পদ্মা সেতু ও শান্ত মাথার সিদ্ধান্ত

স্বদেশ রায়
পদ্মা সেতু নির্মাণকে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অঙ্গীকার হিসেবে অনেক বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন কিছু আওয়ামী লীগ নেতানেত্রী। এটা আদৌ দোষের নয়। কারণ, যাঁরা দল করেন তাঁরা অবশ্যই তাঁদের নির্বাচনী অঙ্গীকারকে গুরুত্ব দেবেন। এটা গণতন্ত্রের একটি গুণাবলী। এর ভেতর দিয়ে প্রমাণ করে নেতানেত্রীরা জনগণের কাছে যে অঙ্গীকার করেছিলেন, তার প্রতি দায়বদ্ধ আছেন। গণতন্ত্রের সৌন্দর্যও এখানে। অর্থাৎ নেতাকে জনগণের কাছে এভাবে দায়বদ্ধ থাকতে হয়। জনগণের কাছে দায়বদ্ধ থাকার অর্থই হলো দেশের কাছে দায়বদ্ধ থাকা। তবে কেউ যদি মনে করেন, পদ্মা সেতু শুধুমাত্র ভোটের জন্য। আগামীতে আমরা দক্ষিণবঙ্গের ভোট পাব। তা হলে কিন্তু তিনি তাঁর দলের এ নির্বাচনী অঙ্গীকারের পূর্ণ অর্থ বুঝতে ভুল করছেন। পদ্মা সেতু ভোট পাবার জন্য করা কোন সস্তা অঙ্গীকার নয়। এটা সম্পূর্ণ দেশের দীর্ঘস্থায়ী অর্থনৈতিক বিনির্মাণের জন্য নেয়া একটি সিদ্ধান্ত। শুধুমাত্র যথার্থ যোগাযোগ অভাবে এ মুহূর্তে দেশের সব থেকে অবহেলিত ও অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া এলাকা দেশের দক্ষিণবঙ্গ ও দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশের দক্ষিণাঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নের জন্য একের পর এক বেশকিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার ভেতর প্রথমে আছে দেশের দক্ষিণাঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বেশ কয়েকটি ভাড়াভিত্তিক কুইক রেন্টাল বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপন। এ কুইক রেন্টাল বিদ্যুত কেন্দ্রের ভর্তুকি নিয়ে আমাদের কিছু তথাকথিত বুদ্ধিজীবী মিডিয়াতে নানান মন্তব্য করছেন। যে কারণে দেশের লোকও অনেক সময় বিভ্রান্ত হচ্ছে। তারা মনে করছে সরকারকে অনেক ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। কিন্তু সরকার যদি কুইক রেন্টাল বিদ্যুতের মাধ্যমে গত তিন বছরে বাড়তি তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন না করত তাহলে দেশের অবস্থা কোথায় গিয়ে দাঁড়াত! বিএনপি- জামায়াত সরকারের পাঁচ বছরে এক মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদিত না হওয়ায় দেশের বিদ্যুত উৎপাদন তিন হাজার মেগাওয়াটে নেমে গিয়েছিল। এতদিনে পুরনো বিদ্যুত কেন্দ্রগুলোর স্বাভাবিক উৎপাদন হ্রাসের ফলে এটা আড়াই হাজার মেগাওয়াটে দাঁড়াত। দেশের এখন বিদ্যুতের চাহিদা ৭ হাজার মেগাওয়াটের মতো। সরকার সাড়ে পাঁচ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন করছে। যদি এ বিদ্যুত উৎপাদন না হতো, তাহলে ছোট বড় মিলে এ তিন বছরে কম পক্ষে এক লাখ শিল্প কলকারখানা বিদ্যুতের অভাবে বন্ধ হয়ে যেত। এতে ঢাকার সুশীল সমাজ হয়ত খুশি হতো। কারণ, তারা জামায়াত- বিএনপি আমলের মতো কম পয়সায় বাসার কাজের লোক পেতেন। কিন্তু দেশের সাধারণ মানুষ ও দেশের অর্থনীতি কোথায় গিয়ে দাঁড়াত তা কি একবার ভেবে দেখার নয়? এই যে এক লাখ কলকারখানার উৎপাদন, লাখ লাখ লোকের কর্মসংস্থান এর পরিমাপ করে তবেই তো সরকারের ভর্র্তুকির সমালোচনা করতে হবে। এ তো গেল শুধু কলকারখানার বিষয়, দেশের কৃষির অবস্থা কী হতো! এ মুহূর্তে আমাদের টেলিভিশনজীবীরা গ্রামে গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, প্রতিটি কৃষিক্ষেত এখন নিয়মিত পানি পাচ্ছে। সেচের পানির বিদ্যুত সরবরাহে কোন ঘাটতি নেই। সরকার যদি এ বাড়তি তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন না করত কুইক রেন্টালের মাধ্যমে তাহলে অবস্থা কী দাঁড়াত? কৃষিতে বিদ্যুত দিতে হলে শহরের অনেক কলকারখানা, অফিস-আদালত বন্ধ রাখতে হতো। কিন্তু তা তো সরকার পারত না। ফলে কৃষি উৎপাদনে কোন বিদ্যুত বা সেচের সহায়তা দিতে পারত না। যার ফল কী দাঁড়াত? আজ সরকার চালে স্বয়ংসম্পূর্ণ। এ অবস্থা থাকত না দেশে। অন্যদিকে এখন সার্ক দেশগুলোর ভেতর চালের দাম সব থেকে কম বাংলাদেশে। এর বিপরীতে যদি সরকারকে চাল আমদানি করতে হতো। তাহলে মোটা চালের দামই ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি হতো। মধ্যবিত্তের চাল এক শ’ টাকা কেজি হতো। সাধারণ লোকের হাত থেকে এই যে টাকা প্রতিদিন চলে যেত এ টাকার হিসাব করে তার সঙ্গে সরকারের কুইক রেন্টালের ভর্তুকির টাকার হিসাব করা উচিত। সেখানে দেখা যাবে সরকারের প্রত্যক্ষ এ ভর্তুকির পরিমাণ পরোক্ষভাবে জনগণের পকেট থেকে যে টাকা চলে যেত তার থেকে অনেক কম। আমাদের একশ্রেণীর টেলিভিশন বা চ্যানেলজীবী ও একশ্রেণীর তথাকথিত অর্থনীতিবিদ এ হিসাব না করে প্রতিদিন সরকার কেন বিদ্যুত উৎপাদন করল দ্রুত তাই নিয়ে হাজারটি কথা বলছেন। এমনকি এই দ্রুত বিদ্যুত উৎপাদনের বিপক্ষে জনসভা করে কথা বলছেন আমাদের বিরোধীদলীয় নেত্রী। যেহেতু তিনি বিরোধীদলীয় নেত্রী তাই তাঁর বক্তব্যকে গুরুত্ব দিতে হয়। কিন্তু তাঁর শিক্ষাদীক্ষা বিচার করলে তাঁর অর্থনৈতিক বিশ্লেষণের গুরুত্ব না দেয়াই দেশের জন্য মঙ্গল। যিনি ভুটানকে ভারতের প্রদেশ হিসেবে বক্তব্য রাখতে পারেন তাঁর কাছে অর্থনৈতিক বিশ্লেষণ আশা করাই ভুল। বরং এটা দেশ ও জাতির জন্য একটি দুর্ভাগ্য। এ ধরনের শিক্ষাদীক্ষাওয়ালা নেতানেত্রীদের হাত থেকে যতদিন না এ দেশ বেরুতে পারবে ততদিনে এ দেশের প্রকৃত কোন উন্নয়ন বা মঙ্গল আশা করাও ভুল। যা হোক, তার পরেও এ পাপ আমাদের সকলের। তাই একে মেনে নিয়েই ভবিষ্যত বিনির্মাণের পথে এগুতে হবে।

যা হোক, আগের কথায় ফিরে আসা যাক। সরকার দেশের দক্ষিণাঞ্চলে এবং দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। ইতোমধ্যে এ সরকার খুলনাতে ১৩০০ মেগাওয়াটের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেখানে কাজ চলছে। কাজ চলছে মংলাবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের বন্দর করার। এছাড়া পদ্মার ওপারে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করারও একটি সিদ্ধান্ত শোনা যাচ্ছে। এসব মিলে দেশের দক্ষিণ অঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে একটি অর্থনৈতিক কর্মচাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা শুরু হয়েছে। পদ্মা সেতু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই যে অর্থনৈতিক কর্মকা- শুরুর প্রচেষ্টা হচ্ছে এর যেমন সহায়ক হবে, তেমনি গোটা এলাকার অর্থনৈতিক কর্মকা-ের জন্যও সহায়ক হবে। তাই দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সুষম অর্থনৈতিক উন্নয়ন বিন্যাসের জন্য পদ্মা সেতু অনিবার্য বিষয়। আওয়ামী লীগ দেশের অর্থনীতির এ গুরুত্ব বিবেচনা করেই তাদের নির্বাচনী অঙ্গীকারে পদ্মা সেতুর বিষয়ে জনগণের কাছে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়েছিল। তাই এটা কোন ভোট পাবার সস্তা রাজনীতি নয়। শুধুমাত্র ভোটের জন্য কোন তথাকথিত অঙ্গীকার নয়। এটা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে একটি যথাসিদ্ধান্ত।

আওয়ামী লীগ সরকারের এ সিদ্ধান্ত যে সঠিক সেটা দাতা সংস্থারা উপলব্ধি করেই এ সরকারের শুরুতেই বিশ্বব্যাংক, ইসলামিক ডেভলপমেন্ট ব্যাংক এডিবি ও জাইকা পদ্মা সেতুর অর্থায়নের অঙ্গীকার করে এবং পরবর্তীতে সে মোতাবেক চুক্তিও হয় এবং খুবই স্বচ্ছন্দ গতিতে এ কাজ এগিয়ে চলছিল। বিশেষ করে টেন্ডার কমিটিসহ সেতুর যাবতীয় টেকনিক্যাল দিকের সিদ্ধান্ত নেবার জন্য জামিলুর রেজা চৌধুরী ও আইনুন নিশাতের সহযোগিতা সরকার গ্রহণ করাতে বিষয়টির স্বচ্ছতা এবং কাজের সঠিক মান নিয়েও কারও কোন প্রশ্ন দেখা দেয়নি। বরং জামিলুর রেজা চৌধুরী ও আইনুন নিশাতের মতো গুনী ব্যক্তির সহায়তা এ কাজকে অনন্য মাত্রা দিয়েছিল। যা হোক, আমাদের মতো দেশে অর্থাৎ দেশে রাষ্ট্রের স্থপতিকে সপরিবারে হত্যা করা হয় রাষ্ট্রের অন্য স্থপতিদের জেলখানায় হত্যা করে। সেই হত্যাকারীদের একজন জনপ্রিয় নেতা হতে পারেন, এমন দেশে সব সময় সবকিছু সহজভাবে ঘটবে না। তাই পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রেও ওই সাবলীল গতি বাধাগ্রস্ত হয়েছে। কারণ, বর্তমান বিরোধী দলের ওই অর্থে কোন রাজনৈতিক কর্মসূচী নেই। তাদের অতীত শুধু কালিমালিপ্ত নয়, তাদের অতীত ভয়ঙ্কর। তাই তারা জানে এ সরকার যদি অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জন করে তা হলে তারা আরও আঁস্তাকুড়ে নিক্ষেপিত হবে। এ কারণে তারা দেশের স্বার্থ বিবেচনা না করে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নকে ঠেকিয়ে দেবার সব চেষ্টা করছে। সুবিধা হিসেবে তারা দুটো বিষয় হাতের মওকা হিসেবে পেয়েছে। এক. যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে কথা বলার জন্য বিশাল অঙ্কের টাকা ও অন্যদিকে ড. ইউনূস কার্ড। যুদ্ধাপরাধীদের বিশাল অঙ্কের টাকা দিয়ে তারা বিভিন্ন দাতা সংস্থা যাতে বাংলাদেশে উন্নয়ন সহযোগিতার অর্থ বন্ধ করে এজন্যে লবিস্ট নিয়োগ করেছে। নিয়মিত