পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির তদন্ত চলছে, সমাধা কি সহসাই?

মোহাম্মদ আলী বোখারী, টরন্টো থেকে : ২০১৩-২০১৫ সালের মধ্যে পুরোপুরি সম্পন্নযোগ্য বহুবিধ যানবাহন চলাচলের নিমিত্তে পরিকল্পিত পদ্মা সেতু প্রকল্পের ভবিষ্যৎ এখন অনিশ্চিত। বিশ্বব্যাংক কানাডার সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুলিশি সংস্থা আরসিএমপিকে (রয়েল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ) উদ্ভূত দুর্নীতি তদন্তের যে দায়িত্বভার দিয়েছে, তা এখনো অব্যাহত আছে। এ তদন্তকাজ সন্তুষ্টিপূর্ণভাবে সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত বিশ্বব্যাংক যে অর্থায়ন যোগাচ্ছে না সেটা যেমন ঠিক, তেমনি মালয়েশিয়া বা চীনসহ অপরাপর দাতা দেশ বা সংস্থা থেকে সহজেই বিকল্প অর্থায়নের গত্যন্তর হচ্ছে না।

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলার মোট ১ হাজার ৬২ দশমিক ১৪ হেক্টর জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়ায় ৬ বছর মেয়াদি প্রায় ৩ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে নিউজিল্যান্ডের মাউনসেল ‘এইকম’-এর ডিজাইনকৃত স্টিলের চার লেন বিশিষ্ট দ্বিতল ‘ট্রাস ব্রিজ’ দৈর্ঘ্যে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার ও প্রস্থে ২১ দশমিক ১০ মিটার সম্পন্ন বাংলাদেশের দীর্ঘতম এই ব্রিজে অর্থায়নে সম্মত ছিল বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, জাপান ব্যাংক অব ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এবং ইসলামী ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক। এই দাতা সংস্থাগুলোর মাঝে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নের পরিমাণ ছিল অর্ধেক, অন্যরা যথাক্রমে ৬১৫, ৪১৫ ও ১৪০ মিলিয়ন ডলার দিতে অঙ্গীকারাবদ্ধ ছিল। এছাড়া পানি সরবরাহ, পয়ঃনিষ্কাশন ও ঘূর্ণিদুর্গত এলাকার উন্নয়নে অতিরিক্ত ১৪ দশমিক ৮৪ মিলিয়ন ডলারের একটি চুক্তি ইসলামী ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক এবং ৩০ মিলিয়ন ডলারের অপর একটি চুক্তি আবুধাবী ডেভেলপমেন্ট গ্র“পের সঙ্গে করা হয়। বাংলাদেশ সরকারের দেয়ার কথা ৫০ মিলিয়ন ডলার।

এখন একদিকে সময়ক্ষেপণে পদ্মা সেতুর জন্য অধিগ্রহণকৃত জমি ভূমিধ্বসে বিনষ্ট হওয়ায় ও রেলওয়ে এলাইনমেন্ট পরিবর্তিত হওয়ায় আরো ভূমি অধিগ্রহণের প্রয়োজনীয়তা যেমন দেখা দিয়েছে, তেমনি কানাডায় আরসিএমপির পুলিশি তদন্ত অব্যাহত থাকায় বর্তমান সরকারের অন্যতম নির্বাচনি অঙ্গীকারটি বাস্তবায়ন বা পরিপূরণ প্রায় অচলাবস্থায় পর্যবসিত। ফলে ২০১০ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ যে টেন্ডার আহবান শেষে ২০১১ সালের প্রথমভাগে এই সেতুর কাজ শুরু করে ২০১৩ সালের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে পৌঁছার কথা ছিল, তা ইতিমধ্যে এক বছর পিছিয়ে গেছে। বাকি আরো কতটা সময় বিফলে গড়াবে তা ভবিষ্যৎই বলবে। তবে এই সেতুর সঙ্গে ৪৪ হাজার বর্গকিলোমিটার বিস্তীর্ণ বাংলাদেশের ২৯ শতাংশ মানুষের জন-জীবনে যে যোগাযোগ ও অর্থনীতি-নির্ভর কর্মকাণ্ডের প্রবাহে সুফল ঘটবে আকাক্সিক্ষত ছিল, তা মুখ থুবড়ে পড়েছে।

মালয়েশিয়ার বার্তাসংস্থা বার্নামা কর্তৃক প্রচারিত তথ্যে জানা গেছে, এ বছর ৩০ জানুয়ারি মালয়েশিয়ার নির্মাণ কনসোর্টিয়াম পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য ২ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলারের একটি প্রস্তাবনা বাংলাদেশ সরকারকে দিয়েছে। তাতে জানা গেছে, অর্থায়ন গ্রহণের ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে সৃষ্ট অচলাবস্থাটি নিরসন একটি মুখ্য প্রতিবন্ধকতা হয়ে দেখা দিয়েছে। অন্যদিকে, পদ্মা সেতুর অর্থায়নে বাংলাদেশ সরকার আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিলে তা গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করবে বলেছে চীন। তবে এক্ষেত্রে আগে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশের ভুল বোঝাবুঝির অবসান চায় তারা। জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে গত ১৯ মার্চ দুপুরে মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জুন এভাবেই তার দেশের অবস্থান তুলে ধরেন।

এদিকে বিশ্ববাংকের সঙ্গে এই অচলাবস্থা সৃষ্টির কারণ খুঁজতে গিয়ে জানা যায়, পদ্মা সেতু প্রকল্পের ‘বিডিং প্রসেস’-এ দুর্নীতি করা হয়েছে বিধায় বিশ্বব্যাংক কানাডার রাষ্ট্রীয় পুলিশ আরসিএমপি-কে প্রয়োজনীয় তদন্তের অনুরোধ জানায়। তাতে ২০১১ সালের ১ সেপ্টেম্বর কানাডার মন্ট্রিয়ল ভিত্তিক প্রকৌশলী প্রতিষ্ঠান ‘এসএনসি-লাভালিন’-এর টরন্টো অফিসে পুলিশ হানা দেয় এবং প্রয়োজনীয় আলামত জব্দ করে, যার কারণ সম্পর্কে ওই প্রতিষ্ঠানটির মুখপাত্র লেসলি কুইনটন কিছুই জানেন না বলে ব্যক্ত করেছেন।

এ বিষয়ে এই প্রতিবেদক আরসিএমপির একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। এতে গত ১৬ মার্চ আরসিএমপির মুখপাত্র মার্ক মেনার্ড লিখিতভাবে জানিয়েছেন যে, ‘২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে এসএনসি-লাভালিনের বর্তমান ও অতীত কর্মচারীদের বিরুদ্ধে পরিচালিত চলমান তদন্তে সার্চ ওয়ারেন্ট সম্পন্ন হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো মামলা রুজু করা হয়নি’। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, তদন্ত চলমান আছে বিধায় বিশ্বব্যাংক সেটা সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিদ্যমান অচলাবস্থা নিরসন কিংবা অর্থায়নের ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার সহসাই দেবে না।

ই-মেইল : bukhari.toronto@gmail.com

আমাদের সময়

Leave a Reply