গজারিয়ায় গণহত্যা দিবস পালিত

৯ মে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া গণহত্যা দিবস। যথাযথ মর্যাদায় গজারিয়ায় দিবসটি পালিত হচ্ছে। বুধবার উপজেলা পরিষদ ও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে শহীদদের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

১৯৭১ সালের ৯ মে পাকহানাদার বাহিনী তৎকালীন গজারিয়া থানার কয়েকটি গ্রামের নিরীহ নিরপরাধ ৩ শ’ ৬০ জনকে হত্যা করে। দিনব্যাপী গণহত্যা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট চালায়। নিহতরা যে শুধু অত্র এলাকার লোক ছিলেন তা নয়। অনেকে চাকরি, ব্যবসা বা বেড়ানো সূত্রে এ এলাকায় ছিলেন। যাদের অনেকেরই নাম জানা যায়নি। ৯ মে’র সেই হৃদয়বিদারক হত্যাযজ্ঞের ঘটনা মনে করে আজও অনেকে শিউরে ওঠেন। গজারিয়ার সেদিনের শহীদদের সেই গণকবরটি এখনো মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বহন করছে।

এ অঞ্চল থেকে পরবর্তী সময়ে প্রকাশিত বিভিন্ন মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সংকলন থেকে জানা যায় মুক্তযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ফুলদী নদীর উপকণ্ঠের গ্রামগুলোতে মুক্তিবাহিনীর ট্রেনিং ক্যাম্প গড়ে ওঠায় স্থানীয় রাজাকাররা ক্ষিপ্ত হয় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি। কথিত আছে তারা খবর পাঠায় তাদের দোসরদের কাছে। আর এ খবরের ভিত্তিতেই গণহত্যা চালানো হয়।

৪ মে এলাকার প্রায় ৪০/৫০জন যুবক একত্রিত হয়। উদ্দেশ্য ট্রেনিং প্রাপ্তির জন্য ভারতে লোক পাঠানো, প্রতিরোধ কমিটি গঠন, স্বাধিকার আন্দোলনে জনসাধারণকে অনুপ্রাণিত করা, অস্থায়ী ট্রেনিং ক্যাম্প ও মুক্তিযোদ্ধা সংগঠন করা। এ সভার উদ্যোক্তা ছিলেন ফজলুল হক, আব্দুল খালেক আলো, শেখ আতাউর রহমান, তানেস উদ্দিন আহমেদ, আমিরুল ইসলাম, সৈয়দ আহমেদ, হাফিজ আহমেদ, আব্দুল হাকিম ও আব্দুল মালেকসহ আরো অনেকে। গজারিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ৫ মে থেকে গজারিয়া শতীষ কর্মকারের বাড়ির সামনের খালি জায়গায় ও গোসাইরচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যুবকরা মুক্তিযুদ্ধের সাধারণ ট্রেনিং শুরু করে। ৮ মে সন্ধ্যায় গজারিয়া বাজারে অগ্নিবীণা সমিতি কার্যালয়ে পুনরায় সভা বসে।

অনেকে জানান গজারিয়ার গজনবী চৌধুরী খোকা, শামসুদ্দীন চৌধুরী, গফুর চৌধুরীরা তখন মুসলিম লীগ ও শান্তি কমিটি সংশ্লিষ্ট ছিলেন। হিন্দু সম্পত্তি দখল তথা এলাকায় প্রভাব বিস্তারের জন্য তারা পাক আর্মিদের চিঠি লিখে এ এলাকায় হিন্দুদের ব্যাপক অবস্থান ও মুক্তিবাহিনী সংগঠিত হবার কথা বার বার জানান। যার ফলশ্রুতিতে এই হত্যাযজ্ঞ।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply