ্ধে কার্যত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ব্যর্থ হচ্ছে, তা কারো বোধগম্য হচ্ছে না। বিষয়টির ওপর সংশ্লিষ্ট মহল দৃষ্টি দিয়ে যাত্রীদের ভাড়া বিড়ম্বনা থেকে রেহাই দেবে এটাই এখন তাদের দাবি।

হাজি মো. রাসেল ভূঁইয়া সিপাহীপাড়া খলিফাবাড়ি, মুন্সীগঞ্জ।

Leave a Reply