আ.লীগ ও বিএনপির নেতাসহ ৫৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা

মুন্সিগঞ্জের চার খাল দখল
মুন্সিগঞ্জের মিরকাদিম পৌরসভায় নয়নের খাল, গোপপাড়া খাল, রিকাবীবাজার খাল ও ফেচুন্নীর খাল দখল করে পরিবেশের ক্ষতি করায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাসহ ৫৭ জনের বিরুদ্ধে মুন্সিগঞ্জ থানায় মামলা হয়েছে।

গত শনিবার মুন্সিগঞ্জের পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সোনিয়া সুলতানা বাদী হয়ে এ মামলা করেন। পরিবেশ অধিদপ্তরের ঢাকা অঞ্চলের পরিচালক মামলাটির তদন্ত পরিচালনার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে পরিবেশ সংরক্ষণ আইন, ১৯৯৫ (সংশোধনীসহ)-এর ৬ (ঙ) ধারায় অবৈধভাবে খাল দখল করে পরিবেশদূষণ ও ভারসাম্য নষ্ট করার অভিযোগ আনা হয়েছে। এ মামলায় মিরকাদিম পৌর বিএনপির সভাপতি হাজি জসিম উদ্দিন আহম্মদ, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক কামালউদ্দিন, মিরকাদিম পৌর আওয়ামী লীগের শিল্পবিষয়ক সম্পাদক হাজি আবদুস সালাম, পূর্ব পারা পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান মুন্সী, নূরপুর পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি মাহামুদ মুন্সী ও সাধারণ সম্পাদক আলীম হকের নাম রয়েছে।

পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, পরিবেশ অধিদপ্তর যে ধারায় মামলা করেছে, এতে দোষী সাব্যস্ত হলে অনধিক দুই লাখ টাকা জরিমানা ও দুই বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।
সরেজমিন: গতকাল রোববার সরেজমিনে দেখা যায়, গোপপাড়া খালের মুখে ১০-১৫ জন কোদাল দিয়ে খনন করছে। খনন চলছে ধীরগতিতে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি রিকাবীবাজার খালের পশ্চিম প্রান্তে এর খননকাজ শুরু হয়েছিল। গতকাল সেখানে গিয়ে দেখা যায়, সামান্য একটু খনন করে রেখে দেওয়া হয়েছে। একই দৃশ্য দেখা যায় নয়নের খালে। এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন, লোক দেখানো খাল খনন চলছে।

রিকাবীবাজার পশ্চিমপাড়ার বাসিন্দা ও সরকারি হরগঙ্গা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক মোজাম্মেল হক বলেন, মিরকাদিমে যেভাবে খাল দখল হয়েছে, আর প্রশাসন যেভাবে উচ্ছেদ কার্যক্রম চালাচ্ছে, তাতে খাল রক্ষা পাবে না। খালের অন্তত ১০ ফুট তীর থাকতে হবে। সেই তীর দিয়ে মানুষ হাঁটাচলা করতে পারবে। তীর না থাকলে আবারও খাল আস্তে আস্তে দখল হয়ে যাবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ জানুয়ারি হাইকোর্ট খনন করে খালকে মূল অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন। জেলা প্রশাসক মিরকাদিম পৌর মেয়র মো. শহীদুল ইসলামকে খাল খননের জন্য বলেন।

লোক দেখানো খাল খনন প্রসঙ্গে মেয়র মো. শহীদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘খাল খনন তো আমার করার কথা নয়। আদালত খাল খননের জন্য জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন। আমি জেলা প্রশাসকের অনুরোধে নিজেদের অর্থায়নে খাল খনন করে যাচ্ছি। এই অল্প শ্রমিক দিয়ে, অর্থ বরাদ্দ ছাড়া খাল খনন করা সম্ভব নয়। এ জন্য আলাদা প্রকল্প গ্রহণ করে অর্থ বরাদ্দ করতে হবে।’

দখলবাজদের বিরুদ্ধে পরিবেশ অধিদপ্তরে মামলা প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, মামলায় অনেকেরই নাম বাদ পড়ে গেছে। এ তালিকা সঠিকভাবে করা হয়নি।

মুন্সিগঞ্জ জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সোনিয়া সুলতানা বলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব), সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি)—এই তিন সদস্যের কমিটি তদন্ত করে যে তালিকা তৈরি করেছে, তার ভিত্তিতেই তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

প্রথম আলো

Leave a Reply