সে লবিস্টদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে। গত মাসেও ওই সব লবিস্টের সঙ্গে কথা বলার জন্য বিএনপির একজন আমেরিকায় বেশ অনেক দিন কাটিয়ে এসেছেন। তিনি তাঁর ওই তথাকথিত কাজের অগ্রগতির রিপোর্টও বেগম জিয়াকে দিয়েছেন। অন্যদিকে মোডির মতো অর্থনৈতিক রেটিং সংস্থা ড. ইউনূসের লবিং সম্পর্কে প্রশ্ন তোলার পরেও বিশ্বাস করতে কষ্ট হতো, তাঁর মত একজন গুণী মানুষ দেশের ক্ষতি করবেন ব্যক্তিস্বার্থে! কিন্তু সম্প্রতি নিউইর্য়ক টাইমসে তাঁর যে ইন্টারভিউ প্রকাশ হয়েছে তার অন্তর্নিহিত ভাষা প্রকাশ করে, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তাঁর ক্ষোভ অনেক বেশি। তিনি একটি বিশেষ ধরনের প্রতিহিংসায় ভুগছেন, যা তাঁর মতো মানুষের পক্ষে মানায় না।

যা হোক, এ লবিস্ট ও অন্য যাঁরা এ কাজ করছেন তাঁরা একটি সুবিধা পেয়ে যান, ওই সময়ে যিনি যোগাযোগমন্ত্রী ছিলেন তাঁর ব্যক্তিগত অর্থনৈতিক উত্থান স্বচ্ছ নয়। এটাকে তারা কাজে লাগায়। যদিও পদ্মা সেতুতে তার কোন অনিয়ম কেউ খুঁজে পায়নি। বিশেষ করে দাতাদের টাকার তো প্রশ্নই ওঠে না। কারণ ওই টাকা তো ছাড়ই হয়নি। পুনর্বাসনসহ অন্যান্য কাজে পাঁচ থেকে দশ পারসেন্ট অনিয়ম হতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন। এটা পৃথিবীর যে কোন দেশেই হয়। তাছাড়া মানুষকে বাসস্থান থেকে উচ্ছেদ করে পুনর্বাসনের মতো জটিল কাজ করতে হলে সব সময় শতভাগ সোজা পথে হাঁটলে কাজ উদ্ধার হয় না। যা হোক, তার পরে ওই মন্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রী নিজ বিবেচনায় তাঁর অবস্থান থেকে সরিয়ে দিয়েছেন। বলা যেতে পারে সেখানে একজন মি. ক্লিনকে নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি একটু কথা বেশি বললেও তাঁর কোন আর্থিক দুর্নীতির রেকর্ড নেই। এ সরিয়ে দেয়া ও স্বচ্ছ ব্যক্তিকে নিয়োগ দেবার কাজটি প্রধানমন্ত্রী নিজ বিবেচনায় করেছেন। কারণ, যতদূর খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এ সেতুর অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত কোন মন্ত্রণালয় থেকে ওই মন্ত্রীকে সরানোর জন্য মৌখিক বা লিখিত কোন অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর কাছে যায়নি। তারপরেও দেশের স্বার্থ ও অর্থনৈতিক ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী কোন ইগোর দিকে না তাকিয়ে ওই মন্ত্রীকে সরিয়ে দেন। ঘটনাপ্রবাহ স্বাভাবিক নিয়মে ঘটলে ওই মন্ত্রীকে সরিয়ে দেয়ার পরদিনই বিশ্বব্যাংকের উচিত ছিল পদ্মা সেতুর টাকা ছাড় করার ঘোষণা দেয়া। কিন্তু বাস্তবে সেটা ঘটেনি। কারণ, বাংলাদেশ সরকারের বিপক্ষে লবিংটি তখনও খুব জোরাল ছিল। যা হোক, মন্ত্রী পরিবর্তনের পরেও কয়েক মাস অপেক্ষা করেও প্রধানমন্ত্রী কাক্সিক্ষত কোন ফল না পাওয়াতে তিনি হয়ত বিকল্প পথ খুঁজছেন।

