শ্রীনগরে স্বপ্নধরা’র আবাসন প্রকল্প ব্যবসা

গ্রাস করে নিচ্ছে খেটে খাওয়া মানুষের জমিজমা : অনুমোদন ছাড়াই প্ল­ট বিক্রির বাহারি বিজ্ঞাপন
মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে “স্বপ্নধরার” অভিনব প্রতারণা নিয়ে মানুষের উদ্বেগ-উৎকন্ঠা এখন চরমে।তাদের আবাসন প্রকল্প ব্যবসা গ্রাস করে নিচ্ছে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের শেষ সম্পদটুকুও। জমির মাঝখানে বসানো হয়েছে স্বপ্নধরার বিশাল সাইনবোর্ড। তাতে লেখা আছে “স্বপ্নধরা”।

শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর, পূর্ব দেউলভোগ, কল্লিগাঁও, আটপাড়া ও পাটাভোগ মৌজায় অবস্থিত ওই সাইনবোর্ডের আশপাশের এলাকাবাসীদের উদ্বেগ-উৎকন্ঠার সীমা নেই। খেটে খাওয়া কৃষকের চোঁখে নেই ঘুম। একেতো ফসলি জমি। তার উপর আবাসন প্রকল্প গ্রাস করে ফেললে তাদের না খেয়ে মরতে হবে।দেউলিয়া হবে হাজার হাজার পরিবার। তাই নিজেদের বাপ-দাদার ভিটা আর ফসলি জমি রক্ষায় শতশত জমির মালিকগন ভূমি রক্ষা কমিটি গঠন করেছেন। আহবায়ক হয়েছেন বাবু নন্দলাল। এ কমিটি ইতিমধ্যে, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো আাজজুল আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আয়াতুল ইসলাম (ভূমি), শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্জয় চক্রবর্তী, সহকারী কমিশনার(ভূমি) সৈয়দা নূর মহল আশরাফির কাছে স্বারকলিপি দিয়েছে। অতি শীঘ্রই অবৈধ সাইনবোর্ড গুড়িয়ে দেওয়া হবে বলে প্রায় সব কর্মকর্তাই স্নারক দাতাদের আস্বস্ত করেছেন। এখন শুধু সেই মাহেন্দ্রক্ষণের প্রতীক্ষার প্রহড় গুণছেন এলাকাবাসী। জানা গেছে, গত ২৩-২৬ ফেব্র“য়ারি-চার দিন ব্যাপী রাজধানী ঢাকার মতিঝিলের হোটেল পূর্বাণীতে একক আবাসন মেলা শেষ করেছে স্বপ্নধরা। বিভিন্ন বিজ্ঞাপনে শতকরা ৬৫ ভাগ মূল্য পরিশোধে মাত্র ৬৫ ঘন্টায় জমি রেজিস্ট্রেশন করার অঙ্গিকার করেছেন তারা। তাছাড়া, স্বপ্নধরার ব্র“শিয়ারে লে-আউট প্ল্যানে বিদ্যমান হাজার হাজার প্ল­টের দাগ, খতিয়ানের হদিস স্থানীয় ভূমি অফিসে পাওয়া যায়নি।এলাকার ভূমি মালিকগণ অভিযোগ করছেন, তাদের জোর পূর্বক ভয় দেখাইয়া স্বপ্নধরা‘র লোকজন জমি নেওয়ার পাঁয়তারা করছে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষে গত ১৮ মার্চ ভূমি রক্ষা কমিটির আহবায়ক বাবু নন্দলাল মন্ডল বাদী হয়ে শ্রীনগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। জিডি নং-৭৭০।

