দ্রুতই ঘাতক কার্গোটিকে সনাক্ত করা যাবে: শামসুদ্দোহা

ঘাতক কার্গোটিকে সনাক্ত করা যায়নি। তবে খুব দ্রুতই কার্গোটিকে সনাক্ত করা যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বিআইডব্লিউটিএ এর চেয়ারম্যান ড. শামসুদ্দোহা খন্দকার। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এসময় তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, ডুবে যাওয়া লঞ্চে দু’শতাধিক যাত্রী ছিল। মঙ্গলবারে ৩০ থেকে ৩৫টি লাশ উদ্ধার করার পরও ৬০ জনের মতো নিখোঁজ রয়েছে। তবে লঞ্চের কেবিনগুলোর মধ্যে কিছু লাশ আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

তিনি দাবি করেন, এমভি মিতালি জাহাজে উঠে ৫০ জন যাত্রী বেঁচে গেছে। এছাড়াও আরও বেশ কিছু যাত্রী অন্যান্যভাবে বেঁচে গেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

এদিকে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার উত্তর চরমসুরা এলাকায় মেঘনা নদীর পাড়ে লঞ্চটিকে ভেড়াতে সক্ষম হয়েছে উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা এবং রুস্তম। এর মধ্য ২৬টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখন কয়েকজন ডুবুরি জাহাজটিকে উল্টাবস্থা থেকে সোজা করার জন্য কয়েক ঘণ্টা ধরে চেষ্টা করছে।

দুপুর দেড়টায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জাহাজটিকে কাত করতে সক্ষম হয়েছে ডুবুরিরা। জাহাজ থেকে যাত্রীদের ব্যাগ ও প্রায় ৩০০ মরিচের বস্তার মধ্যে ৩০ থেকে ৩৫টি বস্তা ভেঁসে উঠেছে।

এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে চেয়ারম্যান ড. শামসুদ্দোহা বাংলানিউজকে জানান, জেলা প্রশাসন মৃতদের তালিকা করে ও সনাক্ত করার পর দাফনের জন্য টাকা দিয়ে লাশ হস্তান্তর করছেন। সুতরাং নিহতদের স্বজনরা যে টাকা পাচ্ছে না, সে ধরণের অভিযোগ সঠিক নয়।

উদ্ধার অভিযান বিলম্ব প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এবারই প্রথম খুব দ্রুত উদ্ধার কাজ চলছে। কেননা এর আগেও একই ধরণের দুর্ঘটনায় ৫ থেকে ৭ দিনেও উদ্ধার কাজ সম্পন্ন হয়নি।’

এছাড়া, উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা ১৬৫ কিলোমিটার দূর থেকে রওয়ানা হয়ে ঘটনাস্থলে আসতে কিছুটা দেরি হলেও হিসেব মতে এই জাহাজটি দ্রুতই এসেছে। বিগত সময়ে বরিশাল থেকে আসতে হামজা ও রুস্তমের দু’দিনের বেশি সময় লেগেছে।

কাজী দিপু, জেলা প্রতিনিধি
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply