পিতার বাড়ি ফিরে পাওয়ার জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন নুরু মিয়া

ফিরোজ আলম বিপ্লব: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পুড়া গ্রামের নিজ পিতার এক মাত্র সম্বল বাড়ি টুকু ফিরে পাওয়ার জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেরাচ্ছেন নুরু মিয়া (৬২)। স্থাণীয় সুত্রে জানা যায়, মো. নেকবত আলি বেপারীর দুই ছেলে মো. কালু বেপারী ও বিল্লাত বেপারী তিন মেয়ে মেহের জান, খোরশেদা বেগম, ফুল বানুকে রেখে মার যান। পরে কালু বেপারীর একমাত্র পুত্র রহমান বেপারী ও বিল্লাত আলি একমাত্র পুত্র নুরু বেপারীকে রেখে মারা যান। বিল্লাত আলি মারা যাওয়ার পর নাবালক নুরু বেপারীকে চাচা কালু বেপারী লালন পালন করতেন। কালু বেপারী মারা যাওয়ার পর নুরু বেপারী হাবাগোবা থাকায় তার চাচাতো ভাই কালু বেপারীর একমাত্র ছেলে রহমান বেপারী নুরু বেপারীকে ঠিকমত খাবার দাবার দিত না এবং নানা ভাবে নির্যাতন করতো।

নুরু বেপারী জানান, আমাদের বাড়ি ছাড়া আর কোন জায়গা জমি নাই। পৈত্রিক সূত্রে আমি ৮ শতাংশ বাড়ির মালিক। কিন্তু রহমান বেপারী আমার পৈত্রিক পরিচয়কে অ¯ী^কার করে আজ থেকে ১৭ বছর আগে আমাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। সেই সময় আমি এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গদের বিষয়টি জানালে এ নিয়ে এলাকায় কয়েকবার বিচার শালিশী হয়। স্থাণীয় শালিশীতে আমার পৈতিক ভিটা আমাকে ফিরিয়ে দেওয়ার রায় দিলেও রহমান বেপারী আমাকে উক্ত ভিটাতে উঠতে দেয়নি। সে বিভিন্ন সময়ে আমাকে বাড়ি আসলে প্রান নাশের হুমকী প্রদান করে আসছে।

নুরু বেপারী ও রহমান বেপারীর মামা আফছার উদ্দিন শিকদার, স্থাণীয় বৃদ্ধ হাজী হেলাল উদ্দিন খানঁ ও ধাত্রী ছানা বেগম সাংবাদিকদের জানান, নুরু বেপারীক আমরা বিল্লাত আলি বেপারীর ঘরে জন্ম নিতে দেখেছি। জন্মের পর হতে আমরা তাকে বিল্লাত আলি বেপারীর একমাত্র পুত্র হিসাবে চিনি। এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ আদালতে একটি মামলা বিচারাধীন থাকলেও রহমান বেপারী নুরু বেপারীকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য ভয়ভীতি প্রদান করছে। গতকাল অসহায় নুরু বেপারী সাংবাদিকদের কাছে এসে এ ব্যাপারে অভিযোগ করেন।

Leave a Reply