স্বাধীনতার প্রতীক ****ইমদাদুল হক মিলন

মিল্টন বিশ্বাস
‘কালোঘোড়া’ স্বাধীনতার প্রতীক। ঘোড়াটি ছিল রাজাকার সিরাজ চেয়ারম্যানের। মুক্তিযোদ্ধারা সিরাজকে গুলি করে মারার পর সেই ঘোড়াটির গায়ে ‘স্বাধীনতা’ শব্দটি লিখে মুক্ত করে দেন। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকারদের কবল থেকে দেশকে উদ্ধার করে স্বাধীনতা অর্জিত হলো; কিন্তু বাকি রইল আরো অনেক কিছু। উপন্যাসের কাহিনী দ্রুত ইঙ্গিতময় ঘটনার সমাপ্তির দিকে এগিয়ে যায়। যুদ্ধ শেষে নিজ গ্রামে বসে চার যোদ্ধাবন্ধু যখন হতাশার কথা বলেন, তখন স্বাধীনতার প্রতীক ঘোড়াটি সামনে এলে তাঁরা তার পিছু নেন। কিন্তু সেই ঘোড়াটি তাঁদের কাছে ধরা দেয় না। স্বাধীন দেশে স্বাধীনতা কি অধরাই থেকে গেল? ‘কালোঘোড়া’য় (১৯৮১) এই মর্মদাহী জিজ্ঞাসার আলেখ্য নির্মাণ করেছেন ইমদাদুল হক মিলন।
একাত্তরের পরে রচিত উপন্যাসে মুক্তিযুদ্ধ বর্ণিত হয়েছে চোখে দেখা অভিজ্ঞতার বয়ান দিয়ে। কিন্তু এক দশক পরে রাষ্ট্রের অবাঞ্ছিত পরিবর্তন হলে ঔপন্যাসিকরা স্বপ্নভঙ্গের ও হতাশার কাহিনী বর্ণনায় উজ্জীবিত হয়ে ওঠেন। অর্থাৎ গভীরতর সমাজজিজ্ঞাসা ও সমাজবাস্তবতার পরিবর্তে ক্ষুদ্র অথবা বৃহৎ পরিপ্রেক্ষিতে লেখকের আবেগ, অনুভূতি ও নিজস্ব সামাজিক অবস্থানকেন্দ্রিক বিষয়বস্তু রূপায়ণের ধারা ইমদাদুল হক মিলনের দশক থেকে পাল্টাতে থাকে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে এক সময়ের লেখকরা যুদ্ধোত্তর নিজের সামাজিক অবস্থানের পারিপাশ্বর্িকতায় বিবেচনা করেছেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পরবর্তী রাষ্ট্র প্রশাসনে রাজাকার ও সামরিক নেতাদের অভ্যুত্থান লেখকদের স্বতন্ত্র ও অনুসন্ধানী জীবন অবলোকনে অনুপ্রাণিত করে। সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনের যাপিত সময় থেকে ঔপন্যাসিকরা নতুন অনুভাবনায় মথিত হন। মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা সারা দেশের ঘটনা; বিশেষ স্থান কালে একটি ঘটনা সংঘটিত হলেও সেটির মূল লক্ষ্য ছিল হানাদারমুক্ত দেশের স্বপ্ন। এ জন্য উপন্যাসের পরিপ্রেক্ষিতে ছোট ছোট কাহিনী তুলে ধরার প্রয়াস লক্ষণীয়। নিজের চোখে দেখা যুদ্ধ-মাঠের বর্ণনার পরিবর্তে যুদ্ধকালীন ও যুদ্ধোত্তর বাস্তবতা প্রাধান্য পেয়ে বসে। ব্যক্তির কৃতিত্ব ও জাতীয় বীরের আখ্যানের চেয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের জীবনের হতাশা, ব্যর্থতা, বিপথগামিতা ও নানাবিধ সংকট মুখ্য হয়ে দাঁড়ায়। কখনো নির্মোহ কাহিনী কথন; কখনো বা সমাজসচেতন আলেখ্য রচনায় অনুপ্রাণিত হন ঔপন্যাসিকরা। এ ধারাতেই মুক্তিযুদ্ধের বৃহৎ পরিপ্রেক্ষিত, নয় ক্ষুদ্র পরিসরে চেতনার মশাল জ্বালিয়েছেন ইমদাদুল হক মিলন। সাহিত্যিক জীবনে প্রথম উপন্যাস থেকেই ইমদাদুল হক মিলন পট নির্মাণে সচেতন, বিষয়বস্তু চয়নে গভীর, শৈল্পিক উপস্থাপনায় সতর্ক, বর্ণনা ও পরিবেশ সৃজনে প্রশংসিত। ‘কালোঘোড়া’ তাঁর মহৎ সৃষ্টিকর্ম নয়। কিন্তু ভালো উপন্যাস লেখার ধারায় তিনি নিজেকে এগিয়ে নিয়েছেন এখানে। তাঁর মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাসগুলোতে যুদ্ধকালীন উত্তপ্ত সময়টি উপস্থাপিত এবং একই সঙ্গে যুদ্ধোত্তর জীবনের উন্মথিত সময় ইতিহাসের পটে ধৃত হয়েছে।

