হুমায়ুন আজাদ পরিবারে কিছুক্ষণ

আকিদুল ইসলাম, সিডনি থেকে : বহুমাত্রিক জ্যাতির্ময় লেখক, বাংলাদেশের সক্রেটিস হিসেবে খ্যাত হুমায়ুন আজাদ জার্মানির মিউনিখ শহরের এক নির্জন কক্ষে যেদিন ভোররাতে মৃত্যুবরণ করেন ওইদিন মৃত্যুর আগে তিনি তার তিন সন্তানকে তিনটি চিঠি লিখেছিলেন। সেই চিঠি পোস্ট করতে পারেননি। তার লাশের সঙ্গে জার্মান দূতাবাসের তত্ত্বাবধানে অন্যান্য সরঞ্জামাদির সঙ্গে সেই চিঠি তিনটিও আসে প্রিয় সন্তানদের হাতে। প্রতিটি চিঠির শেষেই লিখেছেন, ‘সাবধানে থাকবে।’ আজ থেকে ৮ বছর আগের কথা সেটি।

হুমায়ুন আজাদের যাপিত জীবনধারার কারণেই তার মৃত্যুর পর গোটা পরিবারে নেমে আসে দুঃসহ সময়পর্ব। তার অনেক সতীর্থই যখন অবিরাম ছুটেছেন অর্থ আর প্রতিপত্তির পেছনে তখন তিনি বৈষয়িক সব কিছুকে তুচ্ছ করে মগ্ন থেকেছেন সৃষ্টিকর্মে। ক্ষমতাসীন আর শক্তিমানদের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন অভয়চিত্তে। কারো কাছ থেকে কখনো কোনো সুযোগ গ্রহণ করেননি। সুযোগ নিতে হলে নতজানু হতে হয়। তিনি জীবনে কারো কাছে নতজানু হননি। কারো প্রশংসা করেননি।

প্রথাবিরোধী হুমায়ুন আজাদ যখন মৃত্যুবরণ করেন তখন তার তিন সন্তানই ছাত্র। ব্যাংকের হিসাবের খাতা ছিল শূন্য। মৃত্যুর কিছুদিনের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাস ছাড়তে কর্তৃপক্ষ নোটিস দেন লেখক পরিবারকে। সেই দুঃসময়ে যাদের পাশে পাওয়ার কথা ছিল তারাও মৌলবাদীদের ভয়ে দূরে থেকেছেন। ওই সময় হুমায়ুন আজাদের সন্তানরা বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বলেছিল, একসময় যারা বাবার খুব কাছের মানুষ ছিলেন তারাও কোনো খোঁজ নিচ্ছেন না আমাদের।’ তখন বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায়। সংসদে দাঁড়িয়ে বিতর্কিত সংসদ সদস্যরা নিয়মিত জ্যাতির্ময় লেখকের বিরুদ্ধে হুংকার দিচ্ছেন। কে এগিয়ে আসবে তার পরিবারকে সাহায্য করতে! কেবলমাত্র আগামী প্রকাশনীর কর্ণধার ওসমান গনি সততার সঙ্গে লেখকের বিক্রিত গ্রন্থের রয়ালটির অর্থ নিয়মিত পৌঁছে দিয়েছেন লেখকের পরিবারের কাছে। হুমায়ুন আজাদের বড় কন্যা মৌলি আজাদ সংসারের হাল ধরতে বিভিন্ন সংস্থায় চাকরি করেছেন। কোনোটিই তার যোগ্য চাকরি ছিল না। শুধু ছিল টিকে থাকার লড়াই।

এরই ভেতর রাষ্ট্রক্ষমতার পালা বদল হলে আওয়ামী লীগ সরকার আসে ক্ষমতায়। দৈনিক আমাদের সময়ে তখন একটি কলাম লিখেছিলাম আমি। শিরোনাম ছিল ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি জানেনকি কেমন আছে হুমায়ুন আজাদের পরিবার?’ লেখক পরিবার সূত্রেই জেনেছি, ওই লেখাটি প্রকাশের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাসভবনে আহ্বান জানান হুমায়ুন আজাদ পরিবারকে। খোঁজ-খবর নেন সব কিছুর। লেখকের বড় কন্যা মৌলি তখন একটি এনজিওতে কাজ করেন। প্রধানমন্ত্রী মৌলির কাছে জানতে চান, তাকে যদি কোনো সরকারি চাকরি দেয়া হয় কী জাতীয় চাকরি তার পছন্দ। মৌলি আজাদ জানান, তার বাবা আজীবন জড়িত ছিলেন যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সেই বিশ্ববিদ্যালয়েরই প্রশাসনিক বিভাগে কোনো কাজ পেলে খুশি হবেন।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সুপারিশে মৌলি এখন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সহকারী কমিশনার। উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত মৌলি আজাদ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি চাকরি পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বদান্যতায়। মৌলি এখন দেশের তরুণ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যেও অন্যতম। নিয়মিত বক্তব্য রাখছেন সেমিনারে। লেখালেখি করছেন। অভিনয় করছেন নাটকে। তার বাবার স্মৃতি নিয়ে লেখা ‘আমার বাবা’ নামের গ্রন্থটি পাঠকসমাজে প্রিয়তা পেয়েছে। হুমায়ুন আজাদের ছোট কন্যা স্মিতা অত্যন্ত মেধাবী ছাত্রী। পড়ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। স্কুল থেকে শুরু করে আজো স্মিতা প্রতিটি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়ার কারণে গোল্ড মেডেল পাচ্ছেন। হুমায়ুন আজাদের একমাত্র পুত্র অনন্য আজাদও পড়ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। তার চিন্তা, মনন আর স্বাধীন বক্তব্যের ধারা প্রয়াত পিতার মতোই। অকপটে সত্য উচ্চারণে অভয়চিত্ত অনন্য। লেখালেখিও করছে দেশের বিভিন্ন কাগজে। প্রয়াত লেখকের স্ত্রী লতিফা কোহিনুর চাকরি থেকে অবসর নিয়েছেন। এখন তার সময় কাটে একমাত্র নাতনী শাইনী আজাদ রেজার সঙ্গে।

এবার ঢাকায় গিয়ে আমার প্রিয় শিক্ষকের পরিবারের সঙ্গে কিছুটা সময় কাটালাম। তাদের জাপান গার্ডেনের নিজস্ব ফ্লাটের সবখানে হুমায়ুন আজাদের প্রতিকৃতি টানানো। একটি রুমে স্যারের সমস্ত গ্রন্থসহ তার ব্যবহƒত সকল সামগ্রী যতেœ সাজানো। যেন ‘হুমায়ুন আজাদ জাদুঘর।’ বোঝা যায়, তিনি আছেন এই পরিবারের সকলের বিশ্বাসে ও নিঃশ্বাসে। মৌলি বলল, ‘এই রুমের কোনোকিছুতেই আমরা হাত দিই না।’

বিদায় নিয়ে আসার সময় স্যারের সারা জীবনের সঙ্গী লতিফা কোহিনূরকে বলি, মৌলি লিখেছে বাবার স্মৃতি। আমি লিখেছি স্যারের স্মৃতি। আরো অনেকেই স্যারকে নিয়ে লিখেছেন। লিখছেন। এবার আপনি কলম ধরুন। আপনি লিখুন একজন অনমনীয় সাহসী আর নির্লোভী মানুষের সান্নিধ্যের স্মৃতি। বাংলাদেশের মানুষ আপনার লেখার মাধ্যমে নতুন একজন হুমায়ুন আজাদকে আবিষ্কার করতে পারবেন। লতিফা কোহিনূর ছোট্ট নিঃশ্বাস ফেলে বললেন, লিখব।

ই-মেইল : mail@basbhumi.com

আমাদের সময়

Leave a Reply