মুন্সীগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী আক্তার ২ দিনের রিমান্ডে

ঢাকায় শিরিন হত্যাকান্ড
মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: ঢাকার মীর হাজারীবাগের গৃহবধূ শিরিন আক্তার হত্যাকান্ডে মঙ্গলবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী আক্তার হোসেনকে শ্যামপুর থানায় ২ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা কারাগারে থাকা পুলিশের তালিকাভুক্ত এ সন্ত্রাসীকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরন করা হয়। পরে কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ২ দিনের পুলিশি রিমান্ডে তাকে ঢাকার শ্যামপুর থানা হেফাজতে নেয়া হয় বলে মুন্সীগঞ্জ কারা সূত্র মতে জানা গেছে।

কারা কর্তৃপক্ষ জানায়, ২০১১ সালের ৮ অক্টোবর রাত ৯ টায় ঢাকার শ্যামপুর থানাধীন মীর হাজারীবাগ পাইপ রাস্তা এলাকার রেহানা মঞ্জিলের প্রধান ফটকের সামনে থেকে শ্যামপুর থানা পুলিশ অঞ্জাত পরিচয়ের এক মহিলার লাশ উদ্ধার করে। পরদিন লাশের ছবি দেখে নিহতের স্বামী মো: মন্তাজ উদ্দিন তার স্ত্রী শিরিন আক্তারের লাশ শনাক্ত করেন। এ ঘটনায় শ্যামপুর থানায় মুন্সীগঞ্জের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী আক্তার হোসেনকে সন্দেহভাজন আসামী করে নিহতের স্বামী থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকে আসামী আক্তার আত্মগোপনে চলে যায়। শ্যামপুর থানায় দায়েরকৃত শিরিন আক্তার হত্যা মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের সন্ত্রাসী আক্তার হোসেন নিহতের স্বামী মোন্তাজউদ্দিনের পূর্ব পরিচিত। সেই সুবাদে তার স্ত্রী শিরিন আক্তারের সঙ্গে বেশ কয়েকদিন নেশা করে বেড়ায়। তাছাড়া ঘটনার দিন বিকেলে এই আক্তার হোসেনই শিরিন আক্তারকে বাইরে নিয়ে যায় বলে মামলার এজাহারে বাদী লিখিত দাবী করেছেন।

এদিকে, গেলো বছরের ৮ ডিসেম্বর ও ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ শহর লাগোয়া ধলেশ্বরী নদীতে পৃথক ৫টি লাশ উদ্ধার করার ঘটনায় সম্প্রতি সন্দেহভাজন হিসেবে মুন্সীগঞ্জ শহরের খাসকান্দি-রমজানবেগ এলাকার বাসিন্দা তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী আক্তারকে সদর থানা পুলিশ গ্রেফতার করে। পরে তাকে রিমান্ডে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে পাঠানো হলে আদালত তাকে জেলা কারাগারে প্রেরন করে। মুন্সীগঞ্জ জেল হাজতে থাকার খবর পেয়ে শিরিন আক্তার হত্যা মামলার বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে সম্প্রতি ঢাকা মহানগর মুখ্য হাকিমের কাছে শ্যামপুর থানা পুলিশ রিমান্ডের আবেদন জানান। এতে আদালত আক্তারকে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply