এক বছরেও জাতীয় পরিচয় পত্র বিতরণের ভাতার টাকা পাননি

মুন্সিগঞ্জের ৪ শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষয়ত্রী
মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জ সদরে হালনাগাদ ভোটারদের মধ্যে ছবিযুক্ত জাতীয় পরিচয় পত্র বিতরণের ১ বছর কেটে গেলেও ৪ শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষয়ত্রী আজো অব্দি ভাতার টাকা পাননি। প্রতিটি পরিচয় বিতরণের বিপরীতে শিক-শিয়ত্রীদের ১০ টাকা করে ভাতা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২০১১ সালে এক একজন শিক-শিয়ত্রী অন্তত ২’শ কার্ড বিতরণ করেন। এতে বিতরণকৃত জাতীয় পরিচয় পত্রের প্রত্যেক কার্ডের জন্য ১০ টাকা হারে এক একজন শিক-শিয়ত্রীর এখনো ভাতার পাওনা রয়েছে কমপে ২ হাজার টাকা করে। জেলা সদরের নির্বাচন অফিস এখনো ওই ভাতার টাকা না দেয়ায় ৪ শতাধিক শিক-শিয়ত্রীর মাঝে ােভ বিরাজ করছে। শিক-শিয়ত্রীদের দাবি- নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তারা টাকা বরাদ্দ এখনো আসেনি বলে অজুহাত দেখাচ্ছে। টাকা আসলেই তাদের ভাতার পাওনা টাকা দেয়া হবে বলে জানাচ্ছেন।

এক বছরেও শিক-শিয়ত্রীদের হাতে জাতীয় পরিচয় পত্র বিতরণের ভাতার টাকা না পৌঁছলেও মঙ্গলবার দিনব্যাপী হালনাগাদ ভোটার তালিকা তৈরী ও তথ্য সংগ্রহের উপর এক প্রশিণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শহরের পুরাতন কাচারী এলাকার মুন্সীগঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গনে এ কর্মশালা শেষে দেড়-শতাধিক শিক-শিয়ত্রীদের কোন ভাতার টাকা দেয়া হয়নি। কর্মশালার জন্য বরাদ্দকৃত ভাতার টাকা নির্বাচন অফিসে পৌঁছায়নি বিধায় টাকা দেয়া যাচ্ছে না বলে প্রশিণার্থীদের সান্তনা দিয়েছেন সদর উপজেলার নির্বাচন অফিসার শরীফা বেগম। এ ঘটনায় প্রশিণার্থী জাকির হোসেন বলেন- জাতীয় পরিচয় পত্র বিতরণে ভাতার টাকা কবে নাগাদ পাওয়া যেতে পারে-সে প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই নির্বাচন অফিসার জানান বরাদ্দ আসলেই দিবো। আবার মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত প্রশিণ কর্মশালার ভাতার টাকা নিয়েও একই কথা বলছেন নির্বাচন অফিসার। এতে জেলা সদরের ৪ শতাধিক শিক-শিয়ত্রীদের নির্বাচন অফিসারের আশা জাগানিয়া বানী শুনে চলেছেন। আর তাতে হতাশ শিক-শিয়ত্রীরা।এ প্রসঙ্গে জেলা নির্বাচন অফিসার রফিকুল ইসলাম বাংলা ২৪ বিডি নিউজকে বলেন- জাতীয় পরিচয় পত্র বিতরণ ও মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত প্রশিণের ভাতার টাকা বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। বরাদ্দ পেলে ভাতার টাকা পরিশোধ করা হবে বলে তিনি জানান।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

One Response

Write a Comment»
  1. ‌‌এক বছরেও জাতীয় পরিচয় পত্র …..পায় নি শীর্ষক রিপোটটির জন্য ধন্যবাদ।নির্বাচন কমিষনের একজন কর্মকর্তা হিসাবে এ বিষয়ে না লিখে পারলাম না। টাকা পাওয়া যাবে কিনা এ বিষয়ে অনেকের মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।রিপোর্টটিতে বলা হয়েছে বরাদ্দ আসেনি বলে জেলা নির্বাচন অফিস অজুহাত দিচ্ছে। আসলে ওটা কোন অজুহাত নয়, এটাই সত্যি। এছাড়া জেলা নির্বাচন অফিসার হিসেবে রফিকুল ইসলামের নাম দেয়া হয়েছে যা সঠিক নয়। বর্তমানে জেলা নির্বাচন অফিসার ফয়সাল কাদের।

Leave a Reply