বাসে-লঞ্চে সব খানেই ঢাকামুখো বিএনপি নেতাকর্মীরা বাঁধার সম্মুখীন

মুন্সীগঞ্জে আগামী ৪৮ ঘন্টা বাস চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি
মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: বাসে-লঞ্চে, সড়ক বা নৌপথে- সব খানেই ঢাকামুখো বিএনপি নেতাকর্মীরা সরকার দলীয় নেতাকর্মী ও পুলিশের বাঁধার সম্মুখিন হচ্ছেন। সংঘবদ্ধ বা যাত্রীবেশে- যে কোন কৌশলেই ঢাকায় যেতে পারছেন না বিরোধী দলের লোকজন। ১২ মার্চের ঢাকার মহা সমাবেশকে সামনে রেখে “চলো চলো ঢাকায় চলো” কর্মসূচিতে মুন্সীগঞ্জ শহর-শহরতলী, ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে বিএনপি নেতাকর্মীদের পথে পথে বাঁধা দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার লৌহজং-গুলিস্থান, লৌহজং-যাত্রাবাড়ি সড়কে আগামী ৪৮ ঘন্টা বাস চলাচল বন্ধ রাখার উপর অঘোষিত নিষেধাজ্ঞা জারী করার খবর পাওয়া গেছে।ডেট লাইন ১২ মার্চকে ঘিরে আজ শনিবার রাত সাড়ে ৯ টায় মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন সড়কে বাস চলাচল থমকে দিতে সরকার সমর্থিত কেন্দ্রীয় পরিবহন সমিতির নেতারা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। সর্বশেষ খবরে জানা গেছে, আজ শনিবার রাতে মুন্সীগঞ্জের সড়কে বিভিন্ন পরিবহনের বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পরিবহন শ্রমিকরা জানান, রাত ৯ টার দিকে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে, সোয়া ৯ টার দিকে ঢাকা-টঙ্গীবাড়ি ও দিঘীরপাড়-ঢাকা সড়কে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পরিবহন নেতা বলেন, লীগ পন্থী কেন্দ্রীয় পরিবহন সমিতির শীর্ষ নেতাদের নির্দেশে মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা সড়কে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় জেলা সদর ও টঙ্গীবাড়ি উপজেলার সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পরিবহন শ্রমিকরা জানান, কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতারা রাত সাড়ে ৮ টার দিকে জেলার পরিবহন সমিতির শীর্ষ নেতাদের বাস বন্ধের নির্দেশ দেন। আর জেলার নেতারা দেন অভ্যন্তরীণ নেতাদের। এরপর স্থানীয় নেতারা নির্দেশ দিলে মুন্সীগঞ্জ শহরের লিচুতলাস্থ ষ্ট্যান্ড থেকে ঢাকা ট্রান্সপোর্ট লাইন, দিঘীরপাড় ট্রান্সপোর্টসহ সকল পরিবহনের বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এদিকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং, সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলার বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢাকায় যেতে দেবে না বলে পুলিশ আল্টিমেটাম দিয়েছে।

জেলার ওই দু’টি মহাসড়কে পুলিশের চেক পোষ্ট এবং ভ্রাম্যমান আদালত বসানো হয়েছে। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে জেলার লৌহজং উপজেলার মাওয়ায় এবং কেরানীগঞ্জের কাছে পৃথক দু’টি পয়েন্টে চেক পোষ্ট বসিয়ে নেতাকর্মীদের ঢাকায় যেতে বাঁধা দেয়া হচ্ছে। এছাড়া মহাসড়কে মোড়ে মোড়ে টহলে রয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। পুলিশের চেক পোষ্ট ও ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর তীক্ষ্ম নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। দক্ষিনবঙ্গের ২৩ জেলার নেতাকর্মীদের ঢাকায় যেতে বাঁধা দেয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে প্রত্যেক বাসে চালানো হচ্ছে তল্লাশী।

এ তল্লাশীকালে যাকেই বিএনপি কর্মী বা নেতা মনে হচ্ছে-তাদেরই বাস থেকে নামিয়ে দেয়া হচ্ছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি, ভবেরচর, বাউশিয়া পাখি মোড়সহ অন্তত ১০টি পয়েন্টে পুলিশের তল্লাশীর পাশাপাশি কাল রোববার সক্রিয় থাকবে আ’লীগের নেতাকর্মীরাও। গজারিয়া লঞ্চঘাট এলাকায় দক্ষিনবঙ্গ থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবোঝাই লঞ্চগুলোতে সন্দেহভাজন যাত্রীদের আটকে দেয়া হচ্ছে। মাওয়া সড়ক ও পরিবহন সমিতির সভাপতি আলী আকবর জানান, লৌহজং উপজেলার মাওয়া থেকে কেরানীগঞ্জ পর্যন্ত ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মোড়ে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে একদল পুলিশ টহলরত অবস্থায় রয়েছেন।

এর পাশাপাশি পুলিশের চেক পোষ্ট রয়েছে। লৌহজং উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও পরিবহন মালিক নেতা গোলাম গাউস সিদ্দিকী জানান, ঢাকায় না যাওয়ার জন্য তার মোবাইলে পুলিশ ও আ’লীগ নেতারা হুমকি দিচ্ছে। আবার মাওয়া-গুলিস্থান ও মাওয়া-যাত্রাবাড়ি সড়কে আজ রোববার থেকে সকল পরিবহনের বাস বন্ধ করে নেয়ার হুমকি দিয়েছে পুলিশ ও সরকার দলীয় কর্মীরা। এদিকে, লৌহজং উপজেলার মেদেনীমন্ডল ৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি লাল মিয়া মাদবর জানান, লৌহজং উপজেলার প্রত্যেক ঘরে ঘরে বিএনপি নেতাকর্মীদের খুঁজে বেড়াচ্ছে পুলিশ।

এ জন্য দিনের বেলায় হাটে-মাঠে-ঘাটে ঘুরে বেড়ানো ও রাতে নিজ বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয়ে থাকছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। লৌহজংয়ের প্রতিটি ঘর দলীয় নেতাকর্মী শূন্য হয়ে পড়েছে। আজ শনিবার সকাল থেকেই জেলা শহরের লিচুতলা বাসষ্ট্যান্ড ও দর্পণা হল সংলগ্ন পুরাতন বাস ষ্ট্যান্ড থেকে বিভিন্ন পরিবহনের বাস চলাচল কমতে শুরু করেছে। শহর লাগোয়া ধলেশ্বরী নদীর লঞ্চঘাট ও নৌপথের বিভিন্ন পয়েন্টে বিএনপি নেতাকর্মীদের আটকাতে মুক্তারপুর নৌ-ফাঁড়ি পুলিশের টিম নদীতে নেমেছে। মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খান বলেছেন- পুলিশ কোন বাঁধা দেয়নি। লৌহজং-যাত্রাবাড়ি ও লৌহজং-গুলিস্থান সড়কে রোববার সকাল থেকে ৪৮ ঘন্টা বাস চলাচল বন্ধের নির্দেশের কথা সঠিক নয়। তাছাড়া পুলিশ কাউকে বাঁধা দিবে না। দিচ্ছেও না। বিএনপি নেতাকর্মীদের নানাভাবেই বাঁধা দেয়ার কথাও ঠিক নয়।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply