লঞ্চডুবি: চাঁদপুরের ষাটনলে মেঘনায় আরও ২টি লাশ, মৃত ১৪৭

শনিবার দুপুরে চাঁদপুরের মতলব উপজেলার ষাটনল এলাকায় মেঘনা নদীতে ভেসে ওঠা আরও দু’টি লাশ উদ্ধার করেছে গজারিয়া থানা পুলিশ। এনিয়ে গত সোমবার রাতের লঞ্চডুবির ঘটনায় ১৪৭ জনের লাশ উদ্ধার করা হলো। শনিবার উদ্ধারকৃত লাশগুলোর মধ্যে একজনের পরিচয় জানা গেছে। তিনি হলেন-বাবু শেখ কামাল (৩২)। কামাল সোমবার রাতে বিয়ে করে নববধূসহ ১৭ জনের বরযাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে ফিরছিলেন। এর আগে তার স্ত্রীসহ আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে অনেকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

উদ্ধারকৃত অন্যজনের লাশ (২৮) সনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।

গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি/তদন্ত) কামাল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বাংলানিউজকে জানান, ষাটনল এলাকার লোকজন শনিবার সকাল ১০টার দিকে মেঘনা নদীতে দু’টি লাশ ভেসে উঠতে দেখে কাছাকাছি গজারিয়া থানায় খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় তিন ঘণ্টার চেষ্টায় দুপুর ১টার দিকে লাশ দু’টি উদ্ধার করে নদীর তীরে নিয়ে আসে।

এদিকে, মুন্সীগঞ্জ সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতান উদ্দিন আহম্মেদ বাংলানিউজকে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে মতলব উত্তর থানা পুলিশের সদস্যরা থাকলেও মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া থানা পুলিশের সদস্যরাই মূলত লাশ উদ্ধারের কাজ করছেন।

উল্লেখ্য, সোমবার রাত ২টার দিকে দু’শতাধিক যাত্রী নিয়ে এমভি শরীয়তপুর-১ লঞ্চটি মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার উত্তর চরমসুরা এলাকায় মেঘনা নদীতে ডুবে যায়। এতে শনিবার দুপুর ১টা পর্যন্ত ১৪৭টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার উদ্ধার হওয়া লাশগুলোর মধ্যে কামালের লাশ তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে অন্যজনের পরিচয় না পাওয়ায় ওই লাশটি পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে।

এদিকে, এখনো অনেকে তাদের স্বজনদের খুঁজে পাননি বলে জানা যায়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply