হেরে গেলেন খাদিজা

দেড় মাস মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে হেরে গেলেন খাদিজা বেগম। শ্বশুরবাড়ির লোকজনের নির্যাতনে আহত ওই গৃহবধূ গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢামেক আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত ২৬ মার্চ সন্ধ্যায় শাহআলী এলাকার ৪২/৩ নবারের বাগের বাসায় স্বামী আব্দুর রহমান, ননদ নাসিমা ও ননদ জামাই জিল্লুর রহমান খাদিজা বেগমকে বেদম প্রহার করে। এতে সে গুরুতর আহত হলে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

খাদিজার স্বজনরা জানান, বিয়ের পরপরই খাদিজার স্বামী আব্দুর রহমান বিদেশে চলে যান। দেশে ফিরে গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জে ইউপি চেয়্যারম্যান নির্বাচন করেন। নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর রহমান যৌতুকের জন্য খাদিজাকে চাপ দেন। মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভেবে খাদিজার বাবা-মা জামাতা আব্দুর রহমানকে আবার বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করে। প্রায় ৩ বছর পর দেশে ফিরে আবার নির্বাচনের কথা বলে টাকা দাবি করলে খাদিজার সঙ্গে এ নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। এ ছাড়া টাকার জন্য প্রায়ই খাদিজাকে নির্যাতন করা হত। খাদিজার স্বজনরা জানান, ঘটনার সময় টাকা নিয়ে ঝগড়া হলে তাকে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। খাদিজার মৃত্যুর ঘটনায় শাহআলী থানায় খাদিজার স্বামী আব্দুর রহমানসহ ৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিসুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আসামিরা পলাতক রয়েছে।

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : আমাদের সময়

Leave a Reply