তবে কয়েকটি মাস হয়ত প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ বছরের ক্ষমতার সময়সীমার তৃতীয় বছরে এসে অনেক বেশি সময়। তাই তিনি কিছুটা ব্যতিব্যস্ত হতেই পারেন। কিন্তু প্রশ্ন হলো, পদ্মা সেতুর মতো একটি অর্থনৈতিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে যেখানে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে সেখানে কয়েকটি মাস বা তাঁর ক্ষমতার পাঁচ বছর এসব বেশি গুরুত্ব পাবার নয়। তার থেকেও সার্বিক উন্নয়ন সহযোগীর সঙ্গে তাঁর সরকারের ও দলের সম্পর্ক এবং আমাদের অর্থনীতিতে পদ্মা সেতু যাতে অবদান রাখতে পারে সে বিষয়টি নিয়ে ঠা-া মাথায় ভাবতে হবে। কারণ, পিপিপিতে পদ্মা সেতু করার জন্য মালয়েশিয়ার একটি কোম্পানির মাধ্যমে যে দুবাইভিত্তিক ঋণ নেবার চিন্তা করা হচ্ছে সেটা অর্থনীতিতে ও দেশের জন্য কতটা লাভজনক হবে তা আগে ভাবতে হবে। ওয়ার্ল্ড ব্যাংক যে ঋণ বাংলাদেশকে দিচ্ছে তার সুদ বা সার্ভিস চার্জ মাত্র দশমিক ৭ শতাংশ। তারপরেও যে দুই বিলিয়ন ডলারের বেশি আর্থিক সহযোগিতা বাংলাদেশ পাবে তার একটি বড় অংশ এক পর্যায়ে গ্রান্ট হিসেবেই পাবে বাংলাদেশ। তাতে করে বাংলাদেশকে শোধ করতে হবে শেষ অবধি বড়জোর এক বিলিয়ন ডলার। তাছাড়া শুরু থেকেই এ সেতুর মালিকানা থাকবে বাংলাদেশের। অন্যদিকে মালয়েশিয়ার দুবাইভিত্তিক ঋণে যদি বাংলাদেশ পিপিপিতে এ সেতু করতে যায় তা হলে এ সেতুর ব্যয় অবশ্যই এক বিলিয়ন ডলার বেড়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে এ সেতুর মোট ব্যয় প্রায় পাঁচ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়াবে। অন্যদিকে সেতুর মালিকানা প্রথম ৫০ বছর বাংলাদেশের থাকছে না। বাংলাদেশকে ওই পাঁচ বিলিয়ন ডলারের বিপরীতে শোধ করতে হবে আগামী ২৫ বছরে প্রায় ১৫ বিলিয়নের বেশি ডলার। প্রথমে এ দুটি বিষয়ই একটু চিন্তা করে দেখা যেতে পারে, আগামী পঞ্চাশ বছর যখন এ সেতুর মালিকানা বাংলাদেশের থাকবে না তখন এ সেতু থেকে সব ধরনের লাভ করার বিষয়টি চিন্তা করবে মালয়েশিয়ান কোম্পানিটি। প্রথমত একটি বিষয়ে সকলেই এক মত হবেন যে, পদ্মা সেতু প্রথমে লাভজনক হবে না। অন্তত যমুনা সেতু শুরুতে যে পর্যায়ে পৌঁছেছিল পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রে সেটা হবে না। কারণ, এরশাদ আমলে নর্থবেঙ্গলে রাস্তাঘাটসহ অনেক উন্নয়নের পরে ১৯৯৭ সালে গিয়ে শেখ হাসিনার সরকার যমুনা সেতু চালু করে। কিন্তু আগামী দুই বা তিন বছরের ভেতর যখন পদ্মা সেতু চালু হবে ওই সময়ের ভেতর দক্ষিণবঙ্গ ও দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম এলাকায় এরশাদ নয় বছরে নর্থবেঙ্গলে যে অবকাঠামো গড়ে তুলেছিলেন অমনটি তোলা সম্ভব হবে না।

