হুমকির মুখে মাওয়া লঞ্চঘাটের পার্কিং-ইয়ার্ড

কাল নতুন লঞ্চঘাটের উদ্ভোধন
মোজাম্মেল হোসেন সজল: পদ্মার ভাঙনে হুমকির মুখে পড়েছে প্রায় ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন বিআইডব্লিউটিএ’র মাওয়া লঞ্চঘাটের পার্কিং-ইয়ার্ডটি।তবে মাওয়া পুরাতন লঞ্চঘাটটি ফেরীঘাট এলাকা থেকে মাওয়া চৌরাস্তায় স্থানান্তরের লক্ষ্যে কাল শনিবার উদ্বোধন করার কথা থাকলেও শুরুতেই নদী ভাঙনের কারণে এ প্রকল্প নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। ঝড়ের মৌসুম শুরু না হতেই এরই মধ্যে নির্মাণাধীন এ পার্কিং -ইয়ার্ডের বেশ কিছু জায়গা নদী ভাঙনে বিলীন হয়ে গেলেও কর্র্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। একইসাথে ভাঙন দেখা দিয়েছে নতুন লঞ্চ পন্টুন এলাকাসমূহ।

জানা যায়, গত ৩০ জানুয়ারি রাতে সচিবালয়ে একটি বৈঠকের মাধ্যমে নৌ মন্ত্রণালয়ের গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাওয়া লঞ্চঘাটটি মাওয়া চৌরাস্তায় স্থানান্তরের লক্ষ্যে গত ১৪ ফেব্র“য়ারি বিআইডবিব্লউটিএ কর্তৃপক্ষ কাজ শুরু করে। এজন্য মাওয়া চৌরাস্তায় বালুর মাঠে বিআইডব্লি­উটিএ’র প্রকৌশল বিভাগের পূর্বে তৈরী করা প্রায় ৩-৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ব্রিক সোলিংসহ বালু দিয়ে ভরাটকৃত জায়গায় নির্মিত রাস্তার ইট তুলে ফেলা হয়। পুরো জায়গাটি ঘিরে সাড়ে ১২ লাখ টাকা ব্যয়ে সেখানে নির্মাণ করা হয় ডাইক।এরপর বিআইডব্লি­উটিএ’র ড্রেজিং বিভাগ সেখানে প্রায় ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ৬৫ হাজার ঘনমিটার অর্থাৎ২২ লাখ ৭৫ হাজার ঘনফুট পলি ভরাট করে ফিলিং করে।এর আগে এ স্থানে প্রায় ৯ হাজার ঘনমিটার পলি অর্থাৎ প্রায় ১২ লাখ টাকার পলি ভরাট করা হলেও সেগুলো বৃষ্টির পানিতে নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি অনেক বালু চুরি হয়ে যায়। পরবর্তীতে ঢাকা -মাওয়া হাইওয়ে রাস্তা সমান করে মাওয়া চৌরাস্তা বালুর মাঠের পুরো এলাকায় নির্মাণ করা হচ্ছে একটি পার্কিং-ইয়ার্ড।ডাইক প্রটেকশন,সংযোগ সড়ক, ব্রিক সোলিংসহ পার্কিং-ইর্য়াড নির্মাণের জন্য দরপত্র আহবান ও পরে লটারির মাধ্যমে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ফারুক হাওলাদার এণ্টারপ্রাইজকে নিয়োগ করে কর্তৃপক্ষ। আর এ কাজের জন্য নির্মাণ ব্যয় নির্ধারণ করা হয় ৮২ লাখ টাকা ।তবে প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার বর্গফুটের মধ্যে ৩৫ হাজার বর্গফুটের ২৮ হাজার ৬০০ বর্গফুট পার্কিং ইয়ার্ড ও ৬ হাজার ৪০০ বর্গফুটের সংযোগ সড়কের কাজ শেষ পর্যায়ে থাকলেও গত কয়েকদিনের মধ্যে মূল ডাইকের দক্ষিণ পূর্ব কোনায় ৪০ ফুট দৈর্ঘ্যরে বেড়াসহ ৫ ফুট প্রস্থ ডাইকের হ্যাট নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।এর আগে ৪০ ফুট দৈর্ঘ্যরে ৫০ ফুট ডাইক ছাড়া মাটিও পদ্মায় বিলীন হয়ে যায়। পার্কিং-ইয়ার্ড সংলগ্ন চা দোকানী স্থানীয় এলাকাবাসী সাগর আহমেদ, সোলায়মান, বলরাম দাস, জাকির হোসেনসহ অনেকেই জানান, ভাঙন স্থান থেকে সামান্য অদূরে পদ্মায় অনেক গভীর। আর ড্রেজিং করে পার্কিং-ইয়ার্ডের বালু পদ্মা থেকেই নেয়া হয়েছে। তাই এর পুরোটাই বালুমাটি। নদীভাঙনে নীচের বালুমাটি সরে যায় তাহলে পার্কিং-ইয়ার্ডটি নদীতে চলে যাওয়ার আশংঙ্কা রয়েছে। বর্তমানে পদ্মায় পানি কম থাকা সত্ত্বেও এখনই সামান্য ঝড়ো হাওয়ায় এ অবস্থা। সামনে বর্ষা মৌসুমে নদীতে পানি বৃদ্ধি পেলে তখন এটা নদীভাঙনে হুমকির মুখে পড়তে পারে।তাই জরুরী ভিত্তিতে এটা রক্ষায় শক্তিশালী সিসি ব্ল­ক দেয়া প্রয়োজন বলে তারা মনে করেন।

অপরদিকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী ফারুক হাওলাদার জানান, নৌ মন্ত্রী শাজাহান খান সরেজমিনে পার্কিং-ইয়ার্ডটির কাজের অগ্রগতি পরিদর্শনকালে ভাঙন স্থান দেখে তা রক্ষায় চট্টগ্রাম থেকে লাখ ৬৫ হাজার সিমেন্ট ব্যাগ আনার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন। তবে আপাতত:এখানে বল্লী ,ড্রামসীড,বাঁশ ও বালুর বস্তা দেওয়া হচ্ছে। এব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রাকিব হোসেন জানান, বালু মাটি হওয়ায় কিছু কিছু জায়গা ভাঙলেও ডাইক প্রটেকশনের জন্য ড্রামসীড, বাঁশ ও বল্লী ¯হাপনসহ বালুর বস্তা দেওয়া হবে। নৌ মন্ত্রী সরেজমিনে পার্কিং-ইয়ার্ডটির কাজের অগ্রগতি পরিদর্শনকালে ভাঙন দেখে তা রক্ষায় চট্টগ্রাম থেকে ১ লাখ ৬৫ হাজার সিমেন্ট ব্যাগ আনার যে প্রতিশ্র“তি তিনি দিয়েছেন সেটা আসতে অনেক সময় লেগে যেতে পারে। কেননা সেই সিমেন্ট ব্যাগগুলো এখনো চট্টগ্রাম শিপইয়ার্ডে কার্গোডুবির ঘটনায় পানির নীচে রয়েছে। সেগুলো প্রসেসিং হতে ও এখানে আনতে সময়ের ব্যাপার বলে সংশ্লি­ষ্ট সূত্রটি নিশ্চিত করেছে । উল্লে­খ্য-মাওয়া লঞ্চঘাটটি মাওয়া চৌরাস্তায় স্থানান্তরকে কেন্দ্র করে গত ২৭ জানুয়ারি ঢাকা-মাওয়া সড়ক ২ ঘন্টা অবরোধ করে লঞ্চঘাট কেন্দ্রিক ব্যবসায়ী , মাওয়া বাস পরিবহন মালিক সমিতিসহ স্থানীয় স্ট্রেক হোল্ডাররা।

এসময় বিআইডব্লি­উটিএ’র সহকারী পরিচালকসহ দু’জন কর্মকর্তা লাঞ্চিত হয়। পরে ৩০ জানুয়ারি রাতে সচিবালয়ে একটি বৈঠকের মাধ্যমে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীদের ও স্থানীয় স্ট্রেক হোল্ডারদের পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার আশ্বাসে মন্ত্রণালয়ের গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঘাট স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ। তবে শুরু থেকেই নৌ মন্ত্রণালয়ের এ সিদ্ধান্তকে আপত্তি জানিয়ে আসছিল যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের অধীন পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ।এদিকে-নবনির্মিত লঞ্চঘাটের পার্কিং ইয়ার্ডেবাস ধারণক্ষমতা প্রসঙ্গে এলাকাবাসী ও পরিবহন মালিকরা জানান, পুরো জায়গা নিয়ে কাজ করলে কমপক্ষে ২শ’ বাস রেখে চলাচল করতে পারবে। তবে এখন যে অংশ নিয়ে কাজ করা হচ্ছে তাতে ৫০টি বাসের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। তারা বলেন, লঞ্চঘাট নির্ভর ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে আমাদের ১০-১২ টি কাউন্টার ভিত্তিক লোকালসহ ২-২৫০ গাড়ী চলাচল করে থাকে। এ বিশাল পরিমাণ পরিবহনের জায়গার সংকুলান সেখানে হবে না। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বিআইডব্লিউটিএর এক উপ-সহকারী প্রকৌশলী জানান, ১০০ফুট বাই ৪০ ফুট সংযোগ সড়কসহ পার্কিং ইয়ার্ডে আপাতত কমপক্ষে ৬০-৭০টি’র বেশী বাস পার্কিংয়ের জায়গা করা হয়েছে। পরবর্তীতে পার্কিং এলাকা আরো বাড়বে। অপরদিকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী ফারুক হাওলাদার জানান, এখন কতটুকু বাসের জায়গা হবে তা বলতে পারবো না। তবে ১৫০টি বাসের ধারণ ক্ষমতা করার চিন্তা ভাবনা রয়েছে আমাদের ।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply