পদ্মা সেতুর চুক্তি অক্টোবরের মধ্যে: মুহিত

কাদের অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে তা এখনো চূড়ান্ত না হলেও আগামী অক্টোবরের মধ্যে এ বিষয়ে চুক্তি করার পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলছেন অর্থ মন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বুধবার চীনা রাষ্ট্রদূত লি জুনের সঙ্গে বৈঠকের পর অর্থ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেন, “আগামী নভেম্বরে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করার লক্ষ্যেই চুক্তির এ পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।”

চীন এ প্রকল্পে আগ্রহ দেখিয়েছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, “পদ্মা সেতুর বিষয়ে আমরা বিকল্প রাস্তা চিস্তা করছি। তবে চীন শুধু বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে সমস্যা দ্রুত সুরাহা করতে বলেছে, অন্য কিছু নয়। বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশ-চীন দুই দেশেরই ভাল সম্পর্ক রয়েছে।”

২৯০ কোটি ডলারের পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংক ১২০ কোটি ডলার দেওয়ার জন্য সরকারের সঙ্গে চুক্তি করলেও পরে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে অর্থায়ন স্থগিত করে।

সরকার এ প্রকল্পে কোনো দুর্নীতি হয়নি বলে দাবি করলেও যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে অন্য মন্ত্রণালয়ে সরিয়ে দেওয়া হয়। ওই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান ওবায়দুল কাদের। এরপর পদ্মা সেতু প্রকল্পের অর্থায়ন নিয়ে ঋণদাতা সংস্থাগুলোর মধ্যে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়।

সরকার এ প্রকল্পের জন্য মালয়েশিয়ার সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারকে সই করার তারিখ ঘোষণা করলেও পরে জানানো হয়, চীনও এ ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে। শেষ পর্যন্ত কোন দেশ বা সংস্থা পদ্মা সেতু নির্মাণের অর্থ যোগাবে, সে বিষয়টি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

এ প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন নিয়ে জটিলতা শিগগিরই কাটবে কিনা জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, “এসব বিষয় সহজে বলা যায় না, বিশ্ব ব্যাংক বড় একটি দাতা সংস্থা, তাদের সাথে ভাল সম্পর্ক রয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংকের কোনো প্রকল্প সহজে বাতিল হয় না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “কোনো প্রকল্প বাতিল হওয়া খুব রেয়ার।”

বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসর পর পদ্মা সেতু নির্মাণকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আসছে। এরই মধ্যে মূল সেতু, নদী শাসন ও সংযোগ সড়কের নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

সরকারের দাবি, এ সেতু নির্মাণ হলে জিডিপি ১ দশমিক ২ শতাংশ বাড়বে। দারিদ্র্য কমবে দশমিক ৮৪ শতাংশ।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply