বিক্রি কর বৃদ্ধি অনুমোদন

রাহমান মনি
অবশেষে বিক্রি কর বৃদ্ধি বিল অনুমোদন করেছে জাপান সরকার। দীর্ঘদিন ধরেই বিক্রি কর বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা হয়ে আসছিল জাপানে। বর্তমানে এই করের পরিমাণ ৫%। তা বাড়িয়ে দ্বিগুণ অর্থাৎ ১০% করার প্রস্তাব মন্ত্রিপরিষদে অনুমোদিত হয়েছে। তবে তা একবারে নয়। দুই দফায় এই কর বৃদ্ধির প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। ২০১৪ এপ্রিল ১ থেকে ৮% এবং ২০১৫ অক্টোবর থেকে ১০% ভোগ্য (বিক্রি) করের প্রস্তাব নোদা সরকারের মন্ত্রিপরিষদে ৩০ মার্চ ২০১২ অনুমোদন করে পার্লামেন্টে অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। পার্লামেন্টের উভয় কক্ষে পাস হওয়ার পর বিলটি আইনে পরিণত হবে।

৩০ মার্চ ২০১২ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা তার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী নোদা কর বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করে লিখিত বক্তব্য রাখেন। বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন প্রধানমন্ত্রী নোদা।

নোদা বলেন, নোদা প্রশাসন জনগণের প্রশাসন। জনগণের পাশে থেকে জনগণের সার্বিক নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব সরকারের। আমরা সেই দায়িত্বটি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করতে চাই। জনগণ যেন আমাদের উপর আস্থা রাখতে পারে। বিপদে যেন কাছে পায়, দায়িত্বশীল মনে করে, কর্মক্ষম মনে করে সেই প্রতিশ্রুতিশীল সরকার হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। আজকের কাজ আজকেই করতে চাই ভবিষ্যতের জন্য না ফেলে রেখে। নোদা জোর দিয়ে বলেন, আমি সবসময় একটি কথা বলি এবং মনেপ্রাণে বিশ্বাসও করি তা হলো আগামী দিনটি আরো ভালো হবে, ভালো যাবে, এই স্বপ্ন তৈরি করতে হবে নতুন প্রজন্মকে। পড়াশুনা শেষ করার পর নিজ যোগ্যতা অনুযায়ী যেন কর্মক্ষেত্র খুঁজে পায় সেই আস্থা তৈরি করাই আমার লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রী নোদা বলেন, কর বৃদ্ধির টাকা বা বর্ধিত কর সামাজিক নিরাপত্তা খাতে জমা হয়ে সেই খাতে ব্যবহৃত হবে। এ ছাড়াও অর্থনীতিতে বিরাজমান বর্তমানের মন্দাভাব কাটিয়ে উঠতেও যথেষ্ট ভূমিকা রাখবে।

জাপানে বিক্রি কর বা ভোগ্য কর ১৯৮৯ সালের এপ্রিলে প্রথম অনুমোদন পায় এবং ৫% হিসেবে ১ এপ্রিল ১৯৯৭ থেকে কার্যকর করা হয় দীর্ঘ ৮ বছর পর।

সংবাদ সম্মেলনে বর্তমান কর বৃদ্ধির প্রস্তাব মন্ত্রিপরিষদের সকল সদস্যের সম্মতির কথা বললেও নোদা জোট সরকারের আরেক শরিক দল ককুমিন শিনতো গ্রুপের প্রেসিডেন্ট শিজুকা কামেই ঘোষণা দিয়েছেন সংসদে এই বিল পাস হলে তিনি তার জোট নিয়ে সরকার থেকে বেরিয়ে যাবেন। কারণ কামেই মনে করেন তিনি ভোগ্য কর বাড়াবেন না এই প্রতিশ্রুতিতে জনগণের কাছে তার দল প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। যেহেতু তিনি রাজনৈতিক নেতা তা তিনি জনগণকে দেয়া প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করতে পারবেন না। যদিও ককুমিন শিনতো দলের মধ্যেই এই নিয়ে মতবিরোধ রয়েছে। দলটির কোনো কোনো সদস্য মনে করেন কর বৃদ্ধি এখন সময়ের দাবি। কাজেই বাস্তবতাকে মেনে নেয়াই রাজনৈতিক দল এবং নেতাদের কাজ।
প্রধানমন্ত্রী নোদা সংবাদ সম্মেলনে জানান, বর্তমান সংসদের নিম্ন এবং উচ্চকক্ষের বেশির ভাগ সদস্যই ভোগ্য কর বৃদ্ধির প্রস্তাব সমর্থন করেছেন। আমার পূর্ববর্তী সরকারগুলো থেকে আলোচনা হয়ে আসছে ভোগ্য কর বৃদ্ধির জন্য। কাজেই বিলটি অনুমোদনে কোনো বাধা সৃষ্টি হবে না। বিরোধী জোট থেকে অবশ্য এখনও তেমন কোনো উচ্চবাচ্য করা হয়নি। বাকিটা বোঝা যাবে বিলটি উত্থাপন হওয়ার পর। সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে সবাইকে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply