মেঘনায় লঞ্চডুবি: ১৩৭ লাশ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা নদীতে লঞ্চ ডুবির ঘটনায় দুপুর তিনটা পর্যন্ত ১৩৭টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ,দমকল বাহিনী ও কোস্টগার্ড যৌথভাবে এটি নিশ্চিত করছে। তবে এখনও অনেকের লাশ না পাওয়ার কথা জানান নিখোঁজদের আত্মীয় স্বজনরা।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটার দিকে ১১২টি লাশ উদ্ধার করে কার্যক্রম শেষ ঘোষণা করা হলেও পর্যায়ক্রমে লাশ ভেসে উঠছে। বৃহস্পতিবার প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত মোট নারী ও শিশুসহ লাশ পাওয়া গেছে ১৩৭টি।

এদিকে, তিনদিন অতিবাহিত হলেও নিখোঁজদের লাশ খুঁজে ফিরছেন তাদের আত্মীয়স্বজনরা। তারা শুধুই নদীর দিকে তাকিয়ে আছেন।

তারা জানান, এখনও অনেক লোক নিখোঁজ আছে। অথচ প্রশাসনের সহযোগিতা নেই। তাদের কার্যক্রম নেই। এদিকে, নিখোঁজদের তালিকা করেছেন মুন্সীগঞ্জ যুব রেডক্রিসেন্ট কর্মীরা। তারা লাশ ওঠানামায় সহযোগিতা করছেন।

নদীতে লাশ ভেসে ওঠলেই স্বজন হারানোরা ছুটে যাচ্ছেন কাছে। কেউ বা ট্রলার নিয়ে নদীতে চষে বেড়াচ্ছেন। অনেকেই ক্লান্ত শরীর নিয়ে নড়াচড়া করতে পারছেন না।

ইতিমধ্যে লঞ্চটি তীরে ওঠালে বৃহস্পতিবারেও তার ভেতর থেকে লাশ উদ্ধার করেছে কোস্টগার্ড ও দমকল বাহিনীর সদস্যরা।

নিখোঁজদের আত্মীয়দের অভিযোগ -প্রতিবারেই এরকম লঞ্চ দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটলেও সরকার এ ব্যাপারে নীরব ভূমিকা পালন করে, তা দুঃখজনক। তদন্ত কমিটি পর্যন্তই তাদের অগ্রগতি। তারপর সব শেষ। তারা আরও জানান, রুস্তম ও হামজা দিয়ে এখন আর কাজ চলে না। উন্নত মানের জাহাজ আনতে হবে।

উল্লেখ্য, সোমবার রাত দেড়টার দিকে প্রায় তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে এম শরীয়তপুর-১ লঞ্চটি মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার উত্তর চরমসুরা এলাকায় মেঘনা নদীতে ডুবে যায়।

বার্তা২৪

Leave a Reply