তবে স্বপ্নধরা কর্তৃপক্ষ এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।ভূমি রক্ষা কমিটির আহবায়ক বাবু নন্দলাল মন্ডল জানান, বাপ-দাদার চৌদ্দ পুরুষের ভিটামাটি রক্ষায় এলাকাবাসী ঐক্য বদ্ধ হয়ে ভূমি দস্যুদের সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিবে। স্থানীয় ষোলঘর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম বলেন, অবশ্যই ভূমি দস্যুতার বিরুদ্ধে আমার অবস্থান থাকবে ।তারা কৌশলে আমাকে না জানিয়ে সচিবের নিকট থেকে ইউনিয়ন পরিষদের ছাড়পত্র নিয়েছে। আগামী জুনে তাদের ইউপি ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করা হবে না। আটপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ূব আলী খান জানান, শুনেছি ৫০-৬০ শতাংশ জায়গা কিনে বড় সাইনবোর্ড লটকাইয়া তারা প্লটের ব্যবসা করছে। এলাকার অনেকেই না বুঝে তাদের প্রতাঁরণার ফাঁদে পা দিচ্ছে।গুলশান ওয়ান্ডারল্যান্ডের মালিক ও আটপাড়া এলাকার বাসিন্দা জি এম মুস্তাফিজুর রহমান জানান, প্রায় দেড়শত বিঘা(৪৯৫০শতাংশ) জায়গা আমার প্রতিষ্ঠানের নামে কেনা। সে জায়গাতো বটেই, ব্র“শিয়ারের চিত্রানুযায়ী আমার গ্রামের বসত ভিটা শুদ্ধ বিক্রির নিলামে উঠিয়েছে ওই গ্র“পটি।মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের সভাপতি সিআইপি নূরুল আলম চৌধূরী বলেন, তার পিতামহের ওয়াক্ফ লিল্ল­াহ করা পৌনে ২একর ভূমি জুরে প্রায় শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী ভূঁইচিত্র কবরস্থান ও আশপাশের অনেক জায়গা স্বপ্নধরা’র ব্যবহৃত ব্র“শিয়ারের লে-আউট প্ল্যানে সম্পৃক্ততার বিষয়টি তাকে বেশ ভাবিয়ে তুলছে।এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্জয় চক্রবর্তী জানান, ইতিমধ্যে স্বপ্নধরা কর্তপক্ষের কাছে পরিবেশ ছাড়পত্র ও গৃহায়নের অনুমোদন পত্র চাওয়া হয়েছিল, কিন্তু তারা এগুলো দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে। ওইসব ছাড়পত্রের জন্য স্বপ্নধরা আবেদন করেছে মাত্র বলেও তিনি জানান।স্বপ্নধরা গ্র“পের ডিরেক্টর মো.সাদিউজ্জামান জানান, লে-আউট প্ল­্যান কোন সরকারি গেজেট না। ওটা হান্ড্রেডবার রিভাইস করা যায়। আন্দোলনকারী ভূমি মালিকদের সাথে একাধিকবার বৈঠকে বসার আহবান জানিয়ে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন।তবে জমি কেনা ও হাত বায়না অব্যাহত আছে। পরিবেশের ছাড়পত্র কিংবা গৃহায়নের অনুমতি পত্র কোন আবাসন প্রকল্প ব্যবসায়ীদের আছে কিনা তার জানা নেই বলে তিনি জানান ।এ রকম হলে কেউ ব্যবসা করতে পারবেন না বলে তিনি জানান।এ পর্যন্ত ১৪ বিঘার (৪.৬২ একর) তারা শ্রীনগরে জমি কিনেছেন । আমরা কারো জমি দখল ও কারো সঙ্গে প্রতারণা করিনি । জিডি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, জিডি যে কেউ করতেই পারে । বাবু নন্দলাল মন্ডল প্রসঙ্গে ওই ব্যবসায়ী কর্মকর্তা বলেন,তিনি তার জমিতে এই জমি বিক্রি হবে না বলে সাইনবোর্ড লাগিয়ে রেখেছেন ।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

================

প্লট বিক্রির ব্রোশিউরে অন্যের জমি!

শ্রীনগরে ‘স্বপ্নধরা’র প্রতারণা
চারদিকে ধানি জমি। তার মাঝখানে বসানো হয়েছে ‘স্বপ্নধরা’র বিশাল সাইনবোর্ড। এ সাইনবোর্ডকে ঘিরে বিক্রমপুরের শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর, পূর্ব দেউলভোগ, কল্লিগাঁও, আটপাড়া ও পাটাভোগ মৌজা ও আশপাশের এলাকাবাসীর উৎকণ্ঠার সীমা নেই। স্বপ্নধরার বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। এলাকার ভূমি মালিকদের অভিযোগ, ভয় দেখিয়ে স্বপ্নধরার লোকজন জমি নেওয়ার পাঁয়তারা করছে। গত ১৮ মার্চ এ ব্যাপারে ভূমি রক্ষা কমিটির পক্ষ থেকে শ্রীনগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

ঢাকার গুলশানের ওয়ান্ডারল্যান্ডের মালিক আটপাড়া এলাকার জি এম মুস্তাফিজুর রহমান জানান, প্রায় দেড় শ বিঘা জমি তাঁর প্রতিষ্ঠানের নামে কেনা। সে জায়গা তো বটেই, ব্রোশিউরের চিত্র অনুযায়ী তাঁর গ্রামের বাড়ির বসতভিটাও বিক্রির নিলামে উঠিয়েছে ওই গ্রুপটি। শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের সভাপতি সিআইপি নূর আলম চৌধুরী বলেন, তাঁর পিতামহের ওয়াকফ লিল্লাহ করা পৌনে দুই একর ভূমিজুড়ে প্রায় শত বছরের ঐতিহ্যবাহী ভূঁইচিত্র কবরস্থান ও আশপাশের অনেক জায়গা স্বপ্নধরার ব্যবহৃত ব্রোশিউরের লে-আউট প্ল্যানে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি তাঁকে বেশ ভাবিয়ে তুলেছে।

ধানি জমিতে স্বপ্নধরার সাইনবোর্ড দেখে ওই এলাকার খেটে খাওয়া কৃষকের চোখে নেই ঘুম। তাই বাপ-দাদার ভিটা আর ফসলি জমি রক্ষায় তারা কমিটি গঠন করেছে। যার আহ্বায়ক করা হয়েছে নন্দলাল মণ্ডলকে। এ কমিটি ইতিমধ্যে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আয়াতুল ইসলাম (ভূমি), শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সনজয় চক্রবর্তী, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সৈয়দা নূর মহল আশরাফির কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে। তারা এই বলে ভূমি রক্ষা কমিটির সদস্যদের নিবৃত্ত করেছেন যে শিগগিরই অবৈধ সাইনবোর্ড গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে।

ভূমি রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক নন্দলাল মণ্ডল জানান, বাপ-দাদা চৌদ্দ পুরুষের ভিটামাটি রক্ষায় এলাকাবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভূমিদস্যুদের ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করবে। স্থানীয় ষোলঘর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুস সালাম বলেন, ‘ভূমিদস্যুতার বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান। আমাকে না জানিয়ে ইউপি সচিবের কাছ থেকে ছাড়পত্র নেওয়া হয়েছে। আগামী জুনে অবশ্যই তাদের ইউপি ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করা হবে না।’ আটপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী খান জানান, ‘শুনেছি ৫০-৬০ শতাংশ জায়গা কিনে বড় সাইনবোর্ড টাঙিয়ে তারা প্লটের ব্যবসা করছে এবং না বুঝে তাদের প্রতারণার ফাঁদে অনেকেই পা দিচ্ছে।’

জানা যায়, গত ফেব্রুয়ারিতে চার দিনব্যাপী রাজধানী ঢাকার একটি হোটেলে একক আবাসন মেলা শেষ করেছে স্বপ্নধরা। বিভিন্ন বিজ্ঞাপনে ৬৫ ভাগ মূল্য পরিশোধে মাত্র ৬৫ ঘণ্টায় জমি রেজিস্ট্রেশন করার অঙ্গীকার করেছে তারা। তা ছাড়া স্বপ্নধরার ব্রোশিউরে লে-আউট প্ল্যানে বিদ্যমান হাজার হাজার প্লটের দাগ, খতিয়ানের হদিস স্থানীয় ভূমি অফিসে পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সনজয় চক্রবর্তী জানান, স্বপ্নধরা কর্তৃপক্ষের কাছে পরিবেশ ছাড়পত্র ও গৃহায়ণের অনুমোদনপত্র চাইলে তারা এগুলো দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে।

স্বপ্নধরা গ্রুপের পরিচালক মো. সাদিউজ্জামান জানান, লে-আউট প্ল্যান কোনো সরকারি গেজেট নয়। ওটা শতবার পরিবর্তন করা যায়। আন্দোলনকারী ভূমি মালিকদের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠকে বসার আহ্বান জানিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি। তবে জমি কেনা ও হাত বায়না অব্যাহত আছে জানিয়ে তিনি বলেন, পরিবেশের ছাড়পত্র কিংবা গৃহায়ণের অনুমতিপত্রের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

স্বপ্নধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মাসুদুর রহমান জানান, আগামী পাঁচ বছরের আগে কোনো জমিই ভরাট করা হবে না। তাঁদের কেনা জমির পরিমাণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ১৪ বিঘার উপরে কেনা হয়েছে এবং তা নামজারির জন্য ইতিমধ্যে সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কাছে পাঠানো হয়েছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply