মুন্সীগঞ্জে বাংলাদেশ প্রতিদিন এর সম্পাদক, প্রকাশকের বিরুদ্ধে মামলা

দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন-এর সম্পাদক, প্রকাশক ও মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যজিস্ট্রেট শফিকুল ইসলামের আদালতে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এ মামলা দায়ের করা হয়। অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নূহ-উল-আলম লেনিনের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন ও বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করায় তিনি নিজে বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। এসময় অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী সময়ে উপস্থিত ছিলেন। আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছে। আসামিদের আগামী ১৮ মার্চ আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, মামলায় আসামিরা হচ্ছেন- সালাম আজাদ, লাভলু মোল্লা (মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন), নঈম নিজাম (সম্পাদক, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন) ও মোস্তফা কামাল মহিউদ্দীন (প্রকাশক, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন)।

আসামিদের আগামী ১৮ মার্চ আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ৫০০/৫০১/৫০২/১০৯ ধারায় মামলা করা হয়েছে। বাদীর পক্ষে পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল মতিন, সিনিয়র এ্যাডভোকেট অজয় চক্রবর্তী, শ. ম. হাবিবুর রহমান, আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, গোলাম মাওলা তপন, রুহুল আমিনসহ প্রায় অর্ধশতাধিক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ১ মার্চ দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় ‘জমিদার বাড়ির দখল নিলেন কমিউনিস্ট লেনিন’ শিরোনামে প্রতিবেদন ছাপা হয় । এ সংবাদের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করা হয়েছে।

অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন মুন্সীগঞ্জ কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু হানিফ বলেন, গত ১ মার্চ দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় ‘জমিদার বাড়ির দখল নিলেন কমিউনিস্ট লেনিন’ শিরোনামে যে প্রতিবেদন তা কেবল অসত্যই নয়, অসৎ উদ্দেশ্য প্রণোদিত। বাদী সম্পর্কে প্রতিবেদকের ভাষাও আক্রমণাত্মক। সর্বোপরি বাদীর সুনাম ও মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়েছে। পাশাপাশি বাদীকে জনসম্মুখে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা করা হয়েছে। বাদী নূহ-উল-আলম লেনিন আদালতে সুবিচার প্রার্থনা করেছেন। উল্লেখ্য ‘অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন’ ১৯৯৮ সাল থেকে এ অঞ্চলের ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ, সুস্থ্য সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনা কারে আসছে। একটি মহল উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে সেই ধারা ব্যহত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply