টঙ্গিবাড়ীতে যৌতুকের জন্য গৃহবধু খুন ॥ শশুর ও শাশুরী গ্রেফতার

শামীম বেপারী: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাচঁগাঁও গ্রামে বুধবার রাতে যৌতুকের জন্য এক গৃহবধু খুন হয়েছে। এ ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ গ্রামবাসী ঘাতক শশুর ও শাশুরীকে আটক করে পুলিশে সোর্পাদ করেছে। এ সময় পাচঁগাঁও আলহাজ্ব ওয়াহেদ আলি দেওয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রী সহ এলাকার হাজার হাজার নারী ও পুরুষ অপরাধীদের ফাসিঁ চাই বলে শ্লোগান দেয়। অপর দুই ঘাতক স্বামী ও ননদ পালাতক রয়েছে।

স্থাণীয় সূত্রে জানাযায়, দুই বছর পূর্বে উপজেলার পাচঁগাঁও গ্রামের অরুন রায় এর ছেলে দেবাশীশ রায়(৩৫) এর সাথে একই উপজেলার সিংহেরনন্দন গ্রামের হরিপদ দাশের মেয়ে মালতি রানী (সুমা) এর পারিবারিকভাবে বিবাহ হয়। বিবাহের সময় যৌতুক বাবদ ৫০ হাজার টাকা ২ ভরি স্বর্ন ও একটি রঙিণ টেলিভিশন দেওয়ার কথা হয়। কিন্তু মেয়ের বাবা ২০ হাজার টাকা দিতে বিলম্ব করায় প্রতিদিনই সুমার উপর অত্যাচার করতো সুমার শাশুরী কনা রানী রায়,ননদ কবিতা রানী রায় ও স্বামী দেবাশীশ। অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে অসহায় সুমা প্রায় বাবা বাড়ি যৌতুকের টাকা আনতে যেতো।

কিন্তু সুমার বাবা দরিদ্রতার কারনে টাকা দিতে না পারায় সুমার উপর অব্যাহতভাবে অত্যাচার চলতে থাকে। ঘটনার আগের দিন শাশুরী কনা ও ননদ কবিতাকে চুল ধরে সুমাকে আমের চলা দিয়ে পেটাতে দেখে এলাকাবাসী । এ ঘটনা সুমা তার পিতামাতাসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গকে জানালে দেবাশীশ ও তার পরিবার ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। পরে রাতে সুমাকে নির্যাতন করে গলটিপে হত্যা করে লাশ নিজ ঘরের আড়ার সাথে কাপড় দিয়ে পেচিঁয়ে ঝুলিয়ে রাখে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করেছে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সুবল দাশ বাদী হয়ে টঙ্গিবাড়ী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।

১/ নিহত সুমার মেয়ে অদিথি ২/ আটক শশুর ও শাশুরী ৩/ এলাকার জনগনের বিক্ষোভ ৪/ নিহতের স্বজনদের আহাজারী।

====================

টঙ্গীবাড়ীতে গৃহবধুকে গলা টিপে হত্যা

টঙ্গীবাড়ী থেকে মোজাফফর হোসেন : মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার পাচঁগাও গ্রামে গৃহবধুকে গলা টিপে হত্যা করে পালিয়েছে এক পাষন্ড স্বামী। এ নিয়ে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। জানা গেছে বৃহস্পতি বার ভোর রাতে উপজেলার পাচগাঁও গ্রামের অসিস রায় তার স্ত্রী সোমা দাস (২০) কে গলা টিপে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে বলে অভিযোগ উঠেছে। অপরদিকে অসিসের পিতা অরুন রায় জানান তার পুত্রবধু গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। অসিস ২ বছর আগে উপজেলার সিংহেরনন্দন গ্রামের হরিদাসের মেয়ে সোমাকে বিয়ে করে। প্রায় তাকে জৌতুকের জন্য নির্জাতন করত এবং প্রায়ই সে মাদকাসক্তি অবস্থায় গভীর রাতে ঘরে ফিরতো। সোমা বারন করলে তার ওপর শারিরিক নির্যাতন চালাত ও ৬ মাসের মেয়ে অথিতিকেও মেরে ফেলার হুমকি দিত।

এ নিয়ে বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগরা হলে অসিস রাত ৪ টায় ঘর থেকে বেড়িয়ে গেছে বলে অসিসের পিতা অরুন রায় জানান । বৃহস্পতিবার ভোরে অতিথির কাঁন্না শুনে বাড়ির লোকজন ঘরে প্রবেশ করে মেঝেতে সোমার মৃত দেহ পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয়। সোমার পিতা হরিদাস জানান তার মেয়েকে হত্যা করেই অসিস ঘর ছেড়ে পালিয়েছে। পুলিশ অসিসের বাবা অরুন রায় ও মা কণা রানীকে গ্রেপ্তার করেছে। টঙ্গীবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জানান ময়না তদন্তের পরে মৃত্যুর কারন জানা যাবে ।

===================
গৃহবধুকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ ॥ শ্বশুর-শাশুড়ি আটক

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার পাচগাঁও গ্রামের স্বামীর বাড়িতে গৃহবধুকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনার পর থেকে স্বামী পলাতক রয়েছে। এ নিয়ে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

স্বজনরা দাবী করেছেন, ভোর রাতে অশিষ রায় তার স্ত্রী সোমা দাসকে (২০) গলা টিপে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে। অপরদিকে অশিষের পিতা অরুন রায় জানান, তার পুত্রবধু গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। দু’ বছর আগে সিংহেরনন্দন গ্রামের হরিদাসের মেয়ে সোমা সাথে তার বিয়ে হয়।

অভিযোগ রয়েছে, অশিষ মাদকাসক্তি অবস্থায় গভীর রাতে ঘরে ফিরতো। সোমা বারন করলে তার ওপর শারিরিক নির্যাতন চালাত ও ৬ মাসের মেয়ে অথিতিকেও মেরে ফেলার হুমকি দিত। এ নিয়ে বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগরা হয়।

ভোরে অতিথির কাঁন্না শুনে বাড়ির লোকজন ঘরে প্রবেশ করে মেঝেতে সোমার মৃত দেহ পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয়। সোমার পিতা হরিদাস জানান, তার মেয়েকে হত্যা করেই অশিষ ঘর ছেড়েছে। পুলিশ অশিষের বাবা অরুন রায় ও মা ও কণা রানীকে আটক করেছে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, ময়না তদন্তের পরে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

==============

মুন্সীগঞ্জে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার : শ্বশুর-শাশুড়ি গ্রেফতার

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার পাঁচগাঁও গ্রামে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে স্বামীর বসত ঘর থেকে মালতি রানী দাস (২৫) নামের এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের শ্বশুর-শাশুড়িকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। তাকে ভোরের দিকে স্বামীর বাড়ির লোকজন নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করেছে বলে নিহতের মামা মনিন্য দাস দাবী করেছেন। নিহতের ৭ মাস বয়সি কন্যা সন্তান রয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মগ্যে পাঠানো হয়েছে। ২ বছর আগে একই উপজেলার আড়িয়ল গ্রামের হরি দাসের মেয়ে মালতী রানী দাসের সঙ্গে পাঁচগাঁও গ্রামের বিরন মজুমদারের ছেলে আশিক মজুমদারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুক দাবী করে আসছিল স্বামীর বাড়ির লোকজন। যৌতুক না পেলে প্রায়:শই গৃহবধুর উপর নির্যাতন করা হতো বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর স্বামী আশিক মজুমদার পালিয়ে গেছে। তবে, পুলিশ নিহতের শ্বশুর বিরন মজুমদার ও শ্বাশুড়িকে টঙ্গীবাড়ি থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এ ঘটনায় ওই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

One Response

Write a Comment»
  1. very sad news…I live in London, whatever panchgaon was by village. when i get this type of news really i heart… i don’t know who will take this responsibility.. A 6 month baby lose his mom…..police should take a step right now…..

Leave a Reply