শ্রীনগরে আরেক আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে সরকারি দীঘি ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে সরকারি দীঘি ভরাট করছে এক প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে প্রকাশ্য দিন-দুপুরে সরকারি খাস জায়গায় ড্রেজার বসিয়ে মাটি ভরাট করছেন। এই ভূমিদস্যুর নাম বাবুল আক্তার মন্টু । উপজেলা প্রশাসন নির্বিকার। লিজ নেওয়ার অজুহাতে সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ভরাট কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ক্ষমতাসীন ওই ভূমি দস্যুর বিরুদ্ধে ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস করছেনা। এর আগে হাই কোর্টের নির্দেশে ভাগ্যকুল এলাকায় বালু ভরাট করে বেদখলকৃত সরকারি খালটি ভাগ্যকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন মিটুল তার লোকবল দিয়ে গত টানা ১ মাস ধরে বালু অপসারনের কাজ শুরু করে গত ৩ মে এর খনন কাজ শেষ করেন। বাংলা ২৪ বিডি নিউজ ও আজকারের খবর পত্রিকাসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সরকারি খাল দখলের খবর প্রকাশ হলে মহামান্য হাইকোর্ট গত ৩ জানুয়ারি এর বিরুদ্ধে সু-মোটো রুল জারি করে তা পূনরুদ্ধারের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন।

এর প্রেক্ষিতে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম ও শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্জয় চক্রবর্তী দখলদার মিটুলকে বালু অপসারনের নির্দেশ দিলে তিনি ভরাটকৃত খাল থেকে বালু অপসারন করতে বাধ্য হন। এদিকে, প্রায় ৬ শ’বছরের পুরানো এ দীঘির জমির পরিমাণ ৮ একর ৪৬ শতাংশ। দীর্ঘ দিন থেকেই একটি ভূমিদস্যু চক্র নানা কায়দা করে দীঘিটি অবৈধভাবে দখল করে নেয়ার চেষ্টা করে। সর্বশেষ এলাকার প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল আক্তার মন্টু দীঘিটির প্রায় অর্ধেক একাই জোর পূর্বক দখল করে রেখেছেন বলে দীঘির চারপাশের লোকজন অভিযোগ করেন। এদিকে আওয়ামী লীগ নেতা মন্টু দীঘিতে দ্রুত মাটি ভরাটের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।এ নিয়ে দীঘির চারদিকের অন্তত ৫শতাধিক বাসিন্দাদের উৎকন্ঠার যেন শেষ নেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় ৮০ বছরের এক বৃদ্ধা অভিযোগ করে বলেন, এই দীঘির জলে নাওয়া, সাঁতার আর কতো শৈশব স্মৃতি বিজড়িত তা বলে শেষ করা যাবে না। এতো দিন শুনেছি, আমাদের পূর্ব পুরুষেরা (হিন্দু জমিদাররা) এর সব জমি জনকল্যানে দান করে গেছেন। অহন কাগজের মার প্যাঁচে পুরো দীঘিই লইয়া যাইতেছে। দীর্ঘ নি:শ্বাস ছেড়ে একই অভিযোগ করেন ওই এলাকার ৭০ উর্ধ্ব আব্দুস শহীদ খান।

উল্লেখ্য, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আওলাদ হোসেন ১৯৭৯ সালে দীঘিটির ৩ একর ৫০শতক জায়গা হাসাড়া কালী কিশোর উচ্চ বিদ্যালয়ের উন্নয়নের স্বার্থে প্রতিষ্ঠানের নামে লিজ নিয়ে ছিলেন। কিন্তু সম্পূর্ণ বিধি বহির্ভূতভাবে আওয়ামী লীগের ওই নেতা আগের লিজ বাতিল করে আজ দীঘিটি গিলে ফেলছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আহসান হাবীব ও এলাকার সচেতন মহল এ বিষয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন। শ্রীনগর সহকারী কমিশনার (ভূমি) সৈয়দা নূর মহল আশরাফি বলেন, সরকারী সম্পত্তি আর দাবিকৃত মালিকানাদের মাঝে ডিমারগেশনের একাধিকবার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু কতিপয় ভূমিদস্যু সু-কৌশলে তা বারবার নস্যাৎ করে দিচ্ছে। কিছুদিন পূর্বে এলাকাবাসী এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একটি স্মারক লিপি দিয়েছেন। এসময় ইউএনও সঞ্জয় চক্রবর্তী এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আশার বাণীও শুনিয়েছেন। কিন্তু, এর যথাযথ বাস্তবায়নের উদ্যোগ না নেওয়ায় এলাকাবাসী হতাশ। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা মন্টু বলেন, ১ শ’ ৪০ শতক জমি লিজ আর মালিকানা ৩৫ ফিট চওড়া রাস্তায় ড্রেজার বসিয়েছি। এতে দোষের কিছু নাই।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply