চাপ বাড়ছে খোকার ওপর

কাফি কামাল: ডিসিসি নির্বাচনে লড়তে চাপ বাড়ছে সাদেক হোসেন খোকার ওপর। অবিভক্ত ডিসিসি’র সদ্য সাবেক এবং একদশকের এ মেয়রের ওপর দলীয় নেতাকর্মীদের চাপ বেড়েই চলছে। নগর বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়কবৃন্দ ও সাবেক কমিশনারদের প্রায় সবাই চাইছেন তাকে। অনুরোধ এসেছে মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে। প্রগতিশীল রাজনৈতিক মহল থেকেও। রাজধানীর বনেদি নাগরিকরাও নিয়মিত খোঁজ-খবর করছেন। সবাই চাইছেন ডিসিসি দক্ষিণ থেকে ভোটযুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করুক তিনি। ডিসিসি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে নানামুখী এ চাপের মধ্যে কাটছে তার দিন। প্রতিদিন ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত। তার গুলশানের বাসা থেকে নয়াপল্টনের পার্টি অফিস সর্বত্রই। নেতাকর্মী ও পুরান ঢাকাবাসীর ভিড়। সম্ভাব্য মেয়র ও কমিশনার প্রার্থীরা ছুটে যাচ্ছেন তার কাছে, চাইছেন নির্দেশনা। তিনি শেষ পর্যন্ত নির্বাচন না করলে নেতাকর্মীরা কি করবেন। কোন দিকে যাবেন, কাকে সমর্থন দেবেন। কিন্তু তিনি নিরুত্তর, চুপচাপ।

৮ই এপ্রিল বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির রুদ্ধদ্বার সভায় ডিসিসি নির্বাচনে অংশ নেয়ার পক্ষে মতামত দিয়েছেন নেতারা। পরদিন ডিসিসি নির্বাচনে ‘চমক’ দেখানোর ঘোষণা দিয়েছেন দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ ঘোষণার পর সম্ভাব্য প্রার্থীরা কোমর বেঁধে নামলেও নীরব অবস্থানে সাদেক হোসেন খোকা। উল্লেখ্য, ডিসিসিকে দু’ভাগ করার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর সরকারের কড়া সমালোচনা করেছিলেন তিনি। একপর্যায়ে সরকারের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন- ‘আমি নির্বাচনে অংশ নেবো না। তবু ডিসিসি দু’ভাগ করবেন না।’ পরবর্তী সময়ে তিনি বিভক্ত ডিসিসি নির্বাচন নিয়ে তার অনাগ্রহ ব্যক্ত করে আসছেন। দলীয় সূত্র জানায়, নির্বাহী কমিটির সভার আগেই সাদেক হোসেন খোকাসহ কয়েকজন সিনিয়র নেতাকে ডেকেছিলেন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সেখানে ডিসিসি নির্বাচন নিয়ে অনেক খোলামেলা কথা হয়। ডিসিসি বিভক্তির সরকারি সিদ্ধান্তে তার হতাশা ও দুঃখবোধের কথা বলেন তিনি। আবেগ তাড়িত হয়ে খালেদা জিয়াকে বলেন- ‘সরকার এ সিদ্ধান্তের মাধ্যমে তার হৃদয়কে যেন কেটে দু’টুকরো করে ফেলেছেন।’ অবিভক্ত ডিসিসি’র মেয়র হিসাবে লম্বা সময় দায়িত্বপালনের কারণে বিষয়টি তিনি মানসিকভাবে মেনে নিতে পারছেন না। এমনকি ডিসিসি বিভক্তির বিরুদ্ধে তার আইনি উদ্যোগটি বিচারাধীন বলেও জানান। প্রার্থিতা সংক্রান্ত আলাপের এক পর্যায়ে তিনি প্রার্থীর বদলে নির্বাচনী সমন্বয়ক হতে চান। তবে জাতীয় নির্বাহী কমিটির বৈঠকের পর তাকে আবারও ডেকে পাঠান খালেদা জিয়া। সেখানে খালেদা জিয়া আবারও প্রার্থিতা নিয়ে তার মতামত জানতে চাইলে যথারীতি নিজের অনাগ্রহের কথা জানান তিনি। তবে তাকে সিদ্ধান্ত পর্যালোচনার কথা বলেন খালেদা জিয়া।

এদিকে ডিসিসি নির্বাচন নিয়ে রাজধানীর প্রভাবশালী রাজনীতিক ও সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার নীরবতাকে মানতে পারছেন না কেউ। দলের নেতাকর্মী-সমর্থকদের মধ্যে কাজ করছে হতাশা। অস্বস্তিতে পড়েছেন সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। কারণ তার সমর্থন ও সহযোগিতা ছাড়া ডিসিসি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা মোটেই সহজসাধ্য হবে না কারও। নগর বিএনপি’র আহ্বায়ক তিনি। যুগ্ম আহ্বায়কদের বেশির ভাগই ডিসিসিভুক্ত আসনের সাবেক এমপি ও ডিসিসি’র কমিশনার। রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক কর্মকাণ্ডে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের কারণে তারা চাইছেন সাদেক হোসেন খোকা নির্বাচন করুক। অন্যদের পক্ষে রাজধানীর নানামুখী রাজনৈতিক ধারার সমন্বয় সাধন ও নানা মেজাজের মানুষের সমর্থন আদায় হবে দুরূহ। অন্যদিকে, নগর বিএনপি নেতাকর্মীদের মতে, ঢাকা মহানগর বিএনপি’র রাজনীতিতে সাদেক হোসেন খোকার বিকল্প হয়ে উঠতে পারেনি কেউ। ফলে এখনও নগরের সর্বত্র তার আহ্বান এবং নির্দেশনাই প্রাধান্য পায়। কারণ রাজধানীর সবকিছুই তার নখদর্পণে। এমন অবস্থায় তিনি মেয়র প্রার্থী না হলে মহাজোট প্রার্থীদের সঙ্গে ভোটের সার্বিক পরিস্থিতিতে টিকে থাকা অনেক কঠিন হবে। তাছাড়া ঢাকার মতো মেট্রোপলিটন সিটিতে অনভিজ্ঞ কারও উপর আস্থা রাখতে অনেক ভাববে নগরবাসী। নেতাকর্মীরা জানান, সাদেক হোসেন খোকা ডিসিসি দক্ষিণে প্রার্থী হলে তার রেশ ধরে ডিসিসি উত্তরে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীও বিশেষ সুবিধা পাবেন। কিন্তু যাকে নিয়ে এত আলোচনা তিনি মোটেই রাজি নন বিভক্ত সিটির প্রতিনিধিত্বে। উল্টো সাবেক বাম নেতা ও লালবাগের সাবেক এমপি হারুনুর রশীদের নাম প্রস্তাব করেছেন তিনি। নিরুৎসাহিত করেননি তার মানিকজোড় হিসেবে খ্যাত নগর বিএনপি’র সদস্য সচিব ও সাবেক ডেপুটি মেয়র আবদুস সালামকে। সাবেক ছাত্রনেতা ও বিএনপি’র আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপনকেও দিয়েছেন উৎসাহ।
তবে দলীয় সূত্রে জানা গেছে, অন্য কথা। ঢাকা দক্ষিণের প্রার্থী হিসেবে সাদেক হোসেন খোকাই বিএনপি’র প্রথম পছন্দ। তাকে নির্বাচনে রাজি করাতে চেষ্টা করছেন দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতা। এমনকি চিকিৎসার উদ্দেশ্যে সিঙ্গাপুর যাওয়ার আগে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবসহ কয়েকজন সিনিয়র নেতার কাছে খোকাকে প্রার্থী হিসেবে পছন্দের কথা জানিয়েছেন খোদ খালেদা জিয়া। এমনকি রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বিভেদ ভুলে থাকার ইঙ্গিত দিয়েছেন ঢাকার সাবেক মেয়র এবং দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। দলের মহাসচিবসহ সিনিয়র নেতাদের খালেদা জিয়া এ ইঙ্গিতও দিয়েছেন যে, দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতারা আগ্রহী না হলে বিশিষ্ট দুই নাগরিককে সমর্থন দেয়া যায় কিনা। এখন তারই আলোকে নানামুখী দৌড়ঝাঁপ চলছে। তবে খালেদা জিয়া দেশে ফেরার পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বিএনপি। সরাসরি নির্বাচনে যাচ্ছে নাকি পরোক্ষ সমর্থন দেবে পছন্দের প্রার্থীকে। আর সে অপেক্ষার সঙ্গে রাজনৈতিক মহলে পাল্লা দিয়েছে বাড়ছে কৌতূহল। শেষ পর্যন্ত কি রাজি হবেন সাদেক হোসেন খোকা?

মানবজমিন

Leave a Reply