হিন্দু সমপ্রদায়ের রতনলাল ক্ষুদ্র মিষ্টি দোকানদার। তাঁর দোকানে কর্মরত নয়না ও বারেক। ঔপন্যাসিক যখন এই কাহিনীর অন্তর্বুনন শুরু করেন, তখন আমাদের মুক্তিযুদ্ধ গ্রামীণ জীবনে প্রবেশ করেছে। লোকালয়ের মানুষ ভীতসন্ত্রস্ত। পাকিস্তানি মিলিটারি বাজারের কাছে তাদের ক্যাম্প পেতেছে। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজ তাদের শান্তিবাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে কাহিনী ক্রমান্বয়ে বিস্তৃত হতে থাকে।

কাহিনী এগিয়ে যায় মুক্তিযোদ্ধা খোকা, আলম, মন্না, কাদের প্রভৃতি পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের নিধনের মধ্য দিয়ে। চেয়ারম্যানের ছোটবিবি যুক্ত হন মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে। তাঁর মাধ্যমেই পাকিস্তানিদের আক্রমণের সংবাদ পান মুক্তিসেনারা। চেয়ারম্যানের মৃত্যু টুনটুনির স্বামী হারানোর বেদনা হয়ে থাকেনি। কারণ তাঁর স্বামী রতনলালের বোবা কন্যা কালীকে ধর্ষণ করে, নির্যাতন করে হত্যা করে নয়নাকে। এই স্বামী যখন মুক্তিযোদ্ধাদের সম্পর্কে সংবাদ দিতে এবং পাকিস্তানিদের সহায়তা করতে আগ্রহী, তখন টুনটুনি তার সঙ্গে ঘুমাতে অনিচ্ছুক। কাহিনীর এখানেই ক্লাইমেঙ্। টুনটুনি এই উপন্যাসের আগ্রহের কেন্দ্রে পরিণত হয়েছেন। গ্রামের সাধারণ একজন নারী মুক্তিযুদ্ধকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখেছেন; মুক্তিযোদ্ধাদের খাদ্য, অর্থ ও তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন অথচ তাঁর স্বামী রাজাকার। এই মহীয়সী নারী নিজেই মুক্তিযোদ্ধা হয়ে উঠেছেন। অন্যদিকে বালক নয়না মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্য করে মৃত্যুবরণ করেছে। গভীর রাতে রতনলালের মিষ্টির দোকানে চার যোদ্ধাকে আশ্রয় দিয়েছিল সে; আর নির্যাতনে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ার আগেও চেয়ারম্যানকে তাদের সম্পর্কে কোনো তথ্য দেওয়া থেকে বিরত থেকেছে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধে যুব ও কিশোর শক্তির অবদানকে স্মরণীয় করে তুলেছেন ঔপন্যাসিক। যুদ্ধ গ্রামের অনেক চরিত্রকেই পাল্টে দেয়। এমনকি ব্যবসায়িক বুদ্ধিতে তীক্ষ্ন রতনলাল পরিবর্তন হয়ে যান নিজের ধর্ষিত কন্যা কালীর আত্মহত্যার পর। আবার যুদ্ধোত্তর মুক্তিসেনাদের পাল্টে যাওয়ার চিত্র, তাও আমাদের জীবনের ইতিহাসের ভেতর থেকে জারিত।

মুদ্রিত ষাট পৃষ্ঠার উপন্যাস এটি। অথচ আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসের অনেক উপকরণে ঠাসা এর বুনন। ভাষা ও সংলাপে সচেতন শিল্পীর পরিচর্যা লক্ষণীয়; সূচনাংশটিই তার সাক্ষ্য বহন করে। ‘কালোঘোড়া’ উপন্যাসে ইমদাদুল হক মিলন প্রথাগতভাবে কাহিনী বর্ণনা করেননি। এমনকি কোনো নায়ক-নায়িকা সৃষ্টিতে মনোযোগী হননি। মূলত এ উপন্যাসে মুক্তিবাহিনীর অবদান এবং নিম্নবর্গের জনগোষ্ঠীর সম্পৃক্ততার সঙ্গে সঙ্গে যুদ্ধোত্তর বাস্তবতা রূপায়ণে তাঁর দক্ষতা বিস্ময়কর।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply