মুন্সীগঞ্জে বাস-লঞ্চ চলাচল বন্ধ, চরম ভোগান্তি

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: লঞ্চ-বাস চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ায় ঢাকা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে মুন্সীগঞ্জ। চলছে অঘোষিত ধমঘট। আজ রোববার সকাল থেকে জেলার ৬ টি উপজেলার কোন বাস কাউন্টার থেকে বাস ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়নি। দক্ষিণাঞ্চলের ২৩ জেলার যোগাযোগের প্রধান রুট মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটেও আজ রোববার সকাল থেকে ফেরি, ওয়াটারবাস, লঞ্চ ও সিবোট চালচল বন্ধ হয়ে গেছে। মুন্সীগঞ্জ শহর-শহরতলী, ঢাকা-সিরাজদিখান, ঢাকা-লৌহজং, ঢাকা-টঙ্গীবাড়ি, ঢাকা-শ্রীনগর-মাওয়া ও ঢাকা-গজারিয়া-চট্টগ্রাম মহাসড়কে অঘোষিত বাস চলাচল বন্ধ থাকায় ঢাকায় চাকুরিরত যাত্রীসহ জনগণ পড়েছে দুর্ভোগে।

এদিকে আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে মুন্সীগঞ্জ-নারয়ণগঞ্জ রুটে ও কাটপট্টি থেকে ঢাকার সদরঘাট রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার দু’দিন আগ থেকে বাস ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় জনমনে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।জানা গেছে, ১২ মার্চের ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশকে সামনে রেখে “চলো চলো ঢাকায় চলো” কর্মসূচিকে ব্যাহত করতে মুন্সীগঞ্জ জেলার বিভিন্ন কাউন্টার থেকে বাস চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢাকা যেতে বাধাগ্রস্ত করতে সরকারের এ জনবিরোধী আয়োজন বলে অভিযোগ করেছে সচেতন মহল। পরিবহন শ্রমিকরা জানান, নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানের নির্দেশে শনিবার রাত থেকে মুন্সীগঞ্জের সড়ক ও নৌ পথে বিভিন্ন পরিবহনের বাস-লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

শনিবার রাত ৯ টার দিকে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে, ঢাকা-টঙ্গীবাড়ি ও দিঘীরপাড়-ঢাকা সড়কে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পরিবহন নেতা বলেন, লীগপন্থী কেন্দ্রীয় পরিবহন সমিতির শীর্ষ নেতাদের নির্দেশে মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা সড়কে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জেলা সদরসহ সকল উপজেলা থেকে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতারা শনিবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে জেলার পরিবহন সমিতির শীর্ষ নেতাদের বাস বন্ধের নির্দেশ দেন।

আর জেলার নেতারা দেন অভ্যন্তরীণ নেতাদের। এরপর স্থানীয় নেতারা নির্দেশ দিলে মুন্সীগঞ্জ শহরের লিচুতলা স্ট্যান্ড থেকে ঢাকা ট্রান্সপোর্ট লাইন, দিঘীরপাড় ট্রান্সপোর্টসহ সকল পরিবহনের বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এদিকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং, সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলার বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢাকায় যেতে দেবে না বলে পুলিশ আল্টিমেটাম দিয়েছে। জেলার ওই দু’টি মহাসড়কে পুলিশের চেক পোস্ট বসানো হয়েছে । ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে জেলার লৌহজং উপজেলার মাওয়ায় এবং কেরানীগঞ্জের কাছে পৃথক দু’টি পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে নেতাকর্মীদের ঢাকায় যেতে বাধা দেয়া হচ্ছে।

এছাড়া মহাসড়কে মোড়ে মোড়ে টহলে রয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। পুলিশের চেকপোস্ট ও ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর তীক্ষ্ম নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি, ভবেরচর, বাউশিয়া পাখি মোড়সহ অন্তত ১০টি পয়েন্টে পুলিশের তল্লাশী চলছে। মাওয়া সড়ক ও পরিবহন সমিতির সভাপতি আলী আকবর জানান, লৌহজং উপজেলার মাওয়া থেকে কেরানীগঞ্জ পর্যন্ত ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মোড়ে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে একদল পুলিশ টহলরত অবস্থায় রয়েছেন। এর পাশাপাশি পুলিশের চেক পোস্ট রয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিক বলেন, সরকারের বাধা বিপক্তি উপেক্ষা করে আমাদের অনেকেই ইতোমধ্যে ঢাকায় চলে এসেছেন । বাকিরাও নানা পথে আসতে শুরু করেছেন। যতো বাধা বিপক্তিই আসুক সরকার আমাদের দাবিয়ে রাখতে পারবে না। আওয়ামীলীগ হীনমন্যতার পরিচয় দিয়ে গণতন্ত্রের প্রতি আঘাত এনেছেন। আওয়ামীলীগ মুখেই গণতন্ত্রের কথা বলে। কাজেকর্মে তারা গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করে না। মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খান বলেছেন- স্বাভাবিকেরর চেয়ে কম যানবাহন চলছে। আমাদের তরফ থেকে কোন বাধা নেই। জনগণের নিরাপত্তার জন্য নিয়ম অনুসারে পুলিশ কাজ করছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply