পুলিশি হয়রানী বন্ধের দাবীতে বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবে জেলা বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠনের যৌথ উদ্যোগে আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জেলা বিএনপি সভাপতি সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাই বলেন “চলো চলো ঢাকায় চলো” কর্মসূচিকে সামনে রেখে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান, দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবি সম্বলিত ৩ শতাধিক ব্যানার-ফেষ্টুন টানানো হয়। সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা ওই ব্যানার-ফেষ্টুন খুলে নিয়ে যায় ও ছিড়ে ফেলে। শ্রীনগর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ন-আহ্বায়ক রিয়াজ, সিরাজদিখান উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ন-আহ্বায়ক মারুফ, লৌহজং উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ন-আহ্বায়ক আল-আমিনসহ টঙ্গীবাড়ি, গজারিয়া ও মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মীর বাসায় পুলিশি তল্লাশীর নামে হয়রানি, ভয়ভীতি ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অসদাচরণ আচরণ করা হয়। এ পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ জেলায় বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের অবিলম্বে মুক্তির দাবি করা হয়। আবদুল হাই আরো বলেন, যত বাধা-বিপক্তি আসুক-সরকারের সকল বাধা উপেক্ষা করে ১২ মার্চেরমহা সমাবেশ আমরা সফল করবোই। এ সময় সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,

স্বেচ্ছাসেবক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, জেলা বিএনপির যুগ্ন-সম্পাদক আতোয়ার হোসেন বাবুল, জেলা শ্রমিক দলের সদস্য সচিব আব্দুল আজিম স্বপন, জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট তোতা মিয়া জেলা, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল, সাধারণ সম্পাদক ইদ্রিস মিয়াজী মহন, সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম প্রমুখ ।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
===================

মুন্সীগঞ্জে আ’লীগের বিরুদ্ধে পোস্টার ছেঁড়ার অভিযোগ

বিএনপির নেতাকর্মীরা যেন ১২ মার্চ মহাসমাবেশে যোগদান করতে না পারে সে লক্ষে পুলিশের হয়রানি ও আ’লীগ নেতাকর্মীরা মুন্সীগঞ্জ জেলার সর্বত্র ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে।

এরই অংশ হিসেবে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে টাঙানো ৩’শ ব্যানার ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে।

এমনকি পুলিশ শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে জেলাব্যাপী আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে।

শনিবার বেলা ১১ টায় মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবে বিএনপি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ তুলে ধরেন জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাই।

এ সময় তিনি মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে ব্যানার ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলা ও নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ জানান।

সংবাদ সম্মেলনে সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাই বলেন, ‘কয়েকদিন ধরে আ’লীগ সরকার পুলিশ ও তাদের দলীয় সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে।

শনিবার পর্যন্ত জেলায় শতাধিক নেতাকর্মী পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে।
এছাড়া আরও শতাধিক নেতাকর্মীর বাড়িতে পুলিশী তল্লাশীর নামে বাড়িঘর ভাঙচুর ও তছনছ করা হয়েছে।

এ সময় তিনি আর জানান, সরকার দলীয় এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের নেতৃত্বে শ্রীনগর উপজেলায় আ’লীগের সন্ত্রাসীরা মহড়া দিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির যুগ্ন সম্পাদক মো. আতোয়ার হোসেন বাবুল বলেন, শত বাধা সত্বেও আগামী ১২ মার্চ ২০ হাজার নেতাকর্মী মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকায় মহাসমাবেশে যোগদান করবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সফু, বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট তোতা মিয়া, সেচ্ছাসেবক দলের নেতা আব্দুল আজিম স্বপন, আওলাদ হোসেন উজ্জল, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গির হোসেন প্রমুখ।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
==================

Leave a Reply