কুসুমপুরের সন্ত্রাসী কবিরের তান্ডবলীলায় এলাকাবাসী অতিষ্ঠ

উপজেলার কুসুমপুর গ্রামের মৃত শেখ শাহজাহান শেখের ছেলে কবির হোসেন (৩৮) এর সন্ত্রাসী কার্যকলাপে এলাকাবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। সে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করায় এলাকাবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসীর তার বিরুদ্ধে রয়েছে হাজার অভিযোগ। কার বিরুদ্ধে মাত্র ৩০ দিনের ব্যবধানে এলাকাবাসী থানায় মোট ৬ টি অভিযোগ দায়ের করেও রক্ষা পায়নি তার অনিষ্ঠ থেকে। গত ১৮ মার্চ তারিকুল ইসলামের সাধারণ ডায়েরী (নং-৮১৯) সূত্রে জানা যায়, কবির ও কবিরের সন্ত্রাসী বাহিনী তরিকুলের পুকুরের মাছ ধরার জন্য কচুরি পরিস্কার করতে আসলে, তরিকুলদের বাধার কারণে তাদের উদ্দেশ্য পন্ড হয়ে যায় এবং তারা চলে যায়। যাবার সময় তারা বলে যায় আজ রাতে পুকুরের মাছ ধরব যদি কেউ বাধা দেয় তাহলে তাকে জীবনে শেষ করে দিবো ও তাদের সম্পত্তি দখল করারও হুমকি প্রদান করে।

একই ব্যক্তির ১৯ তারিখের সাধারণ ডায়েরী (নং-৮৮৫) সূত্রে জানা যায়, একই তারিখে বিকাল অনুমান ৫ টার দিকে তরিকুলের জমিতে রোপণ করা ডাটাসহ অন্যান্য ফসলাদি জোরপূর্বক তুলিয়া মাটিতে পিষাইয়া তিসাধন করে। বাদী বাধা দিলে বিবাদীগণ মারধর করার উদ্যেগ নেয়। বিবাদীগণ জনগণের সামনে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে ফসল নিয়ে চলে যায়। সরেজমিনে ও স্থানীয় লোকজন থেকে জানা যায়, কবির দূর্ধর্ষ সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক, তার একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গাজা বিলস্নাল ও কানকাটা মোয়াজ্জেম দ্বারা পরিচালিত। তাদের ভয়ে সাধারণ জনগণ সম্মান হানীর ভয়ে মুখ খোলতে চায়না। এছাড়া তাদের সাথে স্থানীয় লম্পট প্রকৃতির মাতাববরও জড়িত আছে। বাদীপÿ নিতামত্ম সরল প্রকৃতির লোক বিধায় তাদের প্রতি এভাবে অন্যায় অত্যাচার করে যাচ্ছে। সরেজমিনে আরো জানা যায়, তিন মাসের পুলিশের সতর্কিকরণ নিষেধাজ্ঞা থাকা অবস্থায় কবিরের সন্ত্রাসী বাহিনী বাদীর বাঁশ কেটে টিনের বেড়া ভেঙে নিয়ে যায়ওয়ার কথা। এছাড়া একই গ্রামের বাবু ও ইদ্রিস নাকে দুই ব্যক্তি থেকে জোড়পূর্বক অন্যমানুষের সামান্য লেনদেনের জের ধরে প্রায় ৬০ লÿ টাকার সম্পত্তির দলিলও তাদের বাহিনীর সদস্যদের নামে করিয়ে নেয়। অভিযুক্ত কবিরের সাথে কথা বললে, সম্পত্তি তার বলে দাবি করে। এবং সকল ঘটনার সত্যতা অস্বীকার করে। এছাড়া সিরাজদিখান থানার বেশ কয়েকজন সাংবাদিক তাঁর বিরুদ্ধে কলম ধরায় সংবাদ পরিবেশন করায় তাদের প্রাণ নাশের হুমকিও প্রদানও করে সে ইতিপূর্বে।

এ বিষয়ে কবিরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি এরিয়ে যান এবং তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেন।

অন্যদিকে বাদী তরিকূলের সাথে যোগাযোগ করা হয়ে তিনি জানান, কবিরের ভয়ে ছেলে-মেয়ে নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছি। তার বিরুদ্ধে থানায় কয়েক বার অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়নি। এখন যে কোন সময় সন্ত্রাসি কবিরের হাতে শেষ হয়ে যাওয়ার প্রহর গুনছি। আমরা তার বিচার চাই।

বাংলাদেশ বার্তা

Leave a Reply