শ্রীনগরে অর্ধ শতাধিক গ্রাম ১৫ ঘন্টা অন্ধকারে

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে সন্ধ্যারাত পর্যন্ত ১৫ ঘন্টায় বিদ্যুতহীন অন্ধকারে থেকেছে তিনটি ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক গ্রাম। দীর্ঘ ১৫ ঘন্টার বিদ্যুতহীন অন্ধকারের মধ্যে তিন দফায় মাত্র ২০ থেকে ২৫ মিনিটের জন্য বিদ্যুতের আলো চমকে গিয়েছিল। ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে টানা বিদ্যুত সরবরাহ বন্ধ থাকায় জেলার শ্রীনগর উপজেলার রাঢ়ীখাল, ভাগ্যকুল ও কামারগাঁও ইউনিয়নের ওই গ্রামগুলোর বাসিন্দার মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। এতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাঢ়ীখালের নারী-পুরুষ কাল শুক্রবার বিদ্যুত সরবরাহের দাবীতে বিক্ষোভ কর্মসূচীর প্রস্তুতি নিচ্ছে। শ্রীনগর উপজেলার রাঢ়ীখাল ইউনিয়নের দামলা, কয়কীর্তন, বালাশুর, নতুন বাজার, যশলদিয়া, ভাগ্যকুল ইউনিয়নের মান্দ্রা, কবুতর খোলা, চারিপাড়া এবং কামারাগাঁও ইউনিয়নের উত্তর কামারগাঁও, দক্ষিন কামারগাঁও, বানিয়াপাড়াসহ অর্ধশতাধিক গ্রামের অধিবাসীরা বৃহস্পতিবার দিনভর বিদ্যুতের অভাবে হাঁসফাঁস করেছেন।

গ্রামগুলোর বাসিন্দারা জানান, বৃহস্পতিবার ভোর ৪ টা থেকে রাত ৭ টা পর্যন্ত টানা ১৫ ঘন্টা শ্রীনগর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের অর্ধ-শতাধিক গ্রামে বিদ্যুতের চরম বিপর্যয়ের চিত্র পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ভোর ৪ টায় বিদ্যুত চলে যাওয়ার পর মধ্যাহ্ন সময়ে বেলা সাড়ে ১২ টায় বিদ্যুতের এক ঝলক দেখা পান। মিনিট পাচেক পর আবার বিদ্যুত চলে গেলে বিকেল আড়াইটার দিকে সামান্য সময়ের জন্য বিদ্যুত আসে। তবে, বিদ্যুতের এ আলো বেশীক্ষন স্থায়ী ছিল না। মিনিট সাতেক পর বিদ্যুত চলে আবারো বিদ্যুতের অন্ধকারে ডুবে গ্রামগুলো। ৬ টার কিছু আগে বিদ্যুত এলেও ১০-১২ মিনিট থেকে ফের বিদ্যুত চলে গেলে এ রিপোর্ট লেখার সময় রাত পৌনে ৮ টায় বিদ্যুতের অভাবে গোটা গ্রামগুলো ছিল অন্ধকারাচ্ছন্ন। এদিকে, বিদ্যুতের চরম অব্যবস্থাপনায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠছেন গ্রামগুলোর হাজার হাজার নারী-পুরুষ। রাঢ়ীখাল গ্রামের বাসিন্দারা জানান, কাল শুক্রবার সকালে তারা বিদ্যুতের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল বরে করবেন। এ প্রসঙ্গে শ্রীনগর উপজেলা পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএমকে তার মোবাইল নাম্বারে কল করেও পাওয়া যায়নি। রাত পৌনে ৮ টার দিকে তার মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া গেছে। তবে, লাইনম্যান মো: রোকন মিয়া জানান, ওই সব ইউনিয়নের গ্রামগুলোর সড়কের পাশের গাছের ডালপালা কাটার জন্য বিদ্যুত সরবরাহ বিঘিœত হয়েছে। আগামী কয়েকদিন বিদ্যুতের এ সমস্যা বিরাজ করবে সেখানে। কিন্তু গ্রামগুলোর বাসিন্দারা অভিযোগ করেন- গাছ ও ডালপালা কর্তনের বিষয়টি গ্রামবাসীদের অবগত করা হয়নি।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply