যৌতুকের বলি ২ গৃহবধূ!

মুন্সীগঞ্জ সদর ও লৌহজংয়ে পৃথক ২ গৃহবধূ যৌতুকের বলি হয়েছে। এদেরকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রিকাবীবাজার এলাকা বিয়ের ৪ মাসের মাথায় যৌতুকের দাবিতে মারুফা বিনতে মিজান তুলি (১৮) নামের গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে ও জেলার লৌহজং উপজেলার চারিগাঁও গ্রামে গৃহবধূ মমতা সরকারকে (২৫) পিটিয়ে হত্যা করার এ অভিযোগ করেন নিহতের পরিবার। স্ব-স্ব থানা পুলিশ সোমবার রাতে ২ গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে। মঙ্গলবার সকালে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে নিহত ২ গৃহবধূর লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। নিহত গৃহবধূ তুলি নারায়নগঞ্জের চাষাড়া এলাকার মিজানুর রহমানের মেয়ে। অপর নিহত মমতা জেলার টঙ্গীবাড়ি উপজেলার সিদ্বেশ্বরী গ্রামের হরিনাথ সরকারের মেয়ে। পুলিশ ও নিহতের ভাই সুলভ সরকার জানান, সোমবার সন্ধ্যায় স্বামীর বাড়ির লোকজনের এলোপাতাড়ি পিটুনিতে মারাত্মক আহত অবস্থায় গৃহবধূ মমতাকে সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় হাসপাতালের বারান্দায় গৃহবধূর লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায় স্বামী স্বপন সরকার ও তার স্বজনরা। স্বামী স্বপন সরকার লৌহজং উপজেলার দক্ষিন চারিগাঁও গ্রামের মৃত হরিপদের ছেলে। ঘটনার পর স্বামীর বাড়ির লোকজন আতœগোপন করে। এখন ঘটনা ধামাচাপা দিতে গ্রামে মিথ্যে ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে মমতা বিষপানে আতœহত্যা করেছে।

এদিকে, জেলা সদরের রিকাবীবাজার এলাকার হাজী আকবর মিয়ার বসত বাড়ি থেকে তার ছেলে আল-আমিনের স্ত্রী মারুফা বিনতে মিজান তুলির ঝুলন্ত লাশ সোমবার সন্ধ্যায় উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় স্বামীর বাড়ির লোকজন বলছেন- মান অভিমান করে সে নিজেই গলায় ফাঁস লাগিয়ে আতœহত্যা করেছে। নিহতের বাবা মিজানুর রহমান দাবি করেন- বিয়ের সময় স্বর্ণালংকার দেওয়া হয়। বেশ কিছু দিন যাবত যৌতুক বাবদ এক সেট ফার্ণিচার দাবী করে আসছিল তুলির স্বামী। ওই ফার্নিচার দিতে বিলম্ব হওয়ায় শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখে স্বামীর বাড়ির লোকজন। গত ২২ জানুয়ারি তুলি ও আল-আমিনের মধ্যে বিয়ে হয়। নিহত ২ গৃহবধূর পরিবারের পক্ষে লৌহজং ও সদর থানায় পৃথক দু’টি হত্যার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

গৃহবধু তুলির হত্যার ছবিগুলো নেয়া হয়েছে কামাল সাহেবের ফেছবুক প্রোফাইল থেকে

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
==============

মুন্সিগঞ্জে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

মুন্সিগঞ্জের সদর উপজেলার কালিন্দিপাড়া এলাকায় মারুফা বিনতে তুলি (১৫) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মারুফার পরিবারের অভিযোগ, যৌতুকের জন্য শ্বশুরবাড়ির লোকজন নির্যাতনে হত্যার পর মারুফার লাশ সিলিংয়ের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে।

পারিবারিক ও পুলিশ সূত্র জানায়, তিন মাস আগে উপজেলার মীরকাদিম পৌরসভার কালিন্দিপাড়া এলাকার আল আমিনের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী পূর্বপাড়া এলাকার মারুফার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে ১০ ভরি স্বর্ণের জন্য মারুফার ওপর শ্বশুরবাড়ির লোকজন নির্যাতন শুরু করে। গত শনিবার দুপুরে শাশুড়ি সুরাইয়া আক্তার মারুফার মাকে মুঠোফোনে জানান, মারুফা আত্মহত্যা করেছে। ওই দিন রাত আটটার দিকে সিলিংয়ের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় মারুফার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ ঘটনায় মারুফার বাবা মিজানুর রহমান মারুফার স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি, দেবরসহ পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করেন। ঘটনার পর থেকে মারুফার স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার প্রথম আলোকে বলেন, আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

প্রথম আলো

Leave a Reply