তাছাড়া মংলা বন্দরকেন্দ্রিক যে ট্রানজিটের আয়ের কথা পদ্মা সেতুকে ঘিরে চিন্তা করা হচ্ছে ওই ট্রানজিটের অবকাঠামোও শতভাগ আগামী দুই তিন বছরের ভেতর তৈরি হওয়া সম্ভব নয়। সেটার জন্যও সময় লাগবে। তাই শুরুতে পদ্মা সেতু লাভজনক হওয়ার কোন সুযোগ নেই। এমনকি সুযোগ নেই যমুনা সেতুর পর্যায়ে পৌাঁছানো। সেক্ষেত্রে বিদেশী কোম্পানি কোনমতেই লোকসান করবে না। তারা তখন পদ্মা সেতুতে অধিক হারে টোল আদায়ের দিকে ঝুঁকবে। পদ্মা সেতুতে অধিক হারে টোল আদায় হলে তখন যমুনা সেতুর ক্ষেত্রেও একই প্রশ্ন আসবে। এর প্রভাব বাজারসহ অর্থনীতির সব ক্ষেত্রে কী ব্যাপক হবে সেটাও ভেবে দেখতে হবে। কারণ, দশমিক ৭ ভাগ সুদের পরিবর্তে শতকরা ৭ ভাগ সুদ ও তার সঙ্গে লোকসান এড়ানোর জন্য যদি বাড়তি আয়ের বিষয়টি যোগ হয় তাহলে টোলের পরিমাণ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে! যে ট্রাক এখন যমুনা সেতুতে এক হাজার টাকা টোল দিচ্ছে তাকে তখন পদ্মা ও যমুনাতে দিতে হবে কমপক্ষে দশ হাজার টাকার টোল। এ টোল দিয়ে পণ্য বহন করে নিয়ে এলে ওই পণ্যের দাম কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে। এটাও যেমন ভাবতে হবে, তেমনি এর থেকেও বড় ভাবনা বিশ্বব্যাংকের ঋণ নিলে যেখানে বাংলাদেশকে গ্রান্ট বাদ দিয়ে সাকুল্যে ১ বিলিয়ন ডলার শোধ করতে হবে। অন্যদিকে মালয়েশিয়ার সঙ্গে পিপিপিতে করতে হলে বাংলাদেশকে শোধ করতে হবে ১৫ বিলিয়নের বেশি ডলার। বাংলাদেশের অর্থনীতি কি এখনও এ ঋণের চাপ বহন করার ক্ষমতা রাখে? রাখে না। বরং এটা বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য একটি বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়াবে। আওয়ামী লীগের মতো একটি পপুলিস্ট গণতান্ত্রিক দলের পক্ষে দেশের অর্থনীতিতে এ বোঝা জেনেশুনে চাপানো কখনই ঠিক হবে না।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, মন্ত্রী বদলের সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বব্যাংক তো তাদের অর্থ ছাড় করেনি। তাহলে বাংলাদেশ পদ্মা সেতু নিয়ে কী সিদ্ধান্ত নেবে। মন্ত্রী বদলের সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বব্যাংকের ওই অর্থ ছাড় করা উচিত ছিল। সেটা যে করা হয়নি এ নিয়ে বিশ্বব্যাংকের অনেক উচ্চমহলে প্রশ্ন রয়েছে। তারা মনে করে বিশ্বব্যাংকের আর দেরি করা উচিত নয়। অবিলম্বে বাংলাদেশের পদ্মা সেতুর জন্য অর্থ ছাড় করা উচিত। তাছাড়া সার্বিক পরিস্থিতি যেদিকে এগিয়েছে তাতে বিশ্বব্যাংক অচিরেই এ অর্থ ছাড় করবে বলে ইঙ্গিত মিলছে।

এমতাবস্থায় বাংলাদেশকে খুবই ঠা-া মাথায় এগুতে হবে। কোনমতেই উচিত নয়, তাড়াহুড়া করে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে পদ্মা সেতু নিয়ে যে চুক্তি হয়েছে তা বাতিলের জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাগিদ দেয়া। বরং অর্থ ছাড়ের বিষয়টি বাংলাদেশ সরকারকে চেষ্টা করতে হবে এখন। কারণ, সরকারকে মনে রাখতে হবে, বিশ্বব্যাংক এ মুহূর্তের দাতা সংস্থাদের মাদার অর্গানাইজেশন। তাই তার থেকে বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্ন করার অর্থই হলো সমগ্র উন্নয়ন সহযোগী বা দাতা সংস্থা যাই বলি না কেন, তার থেকে বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্ন করা। এ ধরনের চিন্তা আনু মুহাম্মদরা করতে পারে। যাঁদের