প্রত্যয়ী বাদল চাকলাদার

রাহমান মনি
দিনবদলের স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশিরা পাড়ি জমান প্রবাসে। বিভিন্ন প্রতিকূলতায় কেউ হন নিঃস্ব, আর সততা নিষ্ঠা এবং একাগ্রতায় কেউবা জয় করেন বিশ্ব। কর্মস্পৃহায় নিজে দমে না থাকলেও হাসি ছড়ান পরিবারে, উপকার করেন নিকটাত্মীয় তথা দেশবাসীর। সেই সঙ্গে ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেন বাংলাদেশের। কারণ একজন প্রবাসীর কুকর্মে যেমন বাংলাদেশের সুনাম নষ্ট হয় তেমনি একজন প্রবাসীর সাফল্যেও দেশের মুখ উজ্জ্বল হয়। কারণ প্রতিটি প্রবাসীই স্ব স্ব ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রতিনিধত্ব করে থাকেন। কাজেই তার সাফল্য মানে বাংলাদেশের সাফল্য। তেমনি কিছুসংখ্যক জাপান প্রবাসীর সাফল্যের কথা সাপ্তাহিক পাঠককুলকে জানান দেয়াই এই প্রতিবেদনের লক্ষ্য।

ইতোমধ্যে এনকে ইন্টারন্যাশনাল এর সিইও এমডিএস ইসলাম নান্নু এবং রিও ইন্টারন্যাশনাল এর সিইও হিমু ইসলামের সাফল্যের কথা জেনেছি। এই পর্বে সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি হাজির হয়েছিলেন জাপান প্রবাসী এক সফল ব্যবসায়ী জনাব বাদল চাকলাদারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পদ্মা কো. লি. এর কার্যালয়ে। এই পর্বে বাদল চাকলাদারের সাফল্যের কথা পাঠকদের কাছে তুলে ধরব।

বাদল চাকলাদারের নামটির সঙ্গে হয়ত জাপান প্রবাসীরা সকলে পরিচিত নন। কিন্তু বাদল চাকলাদারের প্রতিষ্ঠিত এবং তার দ্বারা পরিচালিত পদ্মা কোম্পানির হালাল ফুড বিশেষ করে জাপানে দেশীয় মিঠা পানির মাছ, রাঁধুনির স্পাইস মানেই যে পদ্মা কোম্পানির তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাইত প্রবাসীরা হালাল ফুড শপগুলোতে প্রথমেই জানতে চান, ভাই মাছগুলো কি পদ্মার?

মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার জৈনসার ইউনিয়নের শাসনগাঁও গ্রামের এক তরুণ বাদল। পিতামৃত হাজী রমিজ উদ্দিন চাকলাদার এবং মাতা হাছিনা বানুর ৮ সপ্তানের (৪ ছেলে ৪ মেয়ে) মধ্যে বাদল তৃতীয়, তার বড় এক ভাই এবং এক বোন রয়েছেন। অনেকটা তারুণ্যের উদ্দীপনা থেকে ফুফাত ভাই মোঃ ফারুকের হাত ধরে জাপান আসা। তখন জাপান আসতে দূতাবাস থেকে পূর্বে ভিসা নেয়ার প্রয়োজন হত না। এয়ারপোর্ট থেকে ভিসা পাওয়া যেত। পূর্ব অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ফুফাত ভাই ফারুক জাপান আসার জন্য উদ্বুদ্ধকরণে সাত পাঁচ না ভেবেই জাপান চলে আসেন তিনি। এক বছর থেকে কাজকর্ম করে আর মন টিকাতে না পেরে চলে যান চিরচেনা বিক্রমপুরে। বাদল চাকলাদার নিজেকে বিক্রমপুরের লোক পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। জাপানস্থ মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির তিনি প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আজও দায়িত্ব পালন করছেন।

কিছুদিন দেশে থাকায় মনটা কেন যেন জাপানের জন্য ছটফট করছিল। তারুণ্য বলে কথা, ১৯৮৭ সালে তিনি নিজে নিজেই আবার জাপান চলে আসেন। এবার জাপানে থাকার মনস্থির করেই অনেকটা কোমর বেঁধেই এসেছিলেন। এসেই ভাষা শিক্ষা কোর্সে ভর্তি হন। দুই বছর সাফল্যের সঙ্গে ভাষা শিক্ষা কোর্স সমাপ্ত করেন।

