এত শোক কীভাবে সইবেন জলিল হাওলাদার

কথায় বলে, ‘অল্প শোকে কাতর, অধিক শোকে পাথর’। শোকের মাত্রা অধিক হলে তখন আর পাথর না হয়ে পারা যায় না। তেমন অবস্থা হয়েছে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা জলিল হাওলাদারের। পরিবারের ১০ জনকে হারিয়ে এখন তিনি নির্বাক হয়ে গেছেন। এত শোক তিনি সইবেন কীভাবে?

জানা যায়, জলিল হাওলাদারের বড় মেয়ে পিয়ারা বেগম ঢাকায় চাকরি করতেন। চাকরি সূত্রে শ্বশুরবাড়ি সিরাজগঞ্জে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তাই বাবার বাড়ির সবাইকে দাওয়াত
করেন ঢাকার বাসায়। সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে রওনা হন জলিল হাওলাদারের স্ত্রী শহর ভানু (৫০), ছেলে একরাম (৩০), পুত্রবধূ নাছিমা (২৫), নাতি নিহাদ (৮), নিলয় (২), মেয়ে তাসলিমা (২৫), সোনিয়া (২০), নাতনি স্নেহা (৪), জামাতা সেলিম (৩০) ও পুত্রবধূ মিনা (১৮)। তারা সবাই সুরেশ্বর ঘাট থেকে শরীয়তপুর-১ লঞ্চে ওঠেন। পথে দুর্ঘটনায় সবাই নিখোঁজ হন। বুধবার দুপুরে জলিল হাওলাদারের স্ত্রী শহর ভানু, ছেলে একরাম, পুত্রবধূ নাছিমা ও নাতি নিহাদের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বাকিরা এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। পরিবারের ১০ সদস্য হারিয়ে নির্বাক হয়ে পড়েছেন জলিল হাওলাদার। বুধবার দুপুরে পুটিয়া গ্রামের ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় শোকের মাতম চলছে। পরিবারটির সঙ্গে পুরো গ্রামের মানুষ শোকে স্তব্ধ। স্বজনরা লাশ নিয়ে বাড়ি ফিরছেন এমন সংবাদে কান্নার রোল পড়ে যায়। গ্রামবাসী পাশাপাশি সবার কবর তৈরি করে রেখেছে। লাশ বাড়ি আনলেই জানাজা শেষে দাফন করা হবে।

বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন জলিল হাওলাদার। বিলাপ করে বলছিলেন, ‘আমি কেন তাদের একসঙ্গে সবাইকে ঢাকা যেতে দিলাম। আল্লাহ তুমি আমাকে তুলে নিয়ে যাও। সবাইকে হারিয়ে আমি এখন কী নিয়ে বাঁচব।’

ভেদরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আবদুল মান্নান হাওলাদার জানান, জলিল হাওলাদারের পরিবারের ১০ সদস্য দুর্ঘটনাকবলিত লঞ্চের যাত্রী ছিলেন। তাদের তিনজনের লাশ পেয়েছি।

রাশাদ ইবনে হেলাল সৈকত (২০) ঢাকা কলেজে অনার্সে ভর্তির উদ্দেশ্যে তিন বন্ধুর সঙ্গে শরীয়তপুর-১ লঞ্চে উঠেছিলেন সুরেশ্বর থেকে। তিন বন্ধু প্রাণে বেঁচে গেলেও সৈকতকে হার মানতে হয়েছে মৃত্যুর কাছে। গতকাল বুধবার বিকেলে সৈকতের লাশ উদ্ধার করেছেন ডুবুরিরা। বাবা হেলাল উদ্দিন হেলু ছিলেন লঞ্চের সারেং। ১৫ বছর আগে দায়িত্ব পালনকালে লঞ্চে আগুন লেগে মারা যান তিনি।

সৈকতের চাচা শাহনেওয়াজ ওমর মিলন জানান, সৈকত গত বছর এইচএসসি পাস করেছে। ঢাকা কলেজে অনার্সে ভর্তি হওয়ার জন্য সোমবার রাতে তিন বন্ধুর সঙ্গে সুরেশ্বর ঘাট থেকে দুর্ঘটনাকবলিত লঞ্চে ওঠে। গতকাল ডুবুরিরা তার লাশ উদ্ধার করেন।

মিলন জানান, ১৫ বছর আগেও এমন করুণ পরিণতি ঘটেছিল সৈকতের পরিবারে। সেদিন লঞ্চে আগুন লেগে নিহত হয়েছিলেন সৈকতের বাবা হেলাল উদ্দিন হেলু। হেলু ওই লঞ্চেরই সারেং ছিলেন। লঞ্চটি জিনজিরার এক ডকইয়ার্ডে মেরামতের সময় তাতে আগুন লেগে তিনি মারা যান।

রূপগঞ্জে শোকের মাতম
লঞ্চ দুর্ঘটনায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের মাঝিপাড়া ও বরপা এলাকায় চলছে শোকের মাতম। ওই দুটি এলাকার নারীসহ ২০ জন লঞ্চডুবির দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। তাদের মধ্যে চারজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। মৃত উদ্ধার করা হয়েছে নববধূসহ পাঁচজনকে। বাকি ১১ জন নিখোঁজ রয়েছেন। রূপগঞ্জের মাঝিপাড়া এলাকায় গিয়ে নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মাঝিপাড়া এলাকার কামাল উদ্দিনকে বিয়ে করাতে ১৭ জন বরযাত্রী হয়ে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ সদর এলাকায় যান। সেখান থেকে নববধূ শান্তাকে নিয়ে রূপগঞ্জে ফেরার পথে সোমবার গভীর রাতে এ দুর্ঘটনার শিকার হন তারা। বর কামালের ভাবি সালেহা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, লিটন মিয়া, রিনা আক্তার, বাচ্চু মিয়া ও পাঁচ মাসের শিশুকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। নববধূ শান্তা, রুবেল মিয়া ও পারভেজ মিয়াকে মৃত উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছেন ফারুক, কামাল, মিনারা, রফিক, রাফিয়া, আছিয়া, মাসুমসহ আরও ১০ জন। অন্যদিকে রূপগঞ্জের বরপা এলাকার সাংবাদিক সাত্তার আলী সোহেল জানান, তার ফুফু রোকসানা বেগম শরীয়তপুরের কার্তিকপুর এলাকায় তার অসুস্থ শাশুড়িকে দেখতে যান স্বামী দিদারুল ইসলাম ও মেয়ে আনজুমানকে নিয়ে। পরে রূপগঞ্জের বরপা নিজ বাড়িতে ফেরার পথে লঞ্চডুবির শিকার হন তারা। আনজুমান ও দিদারুল ইসলামের লাশ পাওয়া গেলেও তার ফুফু রোকসানা নিখোঁজ রয়েছেন।

৫০ ফুট পানির নিচে ডুবেও বেঁচে গেলেন বৃদ্ধ গনি লঞ্চডুবিতে প্রায় ৫০ ফুট গভীরে নিমজ্জিত হয়েও অলৌকিকভাবে বেঁচে এসেছেন এক যাত্রী। বেঁচে যাওয়া ওই যাত্রীর নাম আবদুল গনি। বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলে। ৭০ বছরের আবদুল গনি ঢাকার রায়েরবাগ এলাকায় বসবাস করেন। ঢাকার অলিগলি ঘুরে ঘুরে তিনি কাপড় বিক্রি করেন। তবে নিজে বেঁচে গেলেও হারিয়েছেন বন্ধু আবুল হোসেনকে। বন্ধুর জন্য মঙ্গলবার তিনি দুর্ঘটনাস্থল ছেড়ে যাননি। তিনি বন্ধু আবুলের লাশের খোঁজে দিনভর উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তমে অবস্থান করেছেন। আবদুল গনি জানান, শৈশবের বন্ধু আবুলের অনেক ইচ্ছা ছিল তার গ্রামের বাড়ি বেড়াবেন। এ উদ্দেশ্যে বন্ধুকে নিয়ে নিজ গ্রামের বাড়িতে এসেছিলেন তিন দিন আগে। সোমবার রাতে তিনি লঞ্চে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। গভীর রাতে লঞ্চটি ডুবে গেলে প্রথমে তিনি একটি মরিচের বস্তার ওপর ভেসেছিলেন দীর্ঘ সময়। একপর্যায়ে মরিচের বস্তায় পানি ঢুকে গেলে তা ডুবতে শুরু করলে তিনিও নদীতে তলিয়ে যেতে থাকেন। এ সময় তিনি নদীর তলদেশের প্রায় ৫০ থেকে ৬০ ফুট গভীরে তলিয়ে যান। পরে কে যেন হাত ধরে তাকে টেনে তুলে আনেন।

মেঘনাপাড়ে স্বজন হারানোর কান্না

‘বোনকে আইন্যা দিবুন। আফনাগো কাছে গিয়ে আইচে আইর বোনের খবরডা। বোনের লাশডা আইনু দেইন্যা।’ কথাগুলো বলতে বলতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন সালমা। তার ছোট বোন পারভীন (২১) মারা গেছেন লঞ্চডুবিতে। কাজের সন্ধানে লঞ্চে ঢাকা যাচ্ছিলেন নড়িয়ার দরিদ্র পরিবারের মেয়ে পারভীন। সোমবার রাত ২টায় এমভি শরীয়তপুর-১ লঞ্চডুবিতে পারভীন নিখোঁজ হন। লঞ্চডুবিতে মুন্সীগঞ্জ সদরের চরকিশোরগঞ্জ ও গজারিয়া ঘাটের মেঘনার দু’পাড়ে স্বজন হারানোর বুকফাটা কান্না আর আহাজারি চলছে এখনও। স্বজন হারানো মিন্টু জানান, তার বোনের লাশ পাননি।

তোফাজ্জলের বাড়ি চরছান্দ্রি গ্রামে। মা রাশিদা তার ছেলে তোফাজ্জলের সঙ্গে ছিলেন। ডেকের মধ্যে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় লঞ্চ ডুবে গেলে মা-ছেলে দু’জনই মারা গেছেন। মা রাশিদার লাশ পাওয়া গেলেও ছেলের লাশ উদ্ধার করা যায়নি।

জেলা সদরের চরকিশোরগঞ্জ মেঘনাপাড়ে শত শত স্বজন হারার ভিড় আর কান্নায় সেখানে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে। মেঘনার গজারিয়া লঞ্চঘাটের পাড়েও দেখা গেছে নিখোঁজদের খোঁজে আসা স্বজনদের আহাজারির দৃশ্য। সুরেশ্বরের ভরেশ্বর গ্রামের সৈয়দ মাজহারুলের খোঁজে মেঘনাপাড়ে এসে আহাজারি করতে দেখা গেল আরেক ভাই তুহিন সৈয়ালকে।

সমকাল
===============

হাতের মেহেদি না শুকাতেই…

সুমন (২৮)। ইতালি প্রবাসী। সাত বছর পর তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেশে এসেছেন বিয়ের জন্য। ধুমধাম করে বিয়েও করেছেন। মাত্র এক মাস তাদের বিয়ের বয়স। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে হাসি-আনন্দে ফুরিয়ে যায় ছুটির সময়। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় তার ফ্লাইট ছিল। সোমবার তারা ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। স্বামীকে বিদায় জানাতে সঙ্গে আসেন নববধূ সাথি আক্তারও। তারা শরীয়তপুর-১ লঞ্চের কেবিনে ছিলেন। ভোরে ঢাকার সদরঘাটে নামার কথা। কিন্তু ভোরের আলোর সন্ধান পাওয়ার আগেই রাতের আঁধারে লঞ্চডুবিতে গভীর পানির নিচে তলিয়ে যান নবদম্পতি। নিমজ্জিত লঞ্চ থেকে গতকাল বুধবার বেলা সোয়া ১১টায় তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশ দু’টি ডুবুরিদের বোটে রাখা হয়েছে। হাতের মেহেদি এখনও শুকায়নি। দেখে মনে হয় যেন কিছু হয়নি তাদের। ভিজে কাপড়ে দু’টি মানুষ ঘুমিয়ে আছে। নীরব, নিথর তাদের দেহ। স্বজনদের হাউমাউ কান্নার রোল জানান দেয়, আর কখনও জাগবেন না তারা। পাড়ি জামিয়েছেন না ফেরার দেশে। স্বজনদের আহাজারিতে উপস্থিত অনেকেই চোখের পানি মোছেন। নিহতের ভাই সোহাগ ও ইমরান জানান, তিন মাসের ছুটিতে কত দিন পর দেশে এসেছেন সুমন। শেষ পর্যন্ত এই ভাগ্য হলো তার! কি সান্ত্বনা পাবো আমরা? ইতালির নাগরিক নিহত সুমন শরীয়তপুরের নড়িয়া থানার তেলিপাড়ার হক বেপারির ছেলে। ৫ ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। পরিবারের অনেক স্বপ্ন ছিল তাকে ঘিরে। কিন্তু আশা আর স্বপ্ন ডুবে গেছে মেঘনার গভীরে।

নরসিংদীর মাধবদী এলাকার রায়হান মোল্লা (১৭)। তিন বন্ধু রুবেল, কাউসার ও মামুনকে নিয়ে বেড়াতে যায় শরীয়তপুর। সোমবার বাসায় ফেরার পথে ডুবে যাওয়া লঞ্চের সঙ্গে তারাও তলিয়ে যায়। ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় রুবেল ও মামুন। মঙ্গলবার কাউসারের লাশ উদ্ধার করা হয় ডুবে যাওয়া লঞ্চের ভেতর থেকে। আর গতকাল বিকাল ৩টায় নিমজ্জিত লঞ্চ তীরে তোলার পর অনেক লাশের সঙ্গে পরনের জামা-কাপড় দেখে রায়হান মোল্লার লাশ সনাক্ত করে বড় ভাই মামুন মোল্লা। ভাইয়ের লাশ দেখে চিৎকার করে কেঁদে ওঠেন তিনি। কাঁদতে কাঁদতে মোবাইলে বাড়ির লোকজনকে জানান লাশের খবর। মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে ভাইয়ের খোঁজে মেঘনার পাড়েছিলেন মামুন মোল্লা।

ঢাকার মিরপুর-১ থেকে এসে দু’দিন অপেক্ষা করে ছোট ভাইয়ের লাশ না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে গেছেন গোলাম মোস্তফা। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ছোট ভাই রুবেল ঢালী মাল্টিপারপাসের ব্যবসা করতো। বন্ধু সানভিরের সঙ্গে শরীয়তপুর বেড়াতে গিয়েছিল। লঞ্চ ডোবার খবর পেয়ে এখানে ছুটে আসি। ভাগ্যক্রমে সানভির বেঁচে গেলেও রুবেল আর নেই। নিমজ্জিত লঞ্চ তীরে তোলার পর সানভিরের ল্যাপটপ খুঁজে পেয়েছি। কিন্তু রুবেলের লাশ পাইনি।

মানবজমিন

Leave a Reply