শ্রীনগরে বিক্রমপুর জাদুঘর প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে কুচক্রি মহলের অপতৎপরতা নিয়ে তোলপাড়

নেপথ্যের নায়করা শনাক্ত
মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল এলাকায় জমিদার যদুনাথের পরিত্যক্ত বসত ভিটায় “বিক্রমপুর জাদুঘর” প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে একটি কুচক্রি মহলের অপতৎপরতা চালানো নিয়ে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। মুন্সীগঞ্জে সৃজনশীল কোন কাজের শুরুতেই একটি কু-চক্রী মহল দীর্ঘ দিন ধরে অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তারা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে।এদের মধ্যে অতি উৎসাহী কিছু স্থানীয় সাংবাদিকও রয়েছে। নিউজ ভিক্তিক কন্ট্রাক্ট করে এরা মাইক্রোবাসে চড়ে চলে যায় ঘটনাস্থলে। এরপর সাজানো নিউজ বানিয়ে তা পাঠিয়ে দেয় সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক তার পক্রিকা কিংবা টিভি চ্যানেলে। এছাড়াও ওই চক্রটি অতিরঞ্জিত করে তথ্য পরিবেশন করে পাঠকদের মধ্যে বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে। গত ২৪ ফেব্র“য়ারি বিকেলে শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুলে তৎকালীন জমিদার যদুনাথ কুন্ডের বাড়িতে বিক্রমপুর মিউজিয়াম নির্মাণ বাতিলের দাবিতে একটি সাজানো মানববন্ধন করা হয়। জনৈক এক ভূমি দস্যু পক্রিকা ও টিভি চ্যানেলে সংবাদ পরিবেশনের জন্য শহর থেকে কয়েকজন স্থানীয় সাংবাদিককে ভাড়া করে মাইক্রোবাসে দিয়ে যদুনাথ কুন্ডের বাড়ি নিয়ে যায় বলে স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ। পরে কয়েকজন লোকের হাতে ব্যানার-ফেষ্টুন দিয়ে দাঁড় করিয়ে সাজানো নাটক সাজিয়ে নিউজ তৈরী করে তা পক্রিকা ও টিভি চ্যানেলে পরিবেশন করে। টিভি চ্যানেল ও পরদিন দৈনিক জনকণ্ঠ ও প্রথম আলো পক্রিকা ছাপা হলে মুন্সীগঞ্জের সুশীল সমাজের লোকদের মধ্যে তীব্র বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। চুক্তিবদ্ধ হওয়া সাংবাদিকের দলনেতা মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বলের ভাই, স্ত্রী- শালিকাও সাংবাদিক। এরা প্রক্্ির সাংবাদিক হিসাবে এলাকায় পরিচিত।

গত ২ মার্চ দুপুরে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের ফিরিঙ্গিবাজার এলাকার শশ্নানঘাটস্থ নিউ মিলন ট্রেডার্স থেকে সরকারি গুদামের ১হাজার ১৪ বস্তা চাল আটক করে কোস্টগার্ড সদস্যরা। এ দিন সময় টিভিতে ৪ হাজার বস্তা চাল আটকের সংবাদ প্রচার করা হলে পাঠকদের মধ্যে বিভ্রান্ত দেখা দেয়। মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বল তার শালিকা ফারজানা মির্জার নামে সংবাদটি পরিবেশন করে থাকে। তার শালিকা নামেই একজন সাংবাদিক। নিউজের সঙ্গে তার কোন সম্পর্ক নেই। মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বলের প্রধান মন্ত্রীর এক প্রেস সচিবের স্থেনভাজন বলে এলাকায় পরিচয় দিয়ে প্রশাসনের কাছ থেকে ফায়দা নিচ্ছে। তবে তার দ্বারা বিভাজন আওয়ামীলীগের অনেকেই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে স্থানীয় দলীয় নেতাদের অভিমত। স্থানীয় সাংবাদিকরা জানান, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর অগণতান্ত্রিকভাবে প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের নিয়ম বর্হিভূত বাড়িতে বসে উজ্জ্বল-তানভীর ও রাসেল গং মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাব দখল করে রাখে। পরবর্তীতে গত বছরের ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে তলবী সভা আহ্বান করে যায়যায়দিনের শহীদ-ই-হাসান তুহিনকে সভাপতি ও আমাদের সময়ের কাজী দীপুকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি গঠন করে। এর পর থেকে উজ্জ্বল-তানভীর ও রাসেল গং পেসক্লাবের দখল নিতে মরিয়া হয়ে উঠে। গত ১৭ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১০ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাব থেকে বিতাড়িত মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বল ও তার সহযোগিরা এনডিসি খালেদ মেহেদী হাসান ও ডিবি-থানা পুলিশ নিয়ে পুনরায় প্রেসক্লাবের দখল নিতে আসে। খবর পেয়ে স্থানীয় যুবলীগ ও ছ্ত্রালীগের নেতাকর্মী, সাংবাদিকরা প্রেসক্লাবে ছুটে আসে। অপমান-অপদস্থ হয়ে তোপের মুখে মুন্সীগঞ্জের এনডিসিসহ উজ্জ্বল-তানভীর ও রাসেল গং প্রেসক্লাব ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয় । এর পর থেকে প্রেসক্লাবের বাইরে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন স্থানে উজ্জ্বল প্রেসক্লাবের সভাপতি ও তানভীর সাধারণ সম্পাদক হিসাবে পরিচয় দিয়ে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছে বলে মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের বর্তমান সভাপতি শহীদ-ই হাসান তুহিন ও সাধারণ সম্পাদক কাজী দীপু জানিয়েছেন।

এদিকে, গত ২৭ ফেব্র“য়ারি বেলা ১২ টার দিকে শহরের মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে অগ্রসর বিক্রমপুর নামে একটি সংগঠন। সুবিধাভোগী-কুচক্রিমহলের চক্রান্তে উদ্দেশ্যে প্রনোদিত হয়ে দৈনিক জনকণ্ঠ, প্রথম আলো, আমার দেশসহ কয়েকটি মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে বিক্রমপুর জাদুঘর নিয়ে বানোয়াট ও মিথ্যাচার তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়। এ সময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. সুফি মুস্তাফিজুর রহমান, জাদুঘর প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে তৎপর কুচক্রিমহলের অপ-কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সকলকে সজাগ থাকার আহবান জানান। তিনি যদুনাথ জমিদারের বাড়ি গ্রাসে উন্মুখ স্বার্থান্বেষী মহলের অপতৎপরতা রুখে দাঁড়ানোর আহবান জানান।

বসবাসের অনুপযোগী ঘোষণার পর একটি স্বার্থান্বেষী মহল যদুনাথের জমিদার বাড়িটি গ্রাস করতে উন্মুখ হয়ে উঠেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা জানিয়েছেন। অগ্রসর বিক্রমপুর শ্রীনগর কেন্দ্রের সভাপতি ডা. আব্দুল মালেক ভূঁইয়া লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. আবু সাঈদ এস আহমেদ, প্রফেসর মুহাম্মদ শাহজাহান মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা মো. মিজানুর রহমান, রামপাল কলেজের অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হাসান, অগ্রসর বিক্রমপুরের সদর কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক আবু হানিফসহ মুন্সীগঞ্জের সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।

লিখিত বক্তব্যে ডা. আব্দুল মালেক ভূঁইয়া বলেন, ওই ৩-৪টি পত্রিকায় উদ্দেশ্য মূলকভাবে মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি, কলামিষ্ট ও আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক নূহ-উল-আলম লেনিনকে হেয়-প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা করা হয়েছে। তিনি বলেন, ১৯৯০ সালে জমিদার বাড়িটি বসবাসের অনুপযোগী ঘোষণার পর থেকেই স্বার্থান্বেষীমহল বিভিন্ন প্রতœসম্পদ, মূল্যবান জিনিসপত্র ধ্বংস করার অপচেষ্টা চালায় ও জমিদার বাড়িটি গ্রাস করার প্রচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। এর সঙ্গে ওই সাংবাদিকদেরও যোগসাজশ রয়েছে। ফলে বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের নামে লিজ গ্রহণের পরপরই ওই চক্রটি আরো মরিয়া হয়ে ওঠে। ওই চক্রের মূলহোতা সালাম আজাদ, ওয়াহিদুজ্জামান সবুজ, মোয়াজ্জেম হোসেন মিঠু, ইসমাঈল, আব্দুল আজিজ ও তাদের সহযোগীরা লিজকৃত জমির উত্তর পশ্চিম অংশের কিছু জমি দখল করে ঘর-বাড়ি উঠানোর চেষ্টা করলে শ্রীনগর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা থানা পুলিশের সহযোগীতায় তাদের দখল প্রচেষ্টা নসাৎ কওে দেয়। ঘটনার পর গত ২২ ফেব্র“য়ারি চক্রটি জমিদার বাড়ির বিভিন্ন স্থাপনা ভাংচুর করে বাড়ির কেয়ার টেকার মো. আকবর আলীকে মারধর করে প্রাণনাশের চেষ্টা চালায় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত তিনতলা বিশিষ্ট জাদুঘর নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়ে ছিল। আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের শ্রীনগর কেন্দ্রের সভাপতি ডা. আব্দুল মালেক ভূঁইয়া জানান, বিক্রমপুরের অতীত ইতিহাস ও ঐতিহ্য সমুন্নত রাখতে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। জন্মলগ্নের অঙ্গীকার অনুযায়ীই সংগঠনটি অরাজনৈতিক ও নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিচালিত হয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় ২০০৯ সালে বিক্রমপুর অঞ্চলের ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণের অংশ হিসেবে, শ্রীনগরের ভাগ্যকুলের জমিদার যদুনাথ রায়ের বাড়িটি লিজ নেয়া হয়েছে। গত ২০১০ সালের ৩০ মে, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্ঠা এইচ টি ইমাম, ইতিহাসবিদ মুনতাসির মামুন, প্রতœতত্ত্ববিদ অধ্যাপক ড. সুফি মুস্তাফিজুর রহমান, মু›সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষসহ দেশবরেণ্য ব্যাক্তিবর্গের উপস্থিতিতে জমিদার বাড়িতে জাদুঘর ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। উল্লেখ্য, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ২০১১ সাল থেকে বিক্রমপুর অঞ্চলের প্রতœতাত্ত্বিক খনন ও অনুসন্ধান শুরু হয়েছে। গত ৭ জানুয়ারি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান দ্বিতীয় পর্যায়ের খনন কাজ উদ্বোধন করেন। এ ব্যাপারে আজ মঙ্গলবার অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি, কলামিষ্ট ও আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক নূহ-উল-আলম লেনিন বলেন, একটি মহল উদ্দেশ্য মূলকভাবে “বিক্রমপুর জাদুঘর” প্রতিষ্ঠায় নস্যাৎ করার চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছে। এটি আমার ব্যক্তিগত সম্পদ নয়। বিক্রমপুরের ইতিহাস ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্ঠা করছি। তিনি আরো বলেন, সালাম আজাদ সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টি করার চেষ্ঠা করছেন ।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply