মুন্সীগঞ্জে অস্ত্র বিক্রেতাদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে

কাজী দীপু: মুন্সীগঞ্জের যোগনীঘাট এলাকায় র‌্যাবের হাতে আটক শহীদুল ইসলামের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে উদ্ধার হওয়া অস্ত্রের মালিক ও অস্ত্র বিক্রির সঙ্গে জড়িতদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে। অন্যদিকে শহীদুল ইসলাম ওরফে শইক্কা (২৮) ১৮ মার্চ আটক হওয়ার পর গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পুলিশ হেফাজতে চিকিৎসাধীন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওবায়দুল হক বাংলানিউজকে জানান, ২৫ মার্চ পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদে শইক্কা জানান, চরকিশোরগঞ্জ এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা নাসির মেম্বার তার কাছে ওই অস্ত্র বিক্রি করার জন্য রাখতে দিয়েছিলেন। এক মাস চেষ্টা চালিয়ে নারায়নগঞ্জের এক ব্যক্তির মাধ্যমে ১৮ মার্চ তিনি ওই অস্ত্র বিক্রির উদ্যোগ নেন।

তদন্ত কর্মকর্তা আরও জানান, সোমবার সকাল থেকে শহীদ তার আগের বক্তব্য ঠিক নয় বলে জানান। তিনি জানান, শম্ভুপুরা ইউনিয়নের মহিলা সদস্য মনিজা বেগম ঘটনার দিন তার কাছে একটি ব্যাগ দিয়ে তা দেন এবং যোগনীঘাট এলাকায় অপেক্ষারত সাহাবুদ্দিন নামের একজনের কাছে পৌঁছে দিতে বলেন।

সেখানে যাওয়ার পথে গুলিবিদ্ধ অস্থায় তিনি র‌্যাবের হাতে আটক হন।

উপ-পরিদর্শক ওবায়দুল হক জানান, শইক্কার দেওয়া ২টি তথ্যের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে। তবে অস্ত্র বিক্রির ঘটনায় সদরের খাসকান্দি এলাকার সন্ত্রাসী আক্তার ও ইকবাল বাহিনীর সঙ্গে গ্রেফতার হওয়া শহীদ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে অস্ত্র বিক্রির ব্যবসা করছে- স্থানীয় পর্যায়ের এমন গুঞ্জনের বিষয়টিও মাথায় রাখা হচ্ছে।

তবে নাসির মেম্বারকে জড়িয়ে শহীদ যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা সঠিক মনে করছেন তদন্ত কর্মকর্তা।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতা নাসির মেম্বার জানান, তাকে এবং ইউপি সদস্য মনিজা বেগমকে জড়িয়ে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে, তা মিথ্যা ও বানোয়াট।

গত ১৮ মার্চ ক্রেতা সেজে অস্ত্র কিনতে গেলে বিক্রেতা শহীদুল ইসলাম ওরফে শইক্কা র‌্যাব সদস্যদের দিকে অস্ত্র তাক করেন। এসময় র‌্যাব তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পরে দুটি বন্দুক ও কাতুর্জসহ তাকে আটক করা হয়।

এ ঘটনায় ওইদিনই র‌্যাবের উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদ বাদি হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় মামলা করেন।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply