চিত্রনাট্যকার হাবিব ওয়াহিদ!

এ সময়ের আলোচিত সংগীত পরিচালক ও কণ্ঠশিল্পী হাবিব ওয়াহিদের চিত্রনাট্যে একটি চলচ্চিত্র নির্মিত হতে যাচ্ছে। সবাইকে অবাক করে দিয়ে বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদের পরিচালনায় নির্মিত ‘কুসুমপুরের গল্প’ চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্যের জন্য কলম ধরেছেন হাবিব ওয়াহিদ।

হাবিব অবশ্য এ ছবির চিত্রনাট্যের অংশীদার ঠিকই; কিন্তু সেটা ছবির শেষ ১৫ মিনিটের। ছবিটির চিত্রনাট্যের শেষ ১৫ মিনিটের পুরো ভাবনাটা হাবিব ওয়াহিদের। ছেলে হাবিব ওয়াহিদের চিত্রনাট্যে কুসুমপুরের গল্প চলচ্চিত্রের শেষ অংশের শুটিং করছেন ফেরদৌস ওয়াহিদ। তিনি জানিয়েছেন, ঢাকার অদূরে মানিকগঞ্জের ঘিওর এলাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে একটানা ১৪ দিন কাজ করে শেষ করা হবে কুসুমপুরের গল্প চলচ্চিত্রের পুরো শুটিং। টানা ১৪ দিনের এই শুটিংয়ে অংশ নিচ্ছেন নবাগত জুটি পলাশ-পুতুল ছাড়াও প্রায় এক ডজন শিল্পী।

মুঠোফোনে প্রথম আলো ডটকমকে ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, ‘কমাস বিরতির পর ৮ মে থেকে আবারও শুটিং শুরু করেছি। এবারে টানা কাজ করে শুটিং শেষ করব। তবে এখন আমরা যে লটের শুটিং করছি সেটা কিন্তু করার কথা ছিল না। হাবিবের পরামর্শের কারণেই শেষ পর্যায়ের এই বাড়তি শুটিং করতে হচ্ছে।’

ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, ‘চলচ্চিত্রটির পুরো গল্পটি হাবিবকে শোনানোর পর সে খুব প্রশংসা করে। কিন্তু পরক্ষণে সে বলে দর্শক চাহিদা কিংবা চমক রাখার জন্য ছবিটির শেষ ১৫ মিনিটের অংশে কিছুটা পরিবর্তন আনা গেলে ভালো হয়।’

ফেরদৌস ওয়াহিদ আরও বলেন, ‘হাবিব নিজেই আমাকে শেষ ১৫ মিনিটের গল্পটা ঠিক করে দেয়। গল্প সম্পর্কে ওর মতামতে আমি রীতিমতো মুগ্ধ। আসলেই শেষ ১৫ মিনিটে ও যে পরিবর্তনটা এনে দিয়েছে, তাতে পুরো চলচ্চিত্রেই দারুণ একটা চমক সৃষ্টি হয়েছে। তাই কুসুমপুরের গল্পের পুরো চিত্রনাট্য আর আমার একার নয়। এই চিত্রনাট্যের অংশীদার হাবিবও।’

জানা গেছে, ২২ তারিখ পর্যন্ত ঘিওর এলাকায় শেষ পর্যায়ের শুটিং করে আবার ফেরদৌস ওয়াহিদ মুখোমুখি হবেন ছেলে হাবিব ওয়াহিদের। ধারণ করা দৃশ্যগুলোর সম্পাদনার ক্ষেত্রেও ছেলে হাবিব ওয়াহিদের কাছ থেকে পরামর্শ নেবেন।

প্রথম আলো

Leave a Reply