রাষ্ট্র, সমাজ ও মানুষ নিয়ে কোন দায় নেই। কোনভাবে নিজেকে পরিচিত করে টেলিভিশনজীবী হতে পারলেই হলো। কিন্তু আওয়ামী লীগের জন্য এ ধরনের সিদ্ধান্ত হবে আত্মঘাতী। শুধু তাই নয়, একবার যদি আওয়ামী লীগ আমলে দেশ বিশ্বের সকল উন্নয়ন সহযোগী থেকে বিচ্ছিন্ন হয় তাহলে তার সুদূরপ্রসারী ফলও ভাবতে হবে। এর সুদূরপ্রসারী ফল যেমন দেশের অর্থনীতির জন্য ভয়াবহ তেমনি দল হিসেবে আওয়ামী লীগের জন্যও হবে হারিকিরি করার শামিল। এ আত্মহত্যা করা আওয়ামী লীগের উচিত হবে না। আওয়ামী লীগে অনেক নেতা বা মন্ত্রী আছেন তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলছি তারা এখনও ষাটের দশকের সেই রাজপথের কর্মীই আছেন। মন্ত্রীর আসনে বসলেও তারা বর্তমান পৃথিবী ও অর্থনীতিকে বোঝেননি। তাই তারা বাস্তবতার বাইরে গিয়ে দলকে আত্মহত্যার পথে ঠেলে দিতে চায়। এটা তাদের ইচ্ছে নয়, অজ্ঞতা মাত্র। অন্যদিকে চৈনিক কমিউনিস্ট কিছু অর্থনীতিবিদ এখন আওয়ামী লীগে। তারা হয় বর্তমান পৃথিবীর অর্থনীতির বাস্তবতা বোঝেন না, না হয় নিজের কোন স্বার্থ উদ্ধার বা কোন পদ পাবার জন্য অসম্ভব কথা বলছেন। তারা বিশ্ব উন্নয়ন সহযোগী ফোরাম থেকে বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্ন করে এক কল্পিত উন্নয়নের স্বপ্ন দেখছেন। এসবের বাস্তবতা হলো স্বপ্নে খাবার গ্রহণের মতো।

তাই আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের সামনে এখন খুবই শান্ত মাথায় সিদ্ধান্ত নেবার সময়। কারণ, তার অনেক পদক্ষেপের ফলে বিশ্বব্যংকের টাকা ছাড় করার বিষয়টি এখন অনেক এগিয়ে গেছে। হয়ত দুই তিন মাস সময় লাগতে পারে। কিন্তু জাতীয় অর্থনৈতিক পরিক্রমায় দুই তিন মাস সময় এমন কোন বিশেষ সময় নয়। তাছাড়া আর যাই হোক, তাঁকে খেয়াল রাখতে হবে তিনি বিশ্বের পরিচিত একজন নেত্রী। তাঁর আমলে আর যাই হোক, বাংলাদেশ যেন বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম থেকে বিচ্ছিন্ন না হয়। এ আত্মহননের পথ যেন তাঁর আমলে না হয়। যে যাই বলুক না কেন, দেশ তাঁর দিকেই তাকিয়ে আছে। কারণ, আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় আসার অর্থ স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে আবার পতাকা ওড়া এবং পৃথিবীর সর্ববৃহৎ গণহত্যার সৃষ্টি হওয়া। ২০০১-এ যা ঘটেছিল, এবার তার থেকে হাজারো গুণ বেশি হয়ে হাবিয়া দোজখ নামবে বাংলাদেশে। এ কথা নিশ্চিত পৃথিবীর সব থেকে বড় গণহত্যা কিন্তু তারেক ও মতিউর রহমান নিজামীদের নেতৃত্বে হবে। কোন পেশার লোকই বাদ যাবে না। তাই দেশকে ও মানুষকে রক্ষা করতে হলে এখন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের মাথা ঠাণ্ডা রাখা ছাড়া কোন বিকল্প নেই। শান্ত মাথায় তাকে উত্তরণ ঘটাতে হবে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সঙ্গে এই যে সাময়িক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে এ সমস্যায় থেকে।

swadeshroy@gmail.com

v

Leave a Reply