মেঘনা তীরের আহাজারি থামার নয়

মেঘনা নদীর গজারিয়া লঞ্চঘাট থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে নিখোঁজদের শত শত স্বজন ইঞ্জিনচালিত নৌকা ও ট্রলারে করে ঘটনাস্থলে ভিড় জমিয়েছেন। একবার উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তমে তো আরেকবার হামজায় হামলে পড়ছেন সম্মিলিত শোকগ্রস্ত মানুষ। অন্তত প্রিয় মানুষটির লাশ যদি পাওয়া যায়!

লাশ! লাশ! লাশ! বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মৃতসব মানুষের মুখ! নারী-পুরুষ-শিশু কেউ রক্ষা পায়নি।

মেঘনার ৭০ ফুট গভীরে ডুবে থাকা লঞ্চটি তীরে ভেড়ানোর পর স্তুপাকারে মৃতদেহ ভেসে উঠছে। ডুবুরিদের প্রাণান্তকর চেষ্টা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের পরও অপেক্ষমাণ লোকজনদের ‘গালিগালাজ’ শুনতে হচ্ছে তাদের। একবার ডুব দিয়ে ভেসে উঠে যে একটু জিরিয়ে নেবে তারও তো জো নেই। ওপর থেকে ‘গালি’ ও শোকস্তব্ধ মানুষের সম্মিলিত আহাজারিতে তারা যে সুযোগ পাচ্ছে কোথায়। তবে স্বজনদের কারণে উদ্ধার কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন উদ্ধারকারীরা।

শোকস্তব্ধ মানুষের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে মেঘনার বাতাস। কিছুক্ষণ পর পর লোকজন স্বজন হারানোর শোকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন। একেকটি লাশ উদ্ধার হচ্ছে আর সঙ্গে সঙ্গে স্বজনের দম আটকানো কান্না ভেসে উঠছে বাতাসে।

‘বাবা মোবাইলে একটু কথা কও আমার লগে। তোমার মোবাইল বন্ধ কেন বাবা। আল্লা কেন বেরাজি হইলা।’ কাঁদতে কাঁদতে কথাগুলো বলছিলেন লঞ্চ ডুবিতে নিখোঁজ থাকা সফর আলী মোড়লের মা বৃদ্ধা রহিমা বেগম। তার মতো আরও শত শত স্বজন মুন্সীগঞ্জের মেঘনা নদীর পাড়ে চরকিশোরগগঞ্জ এলাকায় আহাজারি ও আর্তনাদ করছেন।

রহিমা বেগমের বাড়ি শরিয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার আহাম্মদনগর গ্রামে। লঞ্চডুবিতে তার ছেলে নিখোঁজ হয়েছে খবর পেয়ে তিনি মেঘনাপাড়ে ছুটে এসেছেন। কিন্তু বুধবার সকাল ১০টা পর্যন্ত তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

অন্যদিকে, নিখোঁজ সৈয়দ মাজহারুল হক সোহেলের মা কানিজ ফাতেমা বিছানায় শয্যাশায়ী। সোহেলের সঙ্গে তার সর্বশেষ কথা হয় মোবাইলে। সোহেল লঞ্চে উঠে মাকে ফোন করে জানিয়েছিলেন, তিনি দুই নম্বর কেবিনে সিট পেয়েছেন। এ খবর পেয়ে মা কানিজ ফাতেমা তাকে ঘুমিয়ে থাকতে বলেছিলেন। কিন্ত তার ছেলে সোহেল যে চিরতরে ঘুমিয়ে যাবেন তা বুঝতে পারেননি মা। সোহেলের বাড়ি ভেদেরগঞ্জ থানার কার্ত্তিকপুর গ্রামে।

আনুমানিক ৩০ বছরু বয়সী একজন তরুণ দাঁড়িয়ে ছিলেন জাহাজ হামজার রেলিং ধরে। হঠাৎ মায়ের মৃতদেহ দেখতে চিৎকার করে ওঠেন। ‘ওই তো আমার মা’। আশপাশের লোকজন তাকে জাপটে ধরে।

এদিকে লঞ্চ ডুবির পর মুন্সীগঞ্জের মেঘনার পাড়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাঁবু টানিয়ে স্বজনদের বসার ব্যবস্থা করেছেন। মঙ্গলবার থেকে ওই তাঁবুতে অবস্থান নিয়ে স্বজনরা লাশের সন্ধানে মেঘনা নদী চষে বেড়াচ্ছেন। শত শত মানুষের আহাজারিতে মেঘনার তীরে এক হ্রদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে।

এদিকে, বেসরকারি টেলিভিশনের সাংবাদিক মামুন চৌধুরী বাংলানিউজকে জানান, তার ভাই-ভাবী মাসুদ চৌধুরী সুরেশ্বর থেকে মুন্সীগঞ্জ যাচ্ছিল। দুইদিন চলে গেলেও তাদের খোঁজ পাওয়া যায়নি।

শরীয়তপুর থেকে আসা ফজলু বাংলানিউজকে জানান, তার বাবা বাকের হোসেন এ লঞ্চে করে মুন্সীগঞ্জ যাচ্ছিলেন। এখন পর্যন্ত তার কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি।

রিয়াজ রায়হান, মাজেদুল নয়ন ও কাজী দীপু
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply