ক্রাউন সিমেন্ট কারখানায় ১৫ লাখ টাকা জরিমানা

কাজী দীপু: দেশের অন্যতম বৃহৎ সিমেন্ট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এম আই সিমেন্ট লিমিটেডকে (ক্রাউন সিমেন্ট) মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর এলাকায় বায়ু দূষণের দায়ে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) মুনির চৌধুরী মঙ্গলবার কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালককে এ জরিমানা করেন। একইসঙ্গে ৭দিনের মধ্যে বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেন তিনি।

পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, এর আগে পরিবেশ অধিদপ্তরের বায়ু মান পরীক্ষা কার্যক্রমে এ কারখানায় Suspended Particulate Matter (SPM) পাওয়া যায় (২৭২৭ মাইক্রোগ্রাম/ঘনমিটার এবং ১১১৩ মাইক্রোগ্রাম/ঘনমিটার)। বায়ু দূষণের এ মাত্রা পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে গ্রহণযোগ্য মাত্রার বাইরে (আদর্শ মাত্রা ৫০০ মাইক্রোগ্রাম/ঘনমিটার)।

সিমেন্ট কারখানার ক্লিংকার লোড-আনলোডসহ সার্বিক উৎপাদন কার্যক্রমে ব্যাপক বায়ু দূষণ ঘটে। বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে সিমেন্ট কারখানা লাল শ্রেণীভুক্ত প্রতিষ্ঠান। বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সিমেন্ট কারখানায় ডাস্ট কালেক্টরসহ দূষণ নিরোধক যন্ত্রপাতি ব্যবহার বাধ্যতামূলক।

কিন্তু ক্রাউন সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নেওয়ায় এ বায়ু দূষন ঘটে। যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ। জীববৈচিত্র্যের ক্ষতিসহ পরিবেশ ও প্রতিবেশের জন্য প্রতিকূল।

কারখানার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের পক্ষে মহাব্যবস্থাপক গোলাম মোহাম্মদসহ দু’জন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিবেশ অধিদপ্তরে উপস্থিত হয়ে জরিমানা মওকুফ এবং কারখানার ত্রুটি সংশোধনের জন্য এক মাস সময় প্রার্থনা করেন।

কারখানা কর্তৃপক্ষের এ আবেদন নাকচ করে পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে সব নির্দেশনা পালনের কঠোর নির্দেশ দেওয়া হয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
=================

বায়ু দূষনের দায়ে ক্রাউন সিমেন্টকে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : সদর উপজেলার পশ্চিমমুক্তারপুরস্থ ক্রাউন সিমেন্ট করাখানায় বায়ু দূষণের দায়ে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) মুনির চৌধুরী মঙ্গলবার কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালককে এ জরিমানা করেন। একইসঙ্গে ৭দিনের মধ্যে বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেন তিনি।

পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, এর আগে পরিবেশ অধিদপ্তরের বায়ু মান পরীক্ষা কার্যক্রমে এ কারখানায় এসপিএম(সাসপেন্ডেন্ড পার্টিকুলেট মিটার) পাওয়া যায় ২৭২৭ মাইক্রোগ্রাম/ঘনমিটার এবং ১১১৩ মাইক্রোগ্রাম/ঘনমিটার। বায়ু দূষণের এ মাত্রা পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে গ্রহণযোগ্য মাত্রার বাইরে (আদর্শ মাত্রা ৫০০ মাইক্রোগ্রাম/ঘনমিটার)।

সিমেন্ট কারখানার ক্লিংকার লোড-আনলোডসহ সার্বিক উৎপাদন কার্যক্রমে ব্যাপক বায়ু দূষণ ঘটে। বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে সিমেন্ট কারখানা লাল শ্রেণীভুক্ত প্রতিষ্ঠান। বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সিমেন্ট কারখানায় ডাস্ট কালেক্টরসহ দূষণ নিরোধক যন্ত্রপাতি ব্যবহার বাধ্যতামূলক। কিন্তু ক্রাউন সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নেওয়ায় এ বায়ু দূষন ঘটে। যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ। জীববৈচিত্রের ক্ষতিসহ পরিবেশ ও প্রতিবেশের জন্য প্রতিকূল। কারখানার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের পক্ষে মহাব্যবস্থাপক গোলাম মোহাম্মদসহ দু’জন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিবেশ অধিদপ্তরে উপস্থিত হয়ে জরিমানা মওকুফ এবং কারখানার ত্রুটি সংশোধনের জন্য এক মাস সময় প্রার্থনা করেন। কারখানা কর্তৃপক্ষের এ আবেদন নাকচ করে পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে সব নির্দেশনা পালনের কঠোর নির্দেশ দেওয়া হয়।

মুন্সীগঞ্জ পরিবেশ অধিফতরের সহকারী-পরিচালক সোনিয়া সুলতানা জানান, এর আগে ফেব্রুয়ারিতে তাদের নোটিশ করে সর্তক করা হয়েছিল।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply