সিদ্ধান্তহীনতায় হাবিব

ন্যান্সির ‘রঙ’ প্রকাশের পর অনেকটা সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন হাবিব। নতুন প্রজেক্ট নিয়েই তার এই সিদ্ধান্তহীনতা। কথা ছিল পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ন্যান্সির একক ‘রঙ’ ফিজিক্যালি প্রকাশের পর আবারও মন বসাবেন রিমেক গানে। লন্ডন প্রবাসী কায়া-হেলালকে নিয়ে আবারও তৈরি করবেন ভাটি অঞ্চলের গানের ট্রাডিশনাল ফোক রিমেক অ্যালবাম। যেমনটা করেছিলেন ক্যারিয়ারের শুরুতে ‘কৃষ্ণ’ এবং ‘মায়া’ অ্যালবাম দুটি দিয়ে। ফোক রিমেকে ফের ফিরে আসার এই তাগিদ হাবিব অনুভব করেছেন মাস ছয়েক ধরে। অর্থাৎ নিজের একক ‘আহ্বান’ (মে ২০১১) প্রকাশের পরে এবং ন্যান্সির ‘রঙ’ প্রকাশের আগের কথা। সে সময়, অর্থাৎ গেল বছরের শেষের দিকে এবং চলতি বছরের প্রথম দিকে হাবিব বলেছিলেন, কায়া-হেলালের কণ্ঠে এখনও আমার অনেক গান করা বাকি। কারণ এখনও আমাদের হাতে সিলেট অঞ্চলের অসংখ্য ফোক গান রয়েছে। এর মধ্যে লালন সাঁই, হাছন রাজা আর শাহ্‌ আবদুল করিম ছাড়াও অনেক বাউল সাধকের গান সংগ্রহ করেছি আমরা।

এর মধ্যে অনেক গান হাফ-ডান হয়ে আছে। নতুন করে ঘষামাজা দিলেই হবে। তাই ন্যান্সির অ্যালবামটি শেষ করেই আমি আবারও হাত দিচ্ছি রিমেক গানে। আর সঙ্গে থাকছে আমার ক্যারিয়ারের প্রথম দুই প্রদীপ বন্ধু কায়া এবং হেলাল। মৌলিক গানের চলমান চকচকে ক্যারিয়ারের ফাঁকে আবারও রিমেক গান করার পক্ষে হাবিবের আরও যুক্তি ছিল এমন- আমি যদি কোন গান হৃদয় থেকে শতভাগ ফিল করে থাকি সেটা হলো বাংলা ফোক গান। বিশেষ করে সিলেট অঞ্চলের গানতো আমার রক্তে মিশে গেছে। এই ফোক রিমেক গান করেই আজ আমি হাবিব হিসেবে দাঁড়িয়ে আছি। সো ফোক রিমেক কাজ আমি করবোই। ফোক রিমেক গান সম্পর্কে নিজের এমন ভালবাসা প্রকাশের বিপরীতে আরেকটি নতুন সিদ্ধান্ত নিলেন হাবিব। সেটা মাস দেড়েক আগে ন্যান্সির ‘রঙ’ প্রকাশের পর।

হুট করেই হাবিব মানবজমিনকে জানান, আবারও তিনি নিজের একটি একক করার কথা ভাবছেন। যা মুক্তি দিবেন চলতি বছরের শেষ দিনে। অর্থাৎ ১২-১২-১২ তারিখে। কারণ এমন জাদুকরি তারিখ শতবছরে একবারই আসে। তিনি যুক্তি হিসেবে আরও বলেন, আসলে ১২ তারিখ আমার জন্য অনেক ভাগ্যবান একটি সংখ্যা। কেন ভাগ্যবান- সেটা জিজ্ঞেস করবেন না প্লিজ। আর এ জন্যই অসাধারণ এই তারিখটিতে আমি আমার নতুন একক প্রকাশ করতে চাই। মাত্র মাস তিনেকের ব্যবধানে হাবিবের রিমেক এবং মৌলিক কেন্দ্রিক সিদ্ধান্তহীনতা স্পষ্ট হলেও কারণটা স্পষ্ট হলো না তখন। তবে চলতি সপ্তাহে এসে হাবিব তার এই সিদ্ধান্তহীনতার কারণ ব্যাখ্যা করেন মানবজমিনের কাছে। তিনি বলেন, আসলে সিদ্ধান্তহীনতার কিছু নেই। চলতি পথে তো অনেক সিদ্ধান্তই নেই। অনেক স্বপ্নই দেখি। সবকিছুতো আর ঠিকঠাক সময়মতো পূর্ণ করা সম্ভব নয়। তবে এটা সত্যি কথা একটা ফোক রিমেক অ্যালবাম করার জন্য মনটা অনেকদিন ধরেই উদাস হয়ে আছে। সেই ক্ষুধা মেটাবার জন্য গেল বছর একটি মিশ্র অ্যালবামে শাহ আবদুল করিমের গানটি করলাম। ‘কেন পিরিতি বাড়াইলারে বন্ধু’ শিরোনামের সেই গানটি আমাকে দু’হাত ভরে দিয়েছে নতুন করে।

তাছাড়া বন্ধু কায়া-হেলালেরও আবদার আছে নতুন করে কাজ করার। শ্রোতারাও চায় ওদের গান। এসব ভাবনা থেকেই বলেছিলাম রিমেক করবো। তবে এখন এসে দেখলাম চাইলেই আর যে কোন গান রিমেক করা সম্ভব নয়। কপিরাইট কেন্দ্রিক জটিলতা থেকে যায়। আমি যাদের গান করতে চাই তারা কেউ আর বেঁচে নেই। থাকলে এই জটিলতা হতো না। এখন উনাদের অসংখ্য উত্তরসূরি রয়েছেন। ফলে গানের কপিরাইট, রয়্যালটি কিংবা অনুমোদন কেন্দ্রিক বিষয় নিয়ে এত অগণিত উত্তরসূরির সঙ্গে আলাপ করাটা অনেক কঠিন কাজ হবে। তাই নতুন করে রিমেক করার খেই হারিয়ে ফেলেছি। অন্যদিকে ১২-১২-১২ তারিখের জন্য মৌলিক গানের একক অ্যালবাম প্রসঙ্গে হাবিব বলেন, তাড়াহুড়া করে তো কাজ করতে পারি না। সমস্যা এখানেই। তা না হলে প্রচণ্ড ইচ্ছে এখনও আছে ওই বিশেষ তারিখে একটি অ্যালবাম প্রকাশের। আসলে ‘রঙ’ প্রকাশের দেড়-দু’মাস হয়ে গেলেও এখনও আমি ঠিক করতে পারিনি আমার নতুন প্রজেক্ট। এর মধ্যে আশা করছি ঠিক করে ফেলবো। এদিকে নতুন অ্যালবাম নিয়ে গেল মাস দুই ধরে হাবিব সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগলেও নিয়মিত কাজ করছেন বিজ্ঞাপন জিঙ্গেলের। তবে এ বছরেও তার চলচ্চিত্রে কাজ করার ইচ্ছে নেই।

মাহমুদ মানজুর: মানবজমিন

Leave a Reply