ভাষা শিক্ষা কোর্স করার সময় পার্টটাইম কাজ করে নিজের খরচ মিটানোর পর জমাকৃত অর্থ দিয়ে টোকিওর কাৎসুসিকা-কু কানামাচিতে পদ্মা (চধফসধ) নামে একটি রেস্টুরেন্ট দিয়ে ব্যবসায়ীর খাতায় নাম লিখালেও নিজের ব্যস্ততা, পড়াশুনা, ভিসা ঠিক রাখার জন্য নিয়মিত ক্লাস করার জন্য নিজে সময় দিতে না পারায় একান্ত নিজস্ব লোক দিয়ে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা চালিয়ে যেতে থাকেন। এমন কি নিজে নাগোয়াতে থাকাকালীন সময়েও। সপ্তাহান্তে নিজে এসে দেখাশুনা করতে থাকেন। কিন্তু নিজের ব্যবসা নিজে লেগে না থাকলে যেমনটি হয় বাদল চাকলাদারেরও তাই হচ্ছিল। ইতোমধ্যে জাপানে প্রবাসীদের সংখ্যাও বাড়তে থাকে। বাড়তে থাকে পরিবার নিয়ে বসবাস করা লোকজনের সংখ্যা।

রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করার সময় পরিচিত হন কানদা কাজুমি নামক এক জাপানিজ তরুণীর সঙ্গে। মিস্ কাজুমি প্রায়শই পদ্মাতে খাবার খেতে আসতেন। পদ্মার খাবারের প্রেম থেকে এক পর্যায়ে পদ্মার মালিকের প্রেমে পড়েন মিস্ কানদা কাজুমি। অনেকটা পরিচয় থেকে পরিণয় টাইপের।

একজন থেকে দুইজনে পরিণত হন। জাপানেও প্রবাসী পরিবার বেড়ে যাওয়া মুসলিমদের সংখ্যা বেড়ে যায়। তার সঙ্গে যোগ হয় ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কান মুসলিমসহ আফ্রিকান কিছু দেশ থেকে আগত মুসলিম। হালাল ফুড খাওয়া তাদের জন্য দুর্লভ একটি বিষয়ে পরিণত হয়। যদিও হালাল ফুড ব্যবসা ইতোমধ্যে পাকিস্তানিরা নিজেদের কব্জায় নিয়ে রেখেছে। বাঙালিরা যা করছে তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। বন্ধুদের পরামর্শে এবং চাহিদার কথা চিন্তা করে রেস্টুরেন্ট ব্যবসার পাশাপাশি সাইড ব্যবসা হিসেবে হালাল ফুড ব্যবসা শুরু করেন বাদল চাকলাদার। হালাল ফুড বলতে কেবল মাত্র মাংস হালাল তা কিন্তু নয়। একই সঙ্গে বিভিন্ন স্পাইস, দেশি পত্রপত্রিকা, ম্যাগাজিন, বাংলাদেশের টিভি নাটক, সিনেমা, হিমায়িত মাছ, হিমায়িত সবজি, টেলিফোন কার্ডসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী সব কিছুই রাখা হয় দোকানে। অনেকটা ছোটখাটো ডিপার্টমেন্টাল (খাদ্য সামগ্রীর) বা শপিং মলও বলা যায়।

হালাল ফুড ব্যবসা শুরুর পর চোখ খুলে যায় বাদল চাকলারের। এ যেন ভাগ্যবিধাতা ফিরে তাকিয়েছেন তার দিকে। ১৯৯১ সালে হালাল ফুড ব্যবসা শুরু করলে চারিদিকে পদ্মা হালাল ফুডের নাম ছড়িয়ে পড়ে। আশপাশের হালাল ফুড শপগুলো থেকে বিভিন্ন মালামাল চেয়ে অর্ডার আসতে থাকে। দুটি ব্যবসা চালানো কষ্টসাধ্য এবং হালাল ফুড ব্যবসা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেতে থাকলে ১৯৯২ সালে রেস্তোরাঁ ব্যবসা বন্ধ করে কেবল হালাল ফুড ব্যবসা এবং হোলসেলার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন বাদল চাকলাদার।

ইতোমধ্যে কানদা কাজুমি পরিণয়সূত্রে কাজুমি চাকলাদার পদবি গ্রহণ করে শুধু জীবন সঙ্গিনী হিসেবেই অর্ধাঙ্গিনীর দায়িত্বে না থেকে পাশাপাশি ব্যবসায়ের খুঁটিনাটি বিশেষ করে জাপানি অফিসিয়াল বিষয়গুলো দেখাশুনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এরপর থেকে বাদল চাকলাদার দম্পতিকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি।

লোকে বলে সাফল্য যখন আসে তখন চারিদিকেই আসতে থাকে। যেমনটি এসেছে চাকলাদার দম্পতির প্রথম সন্তান ১৯৯৩ সালে। এরপর ১৯৯৫ এবং ২০০৪। জনাব বাদল চাকলাদার ৩ পুত্র সন্তানের গর্বিত পিতা। তার প্রথম ছেলে এ বছর এপ্রিল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবন শুরু করবে।

কাজুমি চাকলাদার প্রথম বাংলাদেশ যান ১৯৯৭ সালে। তখন ২ শিশু সন্তান নিয়ে ঢাকাতে মূলত অবস্থান করলেও বিক্রমপুর গমন করেন এবং বিক্রমপুরের সবুজ শ্যামল দৃশ্য আজও ভুলতে পারেননি। বিশেষ করে নববধূ হিসেবে এলাকাবাসীর উষ্ণ আতিথেয়তা তাকে বার বার বিক্রমপুরের শাসনগাঁও গ্রামে আজও হাতছানি দিয়ে ডাকে।

পদ্মা কোম্পানি লিমিটেড এখন ওকিনাওয়া থেকে হোক্কাইডো অর্থাৎ সমগ্র জাপানব্যাপী পরিচিত এক ব্রান্ডের নাম। হালাল ফুডগুলোতে হোলসেল ছাড়াও বিভিন্ন অর্ডারের মাধ্যমেও মালামাল সরবরাহ করে থাকেন। এ জন্য রয়েছে হিগাসি কানামাচিতে বিক্রয় কেন্দ্র। অনলাইন শপ হিসেবেও মাত্র একটি ক্লিক এর মাধ্যমে জেনে নেয়া যাবে বিস্তারিত তথ্য। িি.িঢ়ধফসধ-ঃৎ.পড়স সাইটটি পাওয়া যাবে পদ্মা হালাল ফুডস এর বিস্তারিত তথ্য।

বাদল চাকলাদার আমেরিকা, ব্রাজিল, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, মধ্যপ্রাচ্য সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, চীন, থাইল্যান্ড, মিয়ানমার, ইন্দোনেশিয়া প্রভৃতি দেশগুলো থেকে চিকেন, মসুরডাল, হোয়াইট চানা, চিংড়ি মাছ, তৈল, নুডুলস, পরোটা, মিঠা পানির মাছ, গ্রিন চিলি সরাসরি আমদানি করে থাকেন। পাকিস্তান এবং ভারত থেকে এক সময় পণ্য আমদানি করে থাকলেও এখন আর করেন না।

আলাপচারিতার এক পর্যায়ে বাদল চাকলাদার জানান যেখান থেকেই যা আমদানি করি না কেন সর্বাগ্রে অগ্রাধিকার আমার নিজ দেশ অর্থাৎ বাংলাদেশ। তিনি বলেন বাংলাদেশের রপ্তানিযোগ্য পণ্যের পরিচিত করানোটাও আমার দায়িত্ব। তাই আমি চেষ্টা করি বাংলাদেশ থেকে অধিক হারে পণ্য আমদানি করতে। বাংলাদেশের রাধুনি মসল্লার এজেন্ট তিনি।

বাংলাদেশের পণ্যের মধ্যে সর্বপ্রকার মাছ, মাংস, রসমালাই, বিভিন্ন কোম্পানির মিষ্টি, লাচ্ছা সেমাই, চানাচুর, মুড়ি, বাংলাদেশের ঘি, লুঙ্গি, টুপি, কসমেটিকস্ ছাড়াও রয়েছে ওয়াজের ক্যাসেট, ইসলামি গজল এবং বিভিন্ন সাহিত্য সামগ্রী।

বাদল চাকলাদার জাপানে অত্যন্ত সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে সকলের কাছে সমধিক পরিচিত। আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকলেও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে সর্বদা নিজেকে সক্রিয় রাখেন। বিভিন্ন ধর্মীয় আয়োজনে তার অংশগ্রহণ অনেকটা অনিবার্য। সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করেন তিনি। এসব কাজের জন্য পারিবারিকভাবে কোনো বাধা পাননি বলে তিনি জানান। বরং অনেকটা সহযোগীতাই পান। পারিবারিক দায়িত্ব পালনে তিনি যথেষ্ট সচেতন বলে জানান।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply