সিঙ্গাপুর থেকে ফিরেছেন নির্যাতিতা সালমা বেগম

৬০ বছরের বৃদ্ধার মাথার চুলগুলো কাটা। গলায় খুন্তির পোড়া দাগ। দু’হাতে কাঁচি দিয়ে খোঁচানো জখম। জখমের উপর লাঠির আঘাতের কালো মোটা দাগ। গরম পানিতে ঝলসে যাওয়া শরীরে সাদা কাপড়ের ব্যান্ডেজ। প্রবাসী দম্পতির নির্মম নির্যাতনে এ হাল হয়েছে সালমা বেগমের। স্বপ্ন নিয়ে সিঙ্গাপুর গেলেও সেখানে এ নির্যাতনের শিকার হন তিনি। স্বপ্ন ভঙ্গ আর শারীরিক নির্যাতন সঙ্গী করে দেশে ফেরার পর তার ঠাঁই হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। শুক্রবার রাতে তাকে ভর্তি করা হয় সেখানে। স্পষ্ট কথা বেরোয় না, মুখে জড়তা নিয়ে ফিসফিস করে বলেন, ‘আমার চুল কাটতে কাটতে বলে তোরে বাংলাদেশের কলঙ্কিনী বানাবো। এমুন দশা করমু কারও সামনে মুখ দেখাইতে পারবি না।’ এ নির্যাতনকারী প্রবাসী বাংলাদেশী মু. মাসুম ও তার স্ত্রী ডালিয়া। গৃহপরিচারিকা হিসেবে সিঙ্গাপুর যাওয়ার পর থেকেই তার ওপর চালানো হয় নির্মম নির্যাতন।

সালমা বেগমের গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাইকপাড়ায়। পার্শ্ববর্তী সিরাজদিখান থানার কুসুমপুর গ্রামের সিঙ্গাপুর প্রবাসী মু. মাসুম বিয়ে করেন একই গ্রামের আজিজ মৃধার মেয়ে ডালিয়াকে। বিয়ের পর তারা স্থায়ীভাবে সিঙ্গাপুর চলে যান। গৃহস্থালীর কাজের জন্য গত বছর শ্বশুর আজিজ মৃধার কাছে একজন পরিচারিকা চান মাসুম। আজিজ মৃধা পাশের বাড়ির বৃদ্ধা সালমা বেগমকে গৃহপরিচারিকা হিসেবে সিঙ্গাপুর যাওয়ার প্রস্তাব করেন। রাজি হন তিনি। মাসিক বেতন ধরা হয় ১০ হাজার টাকা। ডিসেম্বরের ৬ তারিখ সিঙ্গাপুর যান সালমা বেগম। সাড়ে চার মাস কাজ করে বেতন পান দু’মাসের।

সিঙ্গাপুর যাওয়ার পরই সমস্যার শুরু। বয়স বেশি হওয়ায় ঠিকমতো কাজ করতে পারেন না সালমা বেগম। প্রথম কয়েক দিন চলে বকাবকি-ধমকাধমকি। তারপর শুরু হয় শারীরিক নির্যাতন। রান্না ভাল হয় না, খাবারে চুল পাওয়া যায়, কাজ ভাল না, কথা শোনে না- এমন নানা অজুহাতে চলে মারধর। মাসুম প্রায়ই খুন্তি গরম করে ছেঁকা দিতেন তাকে। কাঁচি দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে জখম করেন দু’হাত। খাবারে চুল পাওয়া যায়- এ অপরাধে মাসখানেক আগে তার মাথার চুল কেটে দেয়া হয়। দিন পনেরো আগে রান্নাঘরে কাজ করার সময় তার শরীরে গরম পানি ঢেলে দেন ডালিয়া। এতে পুড়ে যায় পুরো শরীর। তিনি চিৎকার করলে মারধর করা হয়। পোড়া শরীর নিয়ে রান্না করতে বাধ্য করেন মাসুম। প্রায় ১৫ দিন বিনাচিকিৎসায় কাটে সিঙ্গাপুরে। অবস্থার অবনতি হলে ২৫শে এপ্রিল বুধবার দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়। দেশে আসার পরও চলে লুকোচুরি। নির্যাতনের খবর ধামাচাপা দিতে সালমা বেগমকে ঘরে আটকে রাখেন মাসুমের শ্বশুর আজিজ মৃধা। কিন্তু গ্রামের মানুষ জেনে ফেলে ব্যাপারটা। পরে তাদের চাপে সালমা বেগমকে শুক্রবার রাতে নিয়ে আসা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সালমা বেগম বলেন, ‘সারা শরীরে মারছে আমারে। জামাই বউ দুইজন মিল্লা পিডাইছে।’ তিনি বলেন, ‘জামাই বেশি মারত। কাজ হয় না বলে, লাডি দিয়া পিডাইত।’ মু. মাসুমের শ্বশুর আজিজ মৃধা বলেন, ‘আমার জামাইর এমন মারধর করাটা খারাপ হইছে। দেখেন আমি নিজে তারে হাসপাতালে নিয়া আইছি। চিকিৎসার সব খরচ দিতেছি।’ তিনি বলেন, ‘আমরা আত্মীয় স্বজন (আজিজ মৃধা ও সালমা বেগম)। এক গোষ্ঠীর। একসঙ্গে বইসা বিষয়টা ফায়সালা করমু।’ তবে সালমা বেগমের মেয়ে জামাই ডানিয়া ইসলাম ডানু অভিযোগ করে বলেন, আমার শাশুড়িকে নির্যাতনের জন্য দেশ থেকে উস্কানি দিয়েছে আজিজ মৃধা ও তার বউ। তিনি বলেন, তাকে বিনাচিকিৎসায় দেশে পাঠানো হয়েছে। পাওনা টাকা পর্যন্ত দেয় নাই। এখন তার কোন খোঁজখবরও নিচ্ছে না।

মানবজমিন

One Response

Write a Comment»
  1. Don’t spare them off. What a brutal activity, no one can accept such kind of horrific things. The lady need proper treatment. If needed any financial help , I could send some money for her. Those couple should be punished.

Leave a Reply