সুফি তাহসান

তাহসান এখন রাজধানীর ধানমণ্ডিস্থ ইউল্যাব ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করছেন। কার্যদিবস ছাড়া প্রতিদিনই তাকে সূর্য ডোবার আগ পর্যন্ত পড়াশোনা করানোতেই ব্যস্ত থাকতে হয়। দেখা হওয়ার পরই সেকথা জানিয়ে দিলেন আগেভাগে। তাকে দেখলেই গায়ক নয়, নায়কই মনে হবে আগে! সেজন্য হয়তো অভিনয়ের প্রস্তাব পান হরহামেশা। নাটকেও, চলচ্চিত্রেও। তবে গানকেই বেশি ভালোবাসেন তাহসান। তাই অভিনয়ের বেলায় স্বাভাবিকভাবেই বাছবিচারের আশ্রয় নিতে হয় তাকে। ইফতেখার আহমেদ ফাহমি পরিচালিত ‘টু বি কন্টিনিউড’ ছবির মধ্য দিয়ে তাহসান নাম লিখিয়েছেন বড় পর্দায়। যদিও এটি মুক্তি অপেক্ষায় আছে। ‘এখন আমার ব্যান্ডের অ্যালবাম নিয়ে ব্যস্ত আছি। বিভিন্ন নাটকে অভিনয়ের প্রস্তাব আসছে। তবে ভালো চরিত্র হলেই কেবল অভিনয়ের কথা ভাবি। তবে গান নিয়েই থাকতে চাই।’

সম্প্রতি তাহসান গড়েছেন নতুন ব্যান্ড ‘তাহসান অ্যান্ড দ্য সুফিজ’। ভিন্ন কিছু করার তাগিদ থেকে সুফি গানগুলো একটু রক মেজাজে তৈরির ইচ্ছা ছিল তার। তিনি বলেন, ‘উচ্চতর পড়াশোনার জন্য ব্ল্যাক ব্যান্ড ছেড়ে দেশের বাইরে গিয়েছিলাম। কিন্তু দেশে ফিরে আর ব্ল্যাকের সঙ্গে যোগ দেইনি। ব্ল্যাক থেকে বেরিয়ে আসার পর থেকেই সুফি গান নিয়ে ভাবছিলাম। গত বছর পরিকল্পনা করলাম এবার একটি ব্যান্ড গঠন করবো।’

তাহসান যে রকগানের গায়ক হিসেবে পরিচিতি পাবেন তা অনুমান করেনি কেউ। কারণ ছায়ানটে রবীন্দ্রসঙ্গীত চর্চার মধ্য দিয়েই গানে তার হাতেখড়ি। চর্চা করেছেন শাস্ত্রীয়সঙ্গীতও। তবে তখন সুফি ঘরানার গানগুলো সবসময় তাকে টানত। এর বহিঃপ্রকাশ এতদিনে দিনের আলোয় এলো। সুফি ধাঁচের গান পরিবেশনের জন্য প্রয়োজনমাফিক যন্ত্রশিল্পী। জিয়া, রুবেল ও শিমুলের সঙ্গে তাহসানের বেশ আগে থেকেই পরিচয়। তাদের বাজানোর ধরন ও মিউজিক করা তার বেশ পছন্দের। তাই জিয়া [গিটার], রুবেল [ড্রামস], শিমুলকে [বেজ গিটার] নিয়ে তাহসান শুরু করে দিলেন সুফি গানের চর্চা। এভাবেই শুরু ‘তাহসান অ্যান্ড দ্য সুফিজ’র পথচলা। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে শ্রোতাদের সামনে তাহসান তার ব্যান্ড নিয়ে আত্মপ্রকাশ করেন। রাজধানীর এক পাঁচতারা হোটেলে সঙ্গীত পরিবেশন করেন তারা। কনসার্টের শুরুতে তাহসান গেয়ে শোনান ‘৯৯’ শিরোনামের একটি গান। এ ছাড়া পরিবেশন করেন নিজের কথা ও সুরে সুফি ঘরানার গান ‘কোন ঘরে বসত করি, কি যায় আসে তায়/কোন পাতে আহার করি, কি নষ্ট হয় তায়’। এভাবেই দুই ঘণ্টা নানা স্বাদের গান উপহার দেয় তাহসান অ্যান্ড দ্য সুফিজ। এ বছরই বের হবে তাদের নতুন অ্যালবাম।

ছোটবেলা থেকেই গানপাগল ছিলেন তাহসান। আর তার মা-বাবাও ছেলের গানের নেশা দেখে ভর্তি করিয়ে দেন শিশু একাডেমীতে। এরপর ছায়ানটে রবীন্দ্রসঙ্গীত শেখেন তিনি। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে তিনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গেয়েছেন। তবে সেই সময় কোনো দল ছিল না তাহসানের। ২০০১ সালে ব্ল্যাক ব্যান্ডের আমন্ত্রণে কিবোর্ডিস্ট হিসেবে ব্যান্ডে যোগ দেন। কিবোর্ড বাজানোর পাশাপাশি তিনি ব্যান্ডে গাইতেনও। মূলত ব্যান্ডটি রক ঘরানার হলেও তাহসানের কণ্ঠে গাওয়া গানগুলো শ্রোতাদের ভিন্ন স্বাদ দিয়েছে। ২০০৫ সালে তিনি ব্ল্যাক ব্যান্ড থেকে বেরিয়ে আসেন। ‘মূলত ব্ল্যাক ব্যান্ড রক ঘরানার গান করে। তবে আমি চেয়েছি একটু ধীরগতির মিউজিকের গান করতে। এ ছাড়া আগেই বলেছি পড়াশোনা নিয়ে তখন ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলাম। এজন্য ব্যান্ডে নিয়মিত সময় দিতে পারিনি। তাই ব্যান্ড থেকে নিজেই সরে যাই।’

শিমুল আহমেদ – সমকাল

Leave a Reply