ঢাকা-মাওয়া রুটে বাস চলাচল বন্ধ

বিএনপির ১২ মার্চের মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে ঢাকা-মাওয়া রুটে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। জানমালের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে কর্তৃপক্ষ নিজেরাই শনিবার রাত ৮টা থেকে এ সার্ভিস বন্ধ করে দিয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

তবে লোকাল বাসগুলো চলাচল করলেও রোববার থেকে সেগুলোও বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে বাস কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে বন্ধ থাকতে পারে মাওয়া ঘাটের সকল হোটেল ও রেস্টুরেন্ট।

শনিবার দুপুরের পর থেকে একে এক বন্ধ হতে থাকে ঢাকা-মাওয়া রুটে চলাচলরত বাসগুলো। কিছু লোকাল বাস চলাচল করলেও তা রাজধানী ঢাকায় প্রবেশ করছে না। কেরাণীগঞ্জের কাছে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে বাসগুলো মাওয়ায় চলে আসছে। মাওয়া-গুলিস্তান ও মাওয়া যাত্রাবাড়ি রুটের আনন্দ, গ্রেট বিক্রমপুর(ভিআইপি), প্রচেষ্টা, গুনগুন ও ইলিশসহ বড় বড় পরিবহনগুলো তাদের বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।

তবে এ মহাসড়কে দূরপাল্লার বাস চলাচল করছে। কিছু কিছু লোকাল বাস চলাচল করলেও রোববার থেকে চলবে না বলে জানিয়েছে মালিক কর্তৃপক্ষ।

বাস কমে যাওয়ায় মাওয়ার বাসস্ট্যান্ডগুলোতে বাসের জন্য যাত্রীদের অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। দীর্ঘ সময় বাস না পেয়ে যাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হন। বিকল্পভাবে অনেককেই স্কুটারে করে ঢাকায় যেতে দেখা গেছে।

মাওয়া ঘাট বাস মালিক কল্যাণ সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ইলিশ পরিবহনের মালিক গোলাম গাউস জানান, ঢাকায় বাস ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। কিছু লোকজন ঢাকায় চালকদের হুমকি দিয়ে বলেছেন, বাস নিয়ে ১২ তারিখের আগে ঢাকায় প্রবেশ করলে ভেঙ্গে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হবে। তাছাড়া পথে পথে পুলিশের চেকপোস্টেও বাসগুলোকে নানা অজুহাতে হয়রানি করা হচ্ছে। তাই নিজেদের জান-মাল রক্ষায় কর্তৃপক্ষ এ রুটে শনিবার দুপুরের পর থেকে বাস চলাচল সীমিতি করে এক প্রকার বন্ধ করে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম বাংলা নিউজকে জানিয়েছেন, প্রশাসন থেকে বাস চলাচলে কোনো প্রকার বাধা বা নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়নি।

মাওয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই খালিদ জানিয়েছেন, মাওয়ায় পুলিশের পক্ষ থেকে যান চলাচলে কোনো বাধার সৃষ্টি করা হচ্ছে না। বরং বাস চলকদের বাস চলাচলে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

এদিকে মুন্সিগঞ্জ শহর-শহরতলী, ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে বিএনপি নেতা-কর্মীদের পথে পথে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। তাদেও অভিযোগ, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে জেলার লৌহজং উপজেলার মাওয়ায় এবং কেরাণীগঞ্জের কাছে পৃথক দু’টি পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে নেতা-কর্মীদের ঢাকায় যেতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া মহাসড়কের মোড়ে মোড়ে টহলে রয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

পুলিশের এসব চেকপোস্ট ও ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ওপর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলার নেতা-কর্মীদেরও ঢাকায় প্রবেশে নজর রাখা হচ্ছে।

মাওয়া সড়ক ও পরিবহন সমিতির সভাপতি আলী আকবর জানান, লৌহজং উপজেলার মাওয়া থেকে কেরাণীগঞ্জ পর্যন্ত ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মোড়ে মোড়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একদল পুলিশ টহলরত অবস্থায় রয়েছেন। এর পাশাপাশি পুলিশের চেকপোস্ট রয়েছে।

মুন্সিগঞ্জ জেলার ৬টি উপজেলা থেকে ২৪ ঘণ্টায় শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মীকে আটক করার অভিযোগও করেছে জেলা বিএনপি। জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাই বলেন, ‘চলো চলো ঢাকা চলো’ মহাসমাবেশ কর্মসূচিকে সামনে রেখে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের ছবি সম্বলিত ৩ শতাধিক ব্যানার-ফেস্টুন সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা খুলে নিয়ে যায় ও ছিড়ে ফেলে।

মুন্সিগঞ্জ জেলা বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠনের শতাধিক নেতা-কর্মীর বাসায় পুলিশি তল্লাশির নামে হয়রানি, ভয়-ভীতি ও শতাধিক নেতা-কর্মীকে গ্রেফতারের অভিযোগ করেন তিনি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply