মিডিয়া কর্মীদের সঙ্গে গোলটেবিল আলোচনা

রাহমান মনি
দৈনিক ভোরের কাগজ এবং দিনের শেষে সম্পাদক শ্যামল দত্ত, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নাঈম এবং ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব এশিয়ান ক্রিকেট উন্নয়ন কর্মকর্তা, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুলের জাপান সফর উপলক্ষে প্রবাসী মিডিয়াকর্মীদের সঙ্গে এক গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। জাপান প্রবাসী মিডিয়া দশদিক মিডিয়া কর্তৃক প্রকাশিত মাসিক দশদিক এই গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে। প্রবাসী মিডিয়ার প্রায় সব কর্মী অংশ নিয়ে সম্পাদকদ্বয় এবং তাদের প্রিয় বুলবুল ভাইকে কাছে পেয়ে বাংলাদেশের সামাজিক-সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ক্রীড়ায় সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়ে নানা ধরনের আলাপচারিতায় প্রায় চার ঘণ্টা সময় পার করে।
আলোচনায় সঞ্চালক ছিলেন দশদিক সম্পাদক সানাউল হক। প্রবাসী মিডিয়া কর্মী ছাড়াও প্রবাসী সমাজের বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত প্রবাসীদের মধ্য থেকে আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন এমডি এস ইসলাম নান্নু, বিপ্লব মল্লিক, বাদল চাকলাদার, নাসেরুল হাকিম, ড. শেখ আলীমুজ্জামান, কাজী ইনসানুল হক, আব্দুর রহমান, মোঃ আতিকুর রহমান, রাহমান মনি, শহিদুল ইসলাম, মীর রেজাউল করিম রেজা, নুর এ আলম, তানিয়া ইসলাম, আমিন শরীফ লিটন, জাকির হোসেন জোয়ার্দার, জাকির হোসেন মাছুম, শওকত হোসেন প্রমুখ।

আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ প্রবাসীদের বিভিন্ন বক্তব্য শোনার পর বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নাঈম নিজাম বলেন, বাংলাদেশ এখন অনেক এগিয়েছে। দাতা দেশগুলো একটা সময় আমাদের ধমক দিয়ে বিভিন্ন শর্ত জুড়ে দিত আমরাও তা মেনে নিতাম। কিন্তু স্বাধীনতার মাত্র ৪০ বছর বয়সে আমাদের অনেক উন্নতি হয়েছে। দাতা দেশগুলো এখন আর ধমকের সুরে কিছু বলতে পারে না। সমীহ করে কথা বলে। এটা সম্ভব হয়েছে প্রবাসীদের অবদানে। প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা রেখেছেন। কিন্তু তার পরও কেন যেন মনে হয় প্রবাসীদের কষ্টার্জিত টাকা অনেকটাই অপ্রয়োজনীয় খাতে ব্যবহৃত হচ্ছে। কোটি টাকা খরচ করে বাড়ির সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা হচ্ছে অথচ সেই বাড়িতে থাকা হয় না। কেবলই করার জন্য করা। এই টাকায় কলকারখানা বানালে কর্মক্ষেত্র তৈরি হতো।

তিনি বলেন, প্রবাসীদের সুযোগ দিলে প্রবাসীরা পদ্মা সেতুর মতো আরো অনেক বড় কাজ করতে পারবে। মেট্রো রেল, টানেল প্রবাসীরাই তৈরি করতে পারে। সেই সুযোগ দিতে হবে। টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাসে নেবার উইং করা হয়েছে যার কোনো দরকার নেই। এখানে দরকার একজন দক্ষ রাষ্ট্রদূত। যিনি বাংলাদেশকে তুলে ধরবেন। জাপান বাংলাদেশ জন্মলগ্ন থেকে উন্নয়নের অংশীদার। আইটিতে আমাদের ছেলেরা ভালো করছে। জাপান আইটিতে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। এই সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে। প্রবাসীরা পারে সে সুযোগ কাজে লাগাতে। সম্পাদক নাঈম নিজাম বলেন, নিজস্ব সঙ্কীর্ণতা ছাড়া মিডিয়া এখন স্বাধীন।

গোলটেবিল আলোচনায় সাবেক অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, প্রবাসীদের ভূমিকা যে কেবল বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সীমাবদ্ধ তা কিন্তু নয়। বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলে প্রবাসীদের অবদান সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমকে বিদেশের মাটিতে প্রবাসীরা যে কি রকম উৎসাহ দিয়ে থাকে তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না।

ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত বলেন, বাংলাদেশের মানুষই হচ্ছে বাংলাদেশের প্রাণ যেটা অন্য কোনো দেশে নেই। আবার বাংলাদেশের মতো বিভাজিত জাতি পৃথিবীর আর কোথাও নেই। এখানে ধর্ম নিয়েও বিভাজন হয়। কেউ বলে আল্লাহ হাফেজ, কেউ বলে খোদা হাফেজ, কেউ জয় বাংলা কেউবা বাংলাদেশ জিন্দাবাদ। জাতীয়তা নিয়েও রয়েছে বিভাজন। বাংলাদেশি না বাঙালি বিতর্ক তো আছেই। এগুলো আগে বন্ধ করতে হবে।

প্রবাসী মিডিয়া প্রবাসীদের ভোটাধিকার প্রয়োগ, রেমিট্যান্স প্রক্রিয়া সহজকরণসহ দ্রুত প্রাপ্তির নিশ্চিয়তা, দূতাবাসের অপেশাদারি কার্যকলাপ, রাজনৈতিক নেতাদের তোষণনীতি পরিহার, প্রবাসী সিআইপিদের মূল্যায়ন, প্রবাসীদের রাজনৈতিক দলাদলি পরিহারসহ বিভিন্ন বিষয়াদি গোলটেবিল আলোচনায় তুলে ধরেন।

জাপান প্রবাসীদের দাবি জাপানে এমন একজন পেশাদার দক্ষ কূটনীতিক নিয়োগ দেয়া হোক যিনি সবকিছুর ঊর্ধ্বে থেকে দেশ এবং প্রবাসীদের জন্য কাজ করবেন। কারণ জাপান এখন চায়না প্লাসওয়ান খুঁজছে। বাংলাদেশ সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারে। সুযোগ হাতছাড়া করা ঠিক হবে না। শ্রমবাজার তৈরি করতে হবে।

সব শেষে দশদিক মিডিয়া এবং সাদিয়াটেকের সৌজন্যে সকলকে নৈশভোজে আপ্যায়িত করা হয় এবং তার আগে অতিথিদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান দশদিক সম্পাদক সানাউল হক।

rahmanmoni@gmail.com


অতিথিদের সম্মানে নৈশভোজ

ত্রয়োদশ টোকিও বৈশাখী মেলা ২০১২ উপলক্ষে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত অতিথিদের সম্মানে জাপান প্রবাসী ব্যবসায়ী, পদ্মা কোম্পানি লিমিটেডের কর্ণধার বাদল চাকলাদার এক নৈশভোজের আয়োজন করেন। ১৬ এপ্রিল সোমবার সাইতামা কেন, সিসাতো সিটি তোগাসাকি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত নৈশভোজে আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে স্থানীয় প্রবাসী গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক, ব্যবসায়ী ও আঞ্চলিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। আমন্ত্রিত হয়ে অংশগ্রহণ করে প্রবাসী মিডিয়া কর্মীবৃন্দ, টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস কর্মকর্তাগণ এবং বেশ কিছুসংখ্যক জাপানি সুহৃদ। উল্লেখ্য, ত্রয়োদশ টোকিও বৈশাখী মেলা ২০১২ উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত হয়ে আসেন কণ্ঠশিল্পী হায়দার হোসেন। আমন্ত্রিত হয়ে আসেন দৈনিক ভোরের কাগজ এবং দিনের শেষের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নাঈম নিজাম এবং এশিয়ান ক্রিকেট উন্নয়ন কর্মকর্তা, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুল। প্রায় দু’শ অতিথি নৈশভোজে আপ্যায়িত হন।

নৈশভোজ শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান থাকার কথা থাকলেও সময় সংক্ষিপ্ততার জন্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সংক্ষিপ্ত করতে হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন বাবু ঢালী, জায়েদ এবং তানিয়া ইসলাম মিথুন। সব শেষে নৈশভোজের আয়োজক, প্রবাসীদের প্রিয় মুখ বাদল চাকলাদার সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। বাদল চাকলাদার একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের কিংমেকার এবং মুনশীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপানের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। সজ্জন হিসেবে তিনি পরিচিত।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply