কৃষকের কণ্ঠে ভোট নয় ভাতের রণধ্বনি

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
ভদ্রতা ও কৃষিকার্য সব সময়ই মনে হয়েছে পরস্পরবিরোধী। পরে অবশ্য ওই শিক্ষিত শ্রেণীই স্বাধীনতার জন্য চঞ্চল হয়েছে। কিন্তু সেটা কার স্বাধীনতা? অবশ্যই কৃষকের নয়। হিন্দু-মুসলিম উভয় পক্ষের ভদ্রলোকদের জন্যই স্বাধীনতা এসেছে। কৃষকের জন্য আসেনি। ওই অর্থে ঘটনাটা ক্ষমতা হস্তান্তর বটে, ইংরেজ চলে গেল, যাওয়ার সময় ক্ষমতা দিয়ে গেল তাদেরই হাতে, যাদের এক সময়ে সে সৃষ্টি করেছিল। কৃষক সেখানেই রইল, যেখানে সে ছিল।

ভদ্রতা ও কৃষিকার্য সব সময়ই মনে হয়েছে পরস্পরবিরোধী। পরে অবশ্য ওই শিক্ষিত শ্রেণীই স্বাধীনতার জন্য চঞ্চল হয়েছে। কিন্তু সেটা কার স্বাধীনতা? অবশ্যই কৃষকের নয়। হিন্দু-মুসলিম উভয় পক্ষের ভদ্রলোকদের জন্যই স্বাধীনতা এসেছে। কৃষকের জন্য আসেনি। ওই অর্থে ঘটনাটা ক্ষমতা হস্তান্তর বটে, ইংরেজ চলে গেল, যাওয়ার সময় ক্ষমতা দিয়ে গেল তাদেরই হাতে, যাদের এক সময়ে সে সৃষ্টি করেছিল। কৃষক সেখানেই রইল, যেখানে সে ছিল। সাতচলি্লশে সে ভোট দিয়েছে, পাকিস্তানের পক্ষে। বাংলাদেশ পেয়েছে, কিন্তু স্বাধীনতা পায়নি। একাত্তরে সে যুদ্ধ করেছে বাংলাদেশের পক্ষে। বাংলাদেশ পেয়েছে, কিন্তু স্বাধীনতা পেয়েছে কি?

না, আমরা খবর রাখি না। কৃষকের স্বাধীনতা কোন মাপে মাপব তাও বলি না। ইংরেজকে হটিয়ে স্বাধীনতা লাভের যে কর্মসূচি তাতে জমিদারি প্রথা উচ্ছেদের কথা ছিল না। থাকলে জমিদারের সমর্থন পাওয়া যেত না। চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের অধীনে কৃষকের অবস্থা যে কি ছিল তার মর্মন্তুদ বিবরণ সাহিত্যে মাঝে মাঝে পাওয়া গেছে, কিন্তু ওই ব্যবস্থা উচ্ছেদ করতে হবে_ এ কথা শোনা গেছে খুব কম। বরং দেখা গেছে, সব কথা বলার পর বলা হচ্ছে_ এই ব্যবস্থা বানচাল করা যাবে না, করলে ঘোরতর সামাজিক বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে। যে বিশৃঙ্খলাকে ইংরেজ ভয় পেয়েছে, সে বিশৃঙ্খলাকে শিক্ষিত ভদ্র শ্রেণীও কম ভয় পায়নি। সাতচলি্লশে নয়, ছাপ্পান্নতে আইন পাস হয়েছে জমিদারি প্রথা উচ্ছেদের। উচ্ছেদ হলো বটে, কিন্তু কৃষকের ভাগ্য ফিরল না। রাষ্ট্রই জমিদার হয়ে বসল, তার খাজনা অফিসাররা নায়েব গোমস্তার ভূমিকা নিল। ১০০ বিঘার ওপরে কারও জমি থাকবে না_ এ রকম বিধান হয়েছিল বটে, কিন্তু তা কার্যকর হয়নি। বেনামি করে, ভাগবাটোয়ারা করে জমি তাদের হাতেই রয়ে গেছে, যাদের হাতে ছিল। ওদিকে নামে জমিদার গেল বটে, কিন্তু জোতদার তো গেল না। জোতদাররা শক্তিশালী হয়ে উঠল।

আইয়ুব খানের সময় জোতদাররা আবদার করেছে এবং তাতে সাড়া দিয়ে মাথাপিছু ভূসম্পত্তির হার ১০০ থেকে ৩৭৫ বিঘাতে ‘উন্নীত’ করা হয়েছে। তারপর অবশ্য ভূমি সংস্কারের কথা বলা হয়েছে। সংস্কার কমিশন বসেছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। অনেকেই কথায় কথায় দক্ষিণ কোরিয়ার উন্নতির দৃষ্টান্ত উল্লেখ করতে ভালোবাসেন। খেয়াল করেন না যে, সেখানে অন্যান্য পদক্ষেপের সঙ্গে একটা জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল পঞ্চাশের দশকের শুরুতে, সেটি ভূমি সংস্কার। সর্বোচ্চ সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল সাত একর। তাতে সে দেশের উপকার হয়েছে।আমাদের দেশের কৃষক এখন কি অবস্থায় রয়েছে? আমরা পরিবেশ দূষণ নিয়ে আলোচনা করি। কৃষকের জন্য পরিবেশটা কি? থাকে কোথায়? খায় কি? পানি আছে বিশুদ্ধ? শৌচাগার? পুষ্টি পায়? চিকিৎসা? জুতো আছে ক’জনের পায়ে? গরিব কৃষক গাছ কাটে। ইচ্ছা করে নয়। বাধ্য হয়ে। যারা ভূমিহীন তারা কি করবে ভেবে পায় না। গ্রামে কাজ নেই। শহরে তার জন্য বস্তি ছাড়া আর কিছু নেই, তাও যদি পায়। ভূমিহীনদের কথা বাদ দিই, অধিকাংশ ক্ষেত্রে তারা পরিসংখ্যানের একটি তথ্য ছাড়া অন্য কিছু নয়। তাদের অবস্থা আমাদের কল্পনার বাইরে। কিন্তু যাদের জমিজমা কিছু আছে তাদের অবস্থাটা কি? ফসল মরলে তাদের মরণ, ফসল ভালো হলেও তাদের মরণ। এর চেয়ে করুণ দশা আর কি হতে পারে। ফসল ভালো হলে দাম পড়ে যায়, উৎপাদনের খরচ ওঠে না। উৎপাদনে ১০০ টাকা খরচ করে ফসল বিক্রি করে ৯৫ টাকা পায় যে কৃষক, সে ভালো আছে এটা বোধ হয় বলা যাবে না। ফসল ভালো হলে সরকার খুশি হয়, হেসে বলে আমাদের নীতির জয়, কর্মসূচির বিরাট সাফল্য, ওদিকে কৃষকের যে মাথার চুল ছেঁড়ার দশা সে খবর তো সরকার রাখে না, প্রয়োজন মনে করে না রাখার। সাধে কি আর স্মারকলিপি দেওয়ার কথা ওঠে। কৃষক এক সময় পাট পোড়াত দাম না পেয়ে। সে পোড়ানো শেষ হয়েছে, পাট চাষ এখন অনেকেই ছেড়ে দিয়েছে। এবার কি আসবে তবে ধান পোড়ানোর পালা? কৃষকের ধান কাটার সঙ্গে সঙ্গে বেচে দিতে হয়। কেননা, ধরে রাখবে তার উপায় নেই। ঋণ করেছে। ঘরে পয়সা নেই। না বেচে উপায় কি। এখন বেচবে সে সস্তায়, পরে আবার ওই ধানই কিনবে দামে। দশা এ রকমই। কৃষকের স্বার্থ দেখার লোক নেই।

পাটের ন্যায্যমূল্য দিতে হবে বলে এক সময়ে ক্ষীণকণ্ঠে হলেও একটা আওয়াজ উঠেছিল, ধানের ন্যায্যমূল্য চাই এ ধ্বনি কে তুলবে বাংলাদেশে। ধান-চালের দাম বাড়লে কৃষকের সুবিধা বটে, কিন্তু অন্যদের তো খুবই অসুবিধা করে দেওয়ার কোনো উপায়ই নেই। কৃষকের পৌষ মাস তো সর্বনাশ। বার বার স্বাধীন হলাম কিন্তু এই স্ববিরোধিতাটা ঘুচল না। সব মানুষের স্বার্থ এক হলো না। কেবল ধানে ন্যায্যমূল্য নয়, কৃষি উপকরণের মূল্য হ্রাস করাও অত্যন্ত প্রয়োজন। সেটাই আরও বেশি জরুরি। কিন্তু তার তো কোনো উপায় নেই। পুঁজিবাদী দেশগুলো নিজেদের দেশে কৃষিতে প্রচুর ভর্তুকি দেয়। কিন্তু তাদের প্রতিনিধি ও ব্যাংকার বিশ্বব্যাংক এদেশে এসে বলে কৃষিতে প্রচুর ভর্তুকি দেওয়া যাবে না। যা দিয়েছ প্রত্যাহার করে নাও। তারা আমাদের মঙ্গলাকাঙ্ক্ষী বটে।

ওদিকে রাষ্ট্র ও সমাজের যত ঝড়ঝঞ্ঝা তা কৃষকের হাড়ের ওপর দিয়েই বয়ে যায়। বন্যাতে সবার আগে সেই ভাসে। খরাতে সেই পোড়ে। গঙ্গার পানি বণ্টনের সমস্যা তো আসলে আমলাতন্ত্রের সমস্যা নয়, রাজনীতিকদেরও নয়, সমস্যা কৃষকের। এ সমস্যা সমাধানে আমরা অধিক পরিমাণে অস্থির হতাম, যদি সমস্যাটা কৃষকের না হয়ে সুবিধাপ্রাপ্ত শ্রেণীর হতো। কৃষিতে উন্নতি হয়েছে, উপযুক্ত ব্যবস্থা নিলে ফসল আরও বাড়বে এমন আশা করা যায়, কিন্তু যে ব্যবস্থা বিদ্যমান তাতে ফসলের ফলন আরও বাড়লে কৃষকের লাভ কি সেটা বোঝা কঠিন। অথচ ব্যবস্থাটা মূলত কৃষকের কাঁধের ওপরই দাঁড়িয়ে আছে। কৃষক যদি নড়ে তবে পড়ে যাবে।

এক সময় কৃষক সমিতি, ক্ষেতমজুর সমিতি এসব ছিল। দলের নাম হতো কৃষক-শ্রমিক পার্টি, হক সাহেব দিয়েছিলেন। মওলানা ভাসানী ডাক দিতেন, সম্মেলন হতো, কৃষক যে আছে অন্তত এ সত্যটা ধরা পড়ত। শুধু ভোট নয়, ভাতও চাই এমন রণধ্বনিও কানে আসত। এখন তাও নেই। কিন্তু কৃষক তো আছে। তার উন্নতি না ঘটিয়ে আমরা দেশের উন্নতি ঘটাব কি করে? সরকার না বুঝুক অন্যদের দায়িত্ব আছে বোঝার_ বিশেষ করে তাদের, সত্যি সত্যি যারা দেশপ্রেমিক।

বাংলাদেশ প্রতিদিন

Leave a Reply