পদ্মা সেতুর কাজ শুরু নভেম্বরে: অর্থমন্ত্রী

আগামী নভেম্বরের মধ্যে দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো প্রকল্প পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করা যাবে বলে আশা করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সোমবার মন্ত্রণালয়ে এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্ট জিয়াওইয়ু ঝাওয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে অর্থমন্ত্রী বলেন, “আগামী নভেম্বরে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করা হবে এবং অক্টোবরের মধ্যে সেতু নির্মাণে সব ধরনের চুক্তি সম্পন্ন হবে।”

“পদ্মা সেতু নির্মানে মালয়শিয়ার কাছ থেকে পিপিপি প্রস্তাব আশা করছি। এ প্রস্তাব পাবার পর জুনের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে”, যোগ করেন তিনি।

এর আগে ১৬ এপ্রিল মুহিত জানিয়েছিলেন, আগামী অক্টোবর মাসের মধ্যেই পদ্মা সেতুর কার্যাদেশ দেওয়া হবে।

মালয়শিয়ার প্রস্তাব গ্রহণযোগ্য হলেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, “বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতু প্রকল্পে থাকুক বা না থাকুক, এ বিষয়ে সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করবে বাংলাদেশ সরকার।”

মালয়শিয়ার প্রস্তাব পাবার পর এ প্রকল্পে অর্থায়ন নিয়ে দাতাদের সাথে সরকার আলোচনা করবে বলে তিনি জানান।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণে এর আগে বিশ্ব ব্যাংকসহ আরো কয়েকটি দাতা সংস্থার সঙ্গে ঋণচুক্তি করেছিল সরকার। ওই সময় প্রকল্প ব্যয় ধরা হয় ২৯০ কোটি ডলার।

তবে প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে গত সেপ্টেম্বরে অর্থছাড় স্থগিত করে বিশ্ব ব্যাংক। এর পর এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা (জাইকা) ও ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকও ঋণ সহায়তা ছাড় করেনি।

এ অবস্থায় গত ফেব্রুয়ারিতে এ প্রকল্পে আগ্রহ প্রকাশ করে মালয়শিয়া। গত ২৫ মার্চ মালয়শিয়ার মন্ত্রিসভা পদ্মা সেতুতে বিনিয়োগ প্রস্তাব অনুমোদন করে। এর ধারাবাহিকতায় গত ১০ এপ্রিল পদ্মা সেতু নির্মাণে মালয়শিয়ায় সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ।

মন্ত্রী জানান, মালয়শিয়ার প্রধানমন্ত্রী এডিবিকে প্রস্তাব দিয়েছে তাদের সঙ্গে যৌথভাবে পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে, এডিবি জানিয়ে দিয়েছে, বাংলাদেশের সাথে এ বিষয়ে সরাসরি চুক্তি রয়েছে তাই এটি সম্ভব নয়।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করে কোনো ধরনের দুর্নীতি পায়নি বলে মন্ত্রী দাবি করেন।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে জমি অধিগ্রহণ ও পূনর্বাসনে ১৫ শত কোটি টাকা ব্যয় হওয়া ছাড়া আর কোনো কাজ হয়নি উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, যেখানে কাজ শুরু হয়নি সেখানে দুর্নীতি কিভাবে হবে।

অর্থমন্ত্রী জানান, এডিবি প্রতিনিধির সঙ্গে পদ্মা সেতু ছাড়াও বাজেট সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এডিবির কাছে ৩০ কোটি ডলার সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

‘কালো টাকা দূর করা সহজ নয়’

রোববারের বাজেট নিয়ে এক মতবিনিময় সভা নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, “কালো টাকা নিমূল করতে পারব, এ রকম বোগাস স্টেটমেন্ট আমি করতে পারি না।”

‘কালো টাকা কোনদিনই চাই না’ মন্তব্য করে অর্থ মন্ত্রী জানান, এবার বাজেটে কালো টাকা সাদা করার বিষয়টি এখনো অনিশ্চিত।

দেশ থেকে কালো টাকা দূর করা সহজ কথা নয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, “যেখানে ট্যাক্স আছে সেখানে ট্যাক্স ফাঁকির বিষয়টিও থাকে।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply