মুন্সীগঞ্জ কারাগারে মাদকের ছড়াছড়ি

মুন্সীগঞ্জ কারাগারে চলছে অনিয়ম দুর্নীতির মধ্যদিয়ে। আর মাদক বেচাকেনা হচ্ছে অবাধে। কারাভ্যন্তরে মাদকদ্রব্য প্রবেশ করার সঙ্গে জড়িত একশ্রেণীর কারারক্ষী ও বিডিআর বিদ্রোহের সাজাপ্রাপ্ত কয়েদিরা বলে জানিয়েছেন কারাবন্দিরা। এছাড়া কারাগারের ক্যান্টিনে সিগারেটের ব্যবসা জমজমাট হওয়ায় অনভ্যস্থ তরুণ হাজতিরাও ধূমপান করছে। বিড়িসহ যে কোনো ব্র্যান্ডের সিগারেট কারা ক্যান্টিনে কিনতে পাওয়া যায়। বিনা বাধায় ইয়াবা, গাঁজা সেবন করছেন মাদকাসক্ত হাজতিরা। জামিনপ্রাপ্ত এক আসামি জানিয়েছেন, বিডিআর বিদ্রোহের সাজাপ্রাপ্ত ১৬ জন কয়েদি কারাগারের বিভিন্ন কাজের গুরুদায়িত্ব পেয়ে বন্দিদের ওপর মানসিক চাপ ও অত্যাচার করে টাকা-পয়সা সিগারেট আদায় করছেন।

তিনি আরো জানান, আটক বন্দিরা জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর কারা কর্তৃপক্ষের কাছে গচ্ছিত মালামাল ফেরত পাচ্ছেন না। এছাড়া কারাগারে হাজতি ও কয়েদিদের খাদ্য তালিকার পরিমাপ অনুযায়ী সরবরাহ করা হয় না। এছাড়া কয়েক বছর জেলখাটা এক আসামি জানিয়েছেন, সরকারি বিধি মোতাবেক প্রতি জন হাজতি ও কয়েদির জন্য খাদ্যের তালিকা প্রতিদিন সকালে আটা ৮৭.৪৮, গুড় ১৪.৫৮, দুপুরে চাল ২৪৭.৮৬, তরকারি ২৯১.৬০, রাতে চাল ২৪৭.৮৬, ডাল ১৪৫.৮০, মাছ/খাসির মাংস ৩৬.৪৫/ গরুর মাংস ৩৮.৭৮ গ্রাম যে কোনো এক পদ। দৈনিক তেল ২০.৫০, লবণ ৩২.৮০, শুকনা মারিচ ২.৫, পেঁয়াজ ৪.৬১, হলুদ ১.২ ও ধনিয়া .৫১ গ্রাম। ব্যবহারের জন্য মাসিক সরিষা তেল ৩.৬৪, নারিকেল তেল ৫৮.৩২ গ্রাম ও গায়ের সাবান ১টা। সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে সরকারের দেওয়া খাদ্যের অর্ধেক পরিমাণ কারাবন্দিদের দেওয়া হচ্ছে। দুপুরের তালিকায় তরকারি থাকলেও দেওয়া হচ্ছে নিম্নমানের সবজি।

কারাগারের ভেতরে কর্মরত (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) এক রাইটার জানিয়েছেন, কারাগারের খাদ্য সরবরাহের দায়িত্বে রয়েছেন জেলা আদালতের এক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আত্মীয়। এছাড়া কারাগারের ক্যান্টিনের বিক্রয় সামগ্রী টুথব্রাশ, পেস্ট, সাবান, তেল, বিস্কুট, মুড়ি, চানাচুর, লেজার, ডাইড ও তরিতরকারিসহ অন্য নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য খোলা বাজারের চেয়ে দ্বিগুণ মূল্য রাখা হয়। গত বছরে হিমাগারে রাখা পুরাতন আলু সিদ্ধ করে প্রতি কেজির দাম রাখা হয় ২৫ টাকা, যার দাম খোলা বাজারে ২ টাকা কেজি। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার স্ত্রী হত্যা মামলায় আটক হাজতি নাইম এই প্রতিবেদক জানান সরকারের দেওয়া খাদ্য তালিকার অর্ধেক কারা বন্দিদের দেওয়া হয়, ওই খাবার খেয়ে পেট ভরে না। ৪ শতাধিক হাজতি ও কয়েদির ৮টি ওয়ার্ডে গাদাগাদি করে রাতে ঘুমানোর ব্যবস্থা করা হয়। এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জের হাজতি স্বপন বলেন, দোষীদের সঙ্গে নির্দোষ হাজতিরাও রাতে ঘুমাতে না পেরে চোখের পানি ঝরায়। কারাঅভ্যন্তরে মাদক বেচাকেনার ব্যাপারে জানতে চাইলে ধলেশ্বরী ওয়ার্ডের এক রাইটার বলেন, এর সঙ্গে কতিপয় কারারক্ষী জড়িত। মাদক মামলায় আটক বন্দিরা বাইরের চেয়ে কারাকক্ষে বেশি মাদক সেবনের সুযোগ পাচ্ছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, এমনটি হলে তাদের ধরে এনে লাভ কী। অনিয়মের কথা অস্বীকার করে জেলার মো. আব্দুল্লাহ ইবনে তোফাজ্জল হোসেন খান বলেন, সরকারি বিধি জেল কর্তৃপক্ষ সঠিকভাবে পালন করছে। কারাঅভ্যন্তরে মাদক নিয়ন্ত্রণে প্রতি ওয়ার্ডে নিয়মিত চেক করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

ডেসটিনি

Leave a Reply