মাদকে সয়লাব সিরাজদিখান

প্রশাসন নির্বিকার
গাঁজা-ফেনসিডিল ও হেরোইনের জন্য আর বাইরে যেতে হয় না মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলার মাদকসেবীদের। এখন হাত বাড়ালেই ওইসব পাওয়া যায় সিরাজদিখানে। কয়েকজন ভ্রাম্যমাণ মাদক ব্যবসায়ী গাঁজা-ফেনসিডিল-হেরোইন পেঁৗছে দিচ্ছে সেবনকারীদের কাছে। হাতের নাগালে হেরোইন পেয়ে স্কুল-কলেজের ছাত্র এবং উঠতি বয়সের যুবকসহ পল্লী চিকিৎসকরা পর্যন্ত আসক্ত হয়ে পড়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে পুলিশের কঠোর ভূমিকা না থাকায় হেরোইনসেবীর তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে বলে সচেতন মহল দাবি করেছে। বিভিন্ন সূত্রের প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, ঢাকা থেকে সিরাজদিখান উপজেলার রাজানগড়, শুলপুর ও তালতলা বাজারে গাঁজা-ফেনসিডিল-হেরোইন এনে মজুদ করে কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী। সেখান থেকে বিভিন্ন পণ্যের কার্টনসহ বিভিন্ন মাধ্যমে নির্দিষ্ট এলাকায় মরণ নেশা পেঁৗছে দেওয়া হচ্ছে। ওইসব মাধ্যমে সিরাজদিখান শহরে গাঁজা-ফেনসিডিল হেরোইন এনে বিক্রি করছে কয়েকজন যুবক। এ যুবকরা ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতা হিসেবে তাদের নির্ধারিত সেবনকারীদের কাছে গাঁজা-ফেনসিডিল ও হেরোইন বিক্রি করছে।

এর মধ্যে শহরের উপজেলা পরিষদ ও তালতলা বাজারে এলাকায় বর্তমানে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ হেরোইন বিক্রি হচ্ছে বলে সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। এ ছাড়া শহরের মালখানগড় লঞ্চ ঘাট, ফুরসাইল, শুলপুর, রাজানগড়, সৈয়দপুর বেবিস্ট্যান্ড, বরাম বাজার, রাজদিয়া এলাকা, ইছাপুরা পশ্চিমপাড়া, ইছাপুরা বাজার চত্বর এবং সিরাজদিখান ভূমি অফিস এলাকায় বসেই গাঁজা-ফেনসিডিল-হেরোইন পাওয়া যাচ্ছে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক সিরাজদিখান উপজেলা শহরের এক স্কুলশিক্ষক জানান, শহরের কয়েকজন স্কুল ও কলেজের ছাত্র ফেনসিডিল ও হেরোইনে আসক্ত হয়ে পড়েছে। তাদের সঙ্গে উঠতি বয়সের যুবকরাও পিছিয়ে নেই। সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আশ্রাফুল আলম জানান, হেরোইনসহ যে কোনো মাদকই মানুষকে আস্তে আস্তে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। নতুন প্রজন্ম ও সুস্থ জীবনের জন্য মাদককে পরিহার করতে হবে। সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি প্রশাসন) শেখ মাহবুবুর রহমান বলেন, সিরাজদিখানে হেরোইন বিক্রির বিষয়টি তার জানা ছিল না। তিনি বলেন, তবে যে কোনো মাদকদ্রব্যের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ডেসটিনি

Leave a Reply