মেঘনায় লঞ্চডুবির ঘটনায় এখনও নিখোঁজ ৪

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় এখনও নিখোঁজ রয়েছে দুই জন। লঞ্চ ডুবির ঘটনায় এ পর্যন্ত উদ্ধার হওয়া ১৪৭টি লাশের মধ্যে ১৪৪টি শনাক্ত করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এখনও ৩টি লাশ শনাক্ত করা যায়নি। রবিবার পুলিশ ও কোস্টগার্ড নিখোঁজদের সন্ধানে নদীতে তল্লাশি চালিয়েছে। এদিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলেও কোন আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি। মুন্সীগঞ্জ জেলার ত্রাণ কর্মকর্তা আব্দুল মতিন জানান, তাঁর সংগৃহীত তথ্যানুযায়ী রবিবার পর্যন্ত শরীয়তপুরের ভেদেরগঞ্জের পূর্ব গাইদ্দা গ্রামের ওয়ালিউল্লার পুত্র আজাদ হাওলাদার (৩৫), সুখীপুরের চরপাইয়াতরী গ্রামের সাইফুল ইসলাম, নড়িয়ার পূর্ব দিনারা গ্রামের ওয়ালিউল্লাহ ঢালীর পুত্র সিফাত (৫) ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের লামিয়া (৭) নিখোঁজ রয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. এহসানুল করিম জানান, শনাক্ত না হওয়া পুরুষ (৪২), মহিলা (২২) ও দেড় বছরের পুরুষ শিশুর লাশ রবিবার মুন্সীগঞ্জ মর্গে ময়নাতদন্ত হয়েছে। আজ সোমবার লাশগুলো পৌরসভার তত্ত্বাবধানে বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে দাফন করা হবে। মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খান জানান, উদ্ধার হওয়ায় ১৪৭টি লাশের মধ্যে ১৪৪টি শনাক্ত করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এখনও ৪টি লাশ শনাক্ত করা যায়নি। ঘটনার জন্য দায়ী কার্গোটি শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। গত সোমবার রাত আড়াইটার দিকে এমভি শরীয়তপুর-১ যাত্রীবাহী লঞ্চটি কার্গোর ধাক্কায় ডুবে যায়। লঞ্চটি রাত সাড়ে ৯টায় শরীয়তপুরের নড়িয়া থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়।

জনকন্ঠ

Leave a Reply