আলু নিয়ে বিপাকে মুন্সীগঞ্জের কৃষক

খান আবু বকর সিদ্দীক, টঙ্গীবাড়ী: মুন্সীগঞ্জ জেলার প্রধান ফসল আলুর দাম কম থাকায় বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। ক্রেতা কম থাকায় আলু উত্তোলন করে জমিতেই স্তূপ করে রেখেছে হতাশাগ্রস্ত আলু চাষি। অন্যদিকে ভাড়া বৃদ্ধির কারণে অনেকে হিমাগারে আলু না রেখে বিক্রি করার আশায় জমিতেই সংরক্ষণ করছে। হিমাগারে আলু সংরক্ষণ করলে পরিবহন খরচসহ প্রতি বস্তা আলুর দাম পড়বে ১৩০০ টাকা। আগামী বিক্রয় মৌসুমে প্রতি বছরের মতো এবারো হিমাগারে রাখা আলু লোকসান গুনতে হবে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা। জমিতে দাম না পাওয়ায় আলু বিক্রি করতে না পেরে কৃষকরা হিমাগারে রাখার আশা করে। কিন্তু কোল্ডস্টোরেজের ভাড়া বৃদ্ধি পেয়েছে। আলু রোপণে প্রতি মণে খরচ হয়েছে ৫০০ টাকা। ব্যাপক চাহিদা না থাকায় বর্তমানে প্রতি মণ আলুর মূল্য ৩২০ থেকে ৩৪০ টাকা। অন্যদিকে বিভিন্ন জেলা থেকে মজুদদাররা এসে হিমাগারের কোটা ভাড়া নিয়ে নিয়েছে। ফলে এ জেলার চাষিরা হিমাগারে আলু রাখার সুযোগ কম পাচ্ছে। অন্য জেলা থেকে আলু এনে হিমাগার ভর্তি করছে সুবিধাভোগীরা। জেলার ছয়টি উপজেলায় ৩৫ হাজার ৫৭৬ হেক্টর জমিতে আলু উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ছিল ৬,৩২০৭০ মেট্রিক টন। ৫,৪৫০৩০ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি বলে জানিয়েছেন জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতরের উপসহকারী মিয়া আল মামুন। নির্ভরশীল সূত্রে জানা গেছে, হিমাগার কর্তৃপক্ষ নিজেরাও আলু সংরক্ষণের সুকৌশল গ্রহণ করে দালাল শ্রেণীর লোক মাঠে নামিয়ে দরিদ্র কৃষকের কাছ থেকে কম দামে আলু কিনছে। দাম পাওয়ার আশায় অবস্থাসম্পন্ন কৃষকরা জমিতেই আলু রেখে ঢেকে রেখেছে। এ বছর জেলা উপজেলার কৃষি অফিসের মনিটরিং ব্যবস্থা দুর্বল থাকার কারণে আলুর ফলন কম হয়েছে। উৎপাদিত আলু সময়মতো বিক্রি ও হিমাগারে না রাখতে পারলে বিপাকে পড়বে কৃষকরা।

পুরস্কারপ্রাপ্ত আলু চাষি টঙ্গীবাড়ী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ দৈনিক ডেসটিনিকে জানান, সরকার বিদেশে আলু রফতানি করতে না পারলে গত বছরের মতো এ বছরের হিমাগারে রাখা আলুও গরু ঘোড়ায় খাবে। প্রতিটি হিমাগারে গিয়ে দেখা গেছে, ট্রাকভর্তি আলুর বস্তা দরজায়ই পড়ে রয়েছে। অনেক কৃষক আলু মজুদ রাখতে হিমাগার কর্তৃপক্ষের হয়রানির স্বীকার হয়ে দালালদের কাছে কমদামে আলু বিক্রি করে বাড়ি ফিরছে। জমিতে আলু স্তূপ দিয়ে রাখলেও আলুর ওজন কম ও পচন ধরে। ইতিমধ্যে হিমাগার কর্তৃপক্ষ আলু নেওয়া বন্ধ করে দেওয়ায় আলু চাষিরা দিশাহারা হয়ে পড়েছে।

ডেসটিনি

Leave